banglanewspaper

রমজানের শুরুতে এয়ারলাইন্সগুলো অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে টিকেটের দামে বিশেষ ছাড় দিয়ে প্যাকেজ ঘোষণা করে। মাত্র দু’ সপ্তাহ না যেতেই সেই দাম বেড়ে আকাশচুম্বী হয়েছে। ভাড়া বেড়েছে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে। তারপরও মিলছে না টিকেট। ঈদ সামনে রেখে বিমানসহ দেশী-বিদেশী এয়ারলাইন্সগুলোর বাম্পার ব্যবসা হলেও সেবার মান বাড়েনি। তবে যাত্রীদের এ নিয়ে আপত্তি নেই। টিকেট পেলেই তারা যারপরনাই খুশি। এ সুযোগটাকেই কাজে লাগাচ্ছে এয়ারলাইন্সগুলো।

এয়ারলাইন্সগুলোর দাবি ৯০ শতাংশ টিকিট বুকড হয়ে গেছে। তবে, ট্যুর অপারেটরদের অভিযোগ, আসন ব্লক করে রাখায় যাত্রীদের বাড়তি দামে টিকিট কিনতে হচ্ছে। এদিকে অতিরিক্ত চাহিদা থাকায় ঈদে ঢাকা-চট্টগ্রামসহ বেশ কিছু রুটে অতিরিক্ত ফ্লাইট দিচ্ছে বিমান সংস্থাগুলো।

টিকেট নিতা আসা একজন জানানা, সাধারণত এই টিকেটের দাম ২৫০০ টাকা। ওই টিকেটগুলো বিক্রি হয়ে গেছে। এছাড়াও যে ভাড়াটা অন্য সময়ে ৮০০০ টাকা ছিল, সেটা এখন ১২০০০ টাকা। এই জিনিসগুলো আমাদের জন্য সহনীয় নয়। বাংলাদেশে এয়ারলাইন্স গুলো সেবা দিচ্ছেন, না ব্যবসায় করছেন।

ট্যুর অপারেটরদের অভিযোগ, বাড়তি দামে টিকিট বিক্রির জন্য, এয়ারলাইসেন্সগুলো ঈদের আগে ও ছুটির পরের কয়েক দিনের অধিকাংশ আসন ব্লক করে রাখায় এই সংকট।

দি সিটি হলিডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুভাষ চন্দ্র দাশ বলেন, ঈদের সময়ে সব এয়ারলাইসেন্সগুলো একই নিয়মে চলে। তারা ব্লক আউট ডেট দিয়ে রাখে। ঈদের আগের তিনদিন, ঈদের পরের তিন দিন।

ট্যাগ: banglanewspaper ঈদ