banglanewspaper

মোস্তাফিজুর রহমান, বরগুনা জেলা প্রতিনিধি : বরগুনা জেলার সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তরের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শামসুল শাহরিয়ার ভূঁইয়াকে ঘুষের ১৪ লাখ ৫০ হাজার টাকাসহ নিজ দপ্তর থেকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার (১১ জুন) বিকেল পৌনে ৩টার দিকে দুদক পটুয়াখালী সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে একটি বিশেষ টিম ঘুষের টাকাসহ হাতে-নাতে তাকে গ্রেফতার করে।

দুদকের উপ-পরিচালক (জন সংযোগ) প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, দুদকের পটুয়াখালী সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন, বরগুনা সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শামসুল শাহরিয়ার ভূঁইয়া বিভিন্ন ঠিকাদারের কাছ থেকে ঠিকাদারি কাজের জন্য চেক ইস্যু করে তাদের কাছ থেকে ঘুষ বাবদ নগদ ১৫ লাখ টাকা নিয়েছেন। 

এমন সংবাদের ভিত্তিতে তাৎক্ষণিক অভিযানের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক। প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায়, অভিযুক্ত প্রকৌশলী শামসুল শাহরিয়ার ভূঁইয়া তার অফিসের তিন তলার একটি কক্ষে বসবাস করেন এবং টাকাগুলো ওই কক্ষেই রয়েছে।

প্রনব বলেন, বিষয়টি কমিশনকে জানানো হলে দুদক সব বিধি-বিধান অনুসরণ করে দুদক পটুয়াখালী সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে একটি বিশেষ টিম গঠন করে। কমিশন ওই বিশেষ টিমকে ওই প্রকৌশলীর অফিস ও বাসা সার্চ করার অনুমতি দেয়। সার্বিকভাবে ঢাকা থেকে অভিযান তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব দেওয়া হয় দুদকের প্রধান কার্যালয়ের পরিচালক সৈয়দ ইকবালকে।

তিনি আরো বলেন, বিকেলে দুদক বিশেষ টিমের সদস্যরা দুদক পটুয়াখালী সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে এবং স্থানীয় প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়ানুর রহমানের উপস্থিতিতে বরগুনা জেলার সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শামসুল শাহরিয়ার ভূঁইয়ার অফিস এবং বাসা কক্ষ সার্চ করে ঘুষের ১৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা উদ্ধার করার পর তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এ বিষয়ে দুদক পটুয়াখালী সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে বরগুনা সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন বলেও জানান তিনি।

ট্যাগ: bdnewshour24 বরগুনা