banglanewspaper

সারা দেশের লক্ষ লক্ষ সাধারণ শিক্ষার্থীদের "কোটা সংস্কার অান্দোলন"এর যৌক্তিকতা ও গ্রহনযোগ্যতা থাকায় ৯ই এপ্রিল সরকারের পক্ষ থেকে অান্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ১৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলের সাথে সচিবালয়ে বৈঠক হয়।

বৈঠকে ৭ই মে এর মধ্যে অামাদের ৫ দফার অালোকে কোটা সংস্কার করে প্রজ্ঞাপন জারির অাশ্বাস দেওয়া হয়। 

১১ ই এপ্রিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মহান জাতীয় সংসদে সমগ্র জাতির সামনে সুস্পষ্টভাবে "কোটা বাতিল" এর যুগান্তকারী ঘোষণা দেন।

কিন্তু ৫৮ দিন পার হয়ে গেলে ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সংসদে দেওয়া ঘোষণার কোনো প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি।

তাই পূর্বনির্ধারিত সময় ৭ মে পার হওয়ার পর থেকে অামরা ছাত্রসমাজ বার বার প্রজ্ঞাপনের তাগিদ দিয়ে অাসছি। সেটাতে কেউ কোনো কর্ণপাত করছে না। কিন্তু শান্তশিষ্ট এই ছাত্ররা যদি প্রজ্ঞাপনের দাবিতে অাবার অান্দোলন করে তখন বিবেক-বুদ্ধি বিসর্জন দেওয়া সুবিধাবাদী, দালাল রাজনীতিবিদ এবং রাজনৈতিক দলের পদলেহন করা বুদ্ধিজীবি নামে জ্ঞানপাপীরা বলবে, অান্দোলনকারীরা জামাত -শিবির, সরকারের বিরুদ্ধে অান্দোলন করছে।

ঐ সুবিধাবাদী বুদ্ধিজীবি এবং রাজনৈতিক দালালদের প্রতি অাহ্বান, যৌক্তিক দাবি নিয়ে অান্দোলন করা ছাত্রদের নিয়ে মিথ্যা-বানোয়াট অপপ্রচার না করে, দলের দালালী করে পারলে বৈষম্যের বিরুদ্ধে জাগ্রত ছাত্রসমাজকে থামাতে অতি দ্রুত প্রজ্ঞাপনের ব্যবস্থা করুন।

অন্যথায় যৌক্তিক অধিকার অাদায়ে ছাত্রদের তেজ অাবার দেখবেন।

ছাত্রসমাজের এখন একটাই কথা,
"অার নয় কালক্ষেপণ,
দ্রুত চাই প্রজ্ঞাপন চাই।"

 

নুরুলহক নুর,

যুগ্ম আহ্বায়ক
সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

(এ বিভাগে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। বাংলাদেশ নিউজ আওয়ার-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে।)

ট্যাগ: banglanewspaper প্রজ্ঞাপন