banglanewspaper

শরীফ আনোয়ারুল হাসান রবীন: প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হতে এক প্রকল্পে  জমি আছে ঘর নেই’ এমন হতদরিদ্র শ্রেণীর মানুষের জন্য এক লাখ টাকা খরচে আধাপাকা ঘর তৈরী করে দেয়া হচ্ছে। সরকারের তৈরী এ সকল ঘর পেতে কোন প্রকার অনিয়ম দূর্ণীতিকে প্রশ্রয় না দেয়ার অঙ্গীকার করলেন মাগুরা সদর উপজেলার সুবিধাভোগী ২১৮ জন হতদরিদ্র পরিবারের মানুষ। 

সোমবার দুপুরে মাগুরা সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে সংশ্লিষ্ঠ চেয়ারম্যানবৃন্দসহ সুবিধাভোগীদের সাথে সচেতনতার লক্ষে মতবিনিময় সভায় ঘর পাওয়ার ক্ষেত্রে কারো সাথে কোন টাকা পয়সার লেনদেন না করার শপথ নেন তারা।                                            

ইউএনও  আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জগদল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, হাজরাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবির হোসেন, রাঘবদাইড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম বাবুল ফকিরসহ অন্যরা। এ প্রকল্পে জেলার ৪ উপজেলায় হতদরিদ্র মানুষের মাঝে মোট প্রায় ১ হাজার বাড়ি তৈরী করে দেয়া হবে বলে জানা গেছে।                                                          

এ সময় উপস্থিত বীরপুর গ্রামের হতদরিদ্র বিধবা জরিনা বেগম জানান- সামান্য ৪ শত জমির উপর একটি কুড়ে ঘর ছিল তার।  এ বছর কালবৈশাখী ঝড়ে তাও উড়িয়ে নিয়ে গেছে, অন্যের বাড়ির বারান্দায় রাত কাটাতেন তিনি। এবার ঈদ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী  তাদের নতুন বাড়ি দিচ্ছেন শুনে সিমাহীন আনন্দে আজ তার কান্না পাচ্ছে।

রামদেরগাতি গ্রামের বৃদ্ধ আক্তার মোল্যা,বেঙ্গা গ্রামের নিমাই পালসহ অনেকেই  জানালেন এই একই  অনুভূতি, এ সময়  তারা বলেন, বাড়ি পেতে তাদের যেন এক টাকাও কোথাও খরচ করতে না হয় বলে আজ এখানে আমাদের শপথ করানো হয়েছে। 

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু সুফিয়ান জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে সদর উপজেলায় ২১৮ টি হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে প্রত্যেকের জন্য এক লাখ টাকা খরচে এ বাড়ি তৈরীর কাজ চলছে। সুবিধাভোগীরা নিজেরাই তাদের স্ব স্ব বাড়ির নির্মাণ কাজের সঙ্গে  সংশ্লিষ্ঠ থাকবেন। অতীত অভিজ্ঞতায় দেখেছি এসব ক্ষেত্রে এক শ্রেণীর টাউট বাটপার বিভিন্ন কথা বলে দরিদ্র মানুষের কাছ থেকে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে থাকে।

অথচ এ ক্ষেত্রে ১টি টাকাও নেয়ার কোন এক্তিয়ার নেই।  তায় এদের কাছ থেকে কেউ যেন কোন প্রকার টাকা পয়সা নিতে না পারে তারাও যেন তা দেয়া থেকে বিরিত থাকে সে জন্যই সচেতন করতে এ সভা আহবান করা হয়। সংশ্লিষ্ঠ স্থানিয় চেয়ারম্যানবৃন্দ এ ব্যাপারে সহযোগিতা করছেন।  

অতিশিঘ্রই এসব পরিবারের মাঝে ঘর হস্তান্তর করতে পারবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

ট্যাগ: bdnewshour24 প্রধানমন্ত্রী