banglanewspaper

মোস্তফা ইমরান রাজু, মালয়েশিয়া প্রতিনিধি : দীর্ঘ ১৩ বছর নিখোঁজ থাকার পর পরিবারের কাছে ফিরলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থানার চাঁনপুর গ্রামের জাহের মিয়া। দীর্ঘদিন খোঁজ না থাকায় জাহের মিয়ার পরিবারের সদস্যদের ধারণা ছিলো হয়তো কোন দুর্ঘটনায় তিনি মারা গেছেন।

তার বেঁচে থাকার খবরে আনন্দে অাত্মহারা স্ত্রী পেয়ারা বেগম ও তার তিন সন্তান কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমিতি মালয়েশিয়ার সহযোগীতায় সম্প্রতি স্মৃতিশক্তি হারানো মানষিকভারসম্যহীন জাহের'কে পরিবারের কাছে পাঠানো হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার রাহাদুজ্জামান জানান, প্রায় দেড় বছর আগে অসুস্থ জাহেরকে কে বা কারা কুয়ালালামপুরের অদুরে ক্লাং হাসপাতালের সামনে ফেলে রেখে চলে যায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের প্রাথমিক চিকিতসায় তার জ্ঞান ফিরে আসলেও জাহেরের স্মৃতিশক্তি হারিয়ে যায়। কোন স্বজনের খোঁজ না পাওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি বাংলাদেশ হাইকমিশনকে অবহিত করে।

তবে হাইকমিশন পড়ে বিপাকে, লোকটি বাংলাদেশী নিশ্চিত হ্ওয়া গেলেও জাহের তার ঠিকানা লিখতে বা বলতে পারে না। পরিচয় খুঁজতে নানা পদ্ধতি অবলম্বন করলেও দীর্ঘ সময়ে কোন খোঁজ মেলেনা। এ নিয়ে আরটিভি অনলাইনসহ বেশ কিছু পত্রিকায় সংবাদও প্রচার হয়েছে।

এ অবস্থায় সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেয় মালয়েশিয়াস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সমিতি’র সভাপতি নাজমুল ইসলাম বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার রাহাদুজ্জামানসহ সমিতির অন্যান্য সদস্যরা।

কারন বাংলাদেশের ম্যাপ দেখিয়ে  তারা অনেকটা নিশ্চিত হয় যে লোকটি’র বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া। সম্প্রতি চাঁনপুর গ্রামে লোকটি’র ছবি দেখে পরিবারের সদস্যরা জাহের মিয়ার পরিচয় নিশ্চিত করেন। শুরুতে’ই বিশ্বাস করতে পারেনি পুরো বিষয়টা। কারণ দীর্ঘ সময় ধরে কোনা যোগাযোগ না থাকায় তাদের  ধারনা ছিলো জাহের মিয়া মারা গেছেন। তার বেঁচে থাকার খবরে আনন্দে উদ্বেলিত স্ত্রী পেয়ারা বেগম ও তার তিন সন্তান কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

তবে জাহের মিয়ার দেশে ফেরার পথে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কয়েকলক্ষ রিঙ্গিতে’র ঋণে’র বোঝা। অসচ্ছল পরিবারের পক্ষে এই টাকা  সংগ্রহ করা অসম্ভব হয়ে পড়ে।

মালয়েশিয়াস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমিতি'র উদ্যোগে, বাংলাদেশ হাইকিমিশনের সহযোগীতায় ৩ জুন বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটে মানষিক ভারসম্যহীন জাহেরকে দেশে পাঠানো হয়েছে। 

অসহায় জাহের’কে দেশে পাঠিয়ে ফেইসবুকে দেয়া এক স্ট্যাটাসে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমিতি'র সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার রাহাদুজ্জামান লিখেছেন, আজ মনে হচ্ছে মানবতা এখন ও উজ্জীবিত, সত্যি প্রবাসে এসোসিয়েশন গড়ার স্বার্থকতা খুজে পাওয়া গেল। যার মধ্য দিয়ে ব্রাম্মণবাড়িয়া জেলা এসোসিয়েশন তথা ব্রাম্মণবাড়িয়াবাসীর সুনাম অর্জন হবে বলে আশা করছি।

সার্বিক সহযোগীতার জন্য তিনি ধন্যবাদ জানান সমিতির সভাপতি নাজমূল ইসলাম বাবুল, সহ-সভাপতি সাইদুর সরকার, সহ- দপ্তর সম্পাদক শামীম, মালেশিয়া আওয়ামীলীগের যুগ্ন- আহ্বায়ক ওহিদুর রহমান অহিদ, শফিকুর রহমান চৌধুরী, শাহ আলম হাওলাদার, কৃতজ্ঞতা জানান হাই কমিশনের লেবার কাউন্সিলর সায়েদুল ইসলাম, প্রথম সচিব (শ্রম) হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল,  কল্যানসহকারী মোকসেদ আলীসহ সমিতি'র অন্যান্য সদস্যদেরকে।

ট্যাগ: Banglanewspaper মৃত জাহের মিয়া বেঁচে ফিরলেন