banglanewspaper

পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের আর মাত্র কিছুদিন বাকি। শপিংমলগুলোয় এখন কেনাকাটার ধুম। শুধুই কি শপিংমলে, ঈদের কেনাকাটা জমে উঠেছে অনলাইন বাজারেও। দৈনন্দিন কর্মব্যস্ততা ও যানজটের ভোগান্তি থেকে রেহাই পেতে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ভার্চুয়াল এই বাজার। এক ক্লিকেই পছন্দের পণ্যটি হাজির হবে আপনার দোরগোড়ায়। ই-কমার্স সাইটের মাধ্যমে ঘরে বসে অনলাইনে কেনাকাটার চলটা শুরু হয়েছে ১৯৯৮ সালে।

অন্যান্য দেশের তুলনায় দেরিতে হলেও, ধীরে ধীরে আমাদের দেশেও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে অনলাইনে কেনাকাটা। শুধু দেশীয় ক্রেতাই নন, অনলাইনে কেনাকাটা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে প্রবাসীদের কাছেও। দেশের বাইরে বসেও প্রবাসীরা এখন প্রিয়জনকে তাৎক্ষণিকভাবে উপহার দিতে পারছেন পছন্দের পণ্যটি।

সাইমন নামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘অফিসে সারা দিন ব্যস্ত থাকতে হয়। সপ্তাহে শুক্রবার ছুটি থাকলেও পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে হয়, বাইরে গিয়ে শপিং করাটা হয়ে ওঠে না। তাই অনলাইনের মাধ্যমে  শপিং করে থাকি বেশির ভাগই।’

সাইমন বলেন, ‘আমি ও আমার স্ত্রী বাসায় বসে বিভিন্ন অনলাইন মার্কেটে দেখি কী পণ্য উঠেছে। সেগুলো দেখে অর্ডার করি। দু-তিন দিনের মধ্যে সেসব পণ্য হাতে পেয়ে যাই। তবে পণ্যগুলোর গুণাগুণ অনেক ভালো।’

সাইফ নামের এক ছাত্র জানান, বর্তমানে অনলাইনের মাধ্যেম মোবাইল, ল্যাপটপ, ক্যামেরা অর্ডার করেন। সেসব পণ্য হাতে পেয়ে টাকা পরিশোধ করেন। তিনি বলেন, এবার অনলাইন মার্কেট দারাজ বিডির মাধ্যমে একটি আই ফোন কিনেছেন। অর্ডার করার চার দিনের মধ্যে সেটা তিনি হাতে পেয়েছেন।

ইএমআই সুবিধা

অনলাইনের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ইএমআইর (মাসিক কিস্তি) সুবিধা দেওয়ায় অনেকে আবার কেনাকাটায় আগ্রহী বেশি হচ্ছেন। কারো একটি ক্রেডিট কার্ড থাকলেই জিরো ইন্টারেস্টের মাধ্যমে পণ্য ক্রয় করতে পারছেন। সে ক্ষেত্রে ক্রেতাকে অনলাইন মার্কেট ছয় থেকে ১২ মাসের ইএমআইর সুবিধা দিচ্ছে। অর্থাৎ একজন ক্রেতার পকেটে টাকা না থাকলেও মাসে মাসে ব্যাংকে কিস্তি দেওয়ার মাধ্যমে পণ্য কেনার সুযোগ পাচ্ছেন।

মনসুন অনলাইন শপার্সের কর্ণধার শরীফ সিহাব জানান, ঈদ উপলক্ষে তিনি অনলাইনের মাধ্যমে শাড়ি বিক্রি করছেন। তরুণীরা বেশি অর্ডার করছেন। পণ্যের গুণাগুণ অনেক ভালো ও বেচাকেনাও ভালো রয়েছে।

ট্যাগ: banglanewspaper অনলাইন