banglanewspaper

প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ সত্ত্বেও বিক্ষোভ অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন জর্দানের আন্দোলনকারীরা। পুরনো দাবির সঙ্গে এখন পুরো সরকার ব্যবস্থার সংস্কারের দাবি অন্তর্ভুক্ত করে আন্দোলন করছেন তারা।

কর সংস্কার ও দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে গত সপ্তাহ থেকে আন্দোলনে নামে জর্দানের মানুষ। তাদের দাবির মুখে সোমবার প্রধানমন্ত্রীর পদ ছাড়েন হানি আল-মুলকি। ধারণা করা হচ্ছে, আর্থিক নীতিকে কেন্দ্র করে শুরু হওয়া ওই বিক্ষোভ থামানোর জন্য বাদশা প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে বলেছেন।

তবে তা সত্ত্বেও টানা পঞ্চম দিনের মতো সোমবার রাস্তায় নেমে আসে বিক্ষোভকারীরা। সরকার ব্যবস্থার ‘নতুন পদ্ধতি’ চায় তারা। জারকা প্রদেশের বিক্ষোভকারী ওদাই নোফাল বলেন, ‘আমরা আজ সরকারকে নতুন বার্তা দিতে যাচ্ছি।’

২৮ বছর বয়সী এই বিক্ষোভকারী আরও বলেন, ‘ক্ষমতা জনগণের। জনগণের সঙ্গে বোঝাপড়ার ক্ষেত্রে সরকারকে আরও সতর্ক হওয়া দরকার। তারা যদি দেশের অর্থনৈতিক সংকট নিরসন করতে চায়, তবে জনগণের পরিবর্তে প্রতিষ্ঠিত দুর্নীতির ওপর চাপ সৃষ্টি করতে হবে।’

২০১৬ সালে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন মুলকি। বিক্ষোভকারীরা তার পদত্যাগের পাশাপাশি স্বচ্ছতা, সুস্পষ্ট লক্ষ্য ও সরকার ব্যবস্থার একটি বিস্তারিত সংস্কার চান। রুটি ও তেলের দামেও ভর্তুকি চান তারা।

২৬ বছর বয়সী হোসাইন স্মাদি বলেন, ‘আমরা সরকার সংস্কার চাই এবং সরকার কীভাবে অর্থনৈতিক নীতি ও সংশ্লিষ্ট সামাজিক বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করবেন- তা জানতে চাই।’

তরুণ এই আইনজীবী বলেন, ‘দিন দিন রাজপথে মানুষের সংখ্যা দ্বিগুন হচ্ছে। জর্দানের মতো জায়গায় এটা নজিরবিহীন।’

ট্যাগ: banglanewspaper প্রধানমন্ত্রী