banglanewspaper

দেশের আইকন তিনি। কিংবদন্তি আখ্যা দেওয়া হয় তাঁকে। পর্দায় যেকোনও চরিত্রকে বিশ্বাসযোগ্য করে তোলেন। তাই হরলিক্স-এর মতো ব্র্যান্ড থেকে বিগ বি অমিতাভ বচ্চনকে দূরে থাকার পরামর্শ দিল নিউট্রিশন অ্যাডভোকেসি ইন পাবলিক ইন্টারেস্ট-এর জাতীয় স্তরের সংস্থা। এই মর্মে অভিনেতাকে খোলা চিঠিও দেওয়া হয়েছে।

সপ্তাহ খানেক আগেই জিএসকে কনজিউমার হেলথকেয়ার-এর পক্ষ থেকে হরলিক্স মিল্ক ফুড ড্রিঙ্ক-এর ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর করা হয় বলিউডের শাহেনশাকে। এরপরই বিতর্ক দানা বাঁধে। এর মধ্যে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার পক্ষ থেকে চিঠিতে লেখা হয়, হরলিক্স-এ শর্করার মাত্রা অনেক বেশি থাকে। এমন পানীয় শিশুদের শরীরের ক্ষতিই করে।

এর কারণে ছোটবেলা থেকেই শিশুরা মেদবহুল হতে থাকে। তাদের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতাও কমে যায়। টেলিভিশনের হরলিক্স-এর বিজ্ঞাপনে অনেক কিছু দাবি করা হয়। কিন্তু বাস্তবে তেমনটা হয় না। ওই সমস্ত প্রতিশ্রুতিই মিথ্যে। মিস্টার বচ্চনের সামাজিক সম্মান রয়েছে। তাঁর কথায় মানুষ প্রভাবিত হয়।

তিনি যদি এমন পানীয়র প্রচার করেন, তাহলে মানুষ বিভ্রান্ত হতে পারে বলে মত ওই সংস্থার। তাদের দাবি, এর ফলে মানুষের সাংসারিক খরচও বেশি হয়। কারণ হরলিক্স-এর দাম অনেক বেশি। ফলে এর নিম্নবিত্ত পরিবারের অর্থনীতিতে এর প্রভাব পড়তে পারে।

তবে এই যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে জিএসকে কনজিউমার হেলথকেয়ার-এর পক্ষ থেকে। তাদের দাবি, ১০০ বছর ধরে মানুষের ঘরে ঘরে হরলিক্স বিশ্বস্ত প্রোডাক্ট। ভারতে যে সমস্ত শিশুরা অপুষ্টিতে ভুগছে তাঁদের সুস্থ রাখাটাই ব্র্যান্ড হিসেবে হরলিক্সের লক্ষ্য। যদিও এ তর্ক-বিতর্কে অভিনেতার তরফ থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া এখনও পর্যন্ত মেলেনি।

ট্যাগ: banglanewspaper হরলিক্স অমিতাভ বচ্চন