banglanewspaper

রহমত ও মাগফেরাতের পর এইতো চলে এলো নাজাত। রমজানের শেষ দশকে এলাম আমরা। প্রভূর পরম দয়ায় কৃপার সাঁকো পেরিয়ে রহমত মাগফেরাতের পর মুক্তির প্রার্থনা করছি এখন। পবিত্র রমজানে শুরু থেকে এখন অবধি আমল ও শুদ্ধির নূরানি পরিবেশের মধ্য দিয়েই অতিবাহিত করছি আমাদের রাত-দিন। রহমত -মাগফেরাত শেষে নাজাতের শেষ দশকে মহান আল্লাহর দরবারে আকুতি জানাচ্ছি আমাদের ক্ষমার। জাহান্নাম থেকে পরিত্রাণের। নিয়মিত বিশ দিন সিয়াম সাধনা পালনের পর রোজাদার এমন অবস্থায় উপনীত হয়েছে। যেখানে রয়েছে তার জন্য মাফ।

রাসূল (সা.) বলেছেন, “রমজানের প্রথম ১০ দিন রহমতের, দ্বিতীয় ১০ দিন মাগফিরাত লাভের এবং তৃতীয় ১০ দিন জাহান্নাম থেকে নাজাত প্রাপ্তির।” (মিশকাতুল মাসাবিহ)

এবং এ দশকে আমরা অপেক্ষা করি পবিত্র শবে কদর পাওয়ার। যে শবে কদরে অবতীর্ণ হয়েছে মহাগ্রন্হ আল কোরআন। খোদার কালাম। এ রাতেই পবিত্র মক্কা মুকাররমার `গারে হেরায়` অবতীর্ণ হয় পবিত্র কোরআন। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের পক্ষ থেকে মহানবী রাসূল (সা.) এর কাছে ফেরেশতাদের সরদার হযরত জিবরাইল (আ.) নিয়ে আসেন এই ঐশ্বরিক বাণী।

আল্লাহ বলেন, “আমি তো ইহা অবতীর্ণ করেছি এক বরকতময় রজনিতে। আমি তো সতর্ককারী। এ রজনিতে প্রত্যেক প্রজ্ঞাপূর্ণ বিষয় স্থিরকৃত হয়।( সূরা: আদ-দুখান, আয়াত:৩-৪)

অন্যত্র আছে, নিশ্চয় আমি কোরআন অবতীর্ণ করেছি এক মহিমান্বিত রজনিতে। আর মহিমান্বিত রজনি সম্পর্কে তুমি কী জান ? মহিমান্বিত রজনি সহস্র মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ। সে রাতেই ফেরেশতাগণ ও রুহ অবতীর্ণ হয় প্রত্যেক কাজে তাদের প্রতিপালকের অনুমতিক্রমে। শান্তিই শান্তি, সে রজনি উষার আবির্ভাব পর্যন্ত। (সূরা: দুখান)

শেষ দশকে পাওয়া পবিত্র এ রাতের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে বলা হয় "যা হাজার মাস থেকেও শ্রেষ্ঠ। যে ব্যক্তি এ রাতে ঈমান ও ইহতিসাবের সাথে ইবাদত-বন্দেগি করবে তার অতীতের পাপগুলো ক্ষমা করে দেয়া হবে। মোচন করা হবে তার সমস্ত অপরাধ।

হযরত আয়েশা (রা.) বর্ণিত, “রাসূল (সা.) এ রাতে কোরআন তিলাওয়াত, জিকির, সালাত ও দোয়ার মাধ্যমে জাগ্রত থাকতেন এরপর সেহরি গ্রহণ করতেন। (মুসলিম শরীফ)

রাসূল (সা.) বলেন, "তোমরা রমজানের শেষ দশকে লাইলাতুল কদর অন্বেষণ কর। (বুখারী শরীফ)

আরেক হাদীসে আছে, ``যে লাইলাতুল কদর অন্বেষণ করতে চায় সে যেন শেষ সাত দিনে অন্বেষণ করে।’ বর্ণনায় : (বোখারি শরীফ ও মুসলিম শরীফ)

নবী করিম (সা.) এ রাতে ইবাদত-বন্দেগিতে অন্যান্য রাতের তুলনায় বেশি সময় ও শ্রম দিতেন। শেষ দশক তথা নাজাতের এ দশদিন রাসূল (সা.) ইতিকাফ ও আমলের জন্য পূর্ণ প্রস্ততি গ্রহণ করে স্ত্রী-পরিজন থেকে আলাদা হয়ে সম্পূর্ণই ইবাদাতে মনোযোগী হতেন। নিবিড়ভাবে সমাহিত হতেন খোদার দাসত্বে। বসে যেতেন এতেকাফে।

হযরত আয়েশা (রা.) বলেন, "রাসূলুল্লাহ (সা.) রমজান মাসের শেষ দশকে মসজিদে এতেকাফ করতেন। যতদিন না আল্লাহ তাকে মৃত্যু দান করেছেন ততদিন তিনি এ আমল অব্যাহত রেখেছেন। তার ইন্তেকালের পর তার স্ত্রী-গণ এতেকাফ করেছেন। (বোখারি শরীফ ও মুসলিম শরীফ)

তাই আমাদের একান্ত কর্তব্য হল আমলে আমলে রমজানের এ শেষ দিনটিকে রাঙিয়ে তোলা। বিশেষ করে এ দশদিন এতেকাফে বসে একমনে ধ্যান করে নিজের পরকালীন মুক্তির পথে দুনিয়ার জীবনে একাগ্রচিত্তে আল্লাহর হয়ে যাওয়ার অনুশীলন করা।

ট্যাগ: banglanewspaper রমজান