banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিনিধি: একমাত্র শেখ হাসিনা সরকারেরই বড় বাজেটের চ্যালেঞ্জ নেয়ার সাহস আছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

২০১৮-১৯ সালের প্রস্তাবিত বাজেট নির্বাচনের নয়, জনগণের বাজেট বলেও মন্তব্য করেন তিনি। শুক্রবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে পুরনো মেঘনাঘাটে ফেরি সার্ভিস কার্যক্রম পরিদর্শনে এসে তিনি এ মন্তব্য করেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, বড় বাজেট, বড় চ্যালেঞ্জ। বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার সৎসাহস শেখ হাসিনা সরকারেরই আছে। এ কারণে বড় বাজেট পেশ করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, এই বাজেট আওয়ামী লীগের কোনো নির্বাচনী বাজেট নয়। এটি একটি জনবান্ধব বাজেট হিসেবে প্রস্তাব করা হয়েছে। আলোচনা-সমালোচনার পর বাজেটে কোনটা থাকবে, কোনটা থাকবে না সেটি দেখা যাবে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, এমন বড় বাজেট গতবারও ছিল। এ বাজেট বাস্তবায়ন সরকারের একটি চ্যালেঞ্জ। বুঝে বা না বুঝে বিএনপি সব সময়ই বিরোধী কথা বলে থাকে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম আট লেনের মহাসড়কে সোনারগাঁওয়ের মেঘনায় টোল আদায়ে ভাংতি টাকা লেনদেনে দেরি হওয়াই যানজটের অন্যতম একটি কারণ বলে মনে করেন সড়ক পরিবহনমন্ত্রী।

ওবায়দুল কাদের বলেন, তার পরও সরকার নানাভাবে চেষ্টা চালাচ্ছে যানজট নিয়ন্ত্রণে রাখতে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মেঘনা ও গোমতি নদীতে ১২ জুন থেকে ফেরি চালু হতে যাচ্ছে। এ কারণে দ্রুতগতিতে রাস্তা ও নদীর ঘাট মেরামত করার কাজ চলছে। বরিশাল থেকে আনা হচ্ছে বিআইডব্লিউটিএর পন্টুন। ইতোমধ্যে গোমতি নদী খনন করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট বিভাগকে।

ঈদুল ফিতরে যেন নিরাপদে মানুষ ঘরে ফিরতে পারে সে লক্ষ্যে মহাসড়কে যানজট কমাতেই শেখ হাসিনার নির্দেশে মেঘনা-গোমতির এই ফেরি সার্ভিস চালু করা হচ্ছে বলে জানান সেতুমন্ত্রী।

এর আগে মন্ত্রী মেঘনা ফেরিঘাটের বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন সড়ক ও জনপদ বিভাগ এবং বিআইডব্লিউটিএর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ট্যাগ: Banglanewspaper সরকার বড় বাজেটে