banglanewspaper

যদি বিএনপি ক্ষমতায় ফিরে আসে, তখন কী হবে?’
মাসখানেক আগে ভারতের একটি প্রভাবশালী সাপ্তাহিকে প্রকাশিত একটি নিবন্ধে ঠিক এই প্রশ্নটি ছুঁড়ে দিয়েছিলেন ভারতের আন্তর্জাতিক সম্পর্কের দুজন বিশ্লেষক, যাঁরা কাজ করেন একটি ফরেন পলিসি থিংক ট্যাংকের সাথে।


মেইনস্ট্রীম উইকলি’তে প্রকাশিত এই নিবন্ধটির শিরোণাম ছিল, “ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ: হোয়াট ইফ বিএনপি রিটার্নস।”
এর ঠিক এক মাস পরে বিএনপির কারাবন্দী নেত্রী খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে যখন দলের কর্মী-সমর্থকরা চরম উৎকন্ঠায়, তখন বিএনপির উচ্চপর্যায়ের এক প্রতিনিধিদলকে দেখা গেল নয়াদিল্লিতে। সেখানে তারা দফায় দফায় কথা বলছেন কীভাবে বাংলাদেশে একটি অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করা যায় সেটা নিয়ে।

আর ঠিক ঐ একই সময়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছুটে গেছেন লন্ডনে, যেখানে গত প্রায় দশ বছর ধরে নির্বাসিত দলের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ নেতা তারেক রহমান বসবাস করছেন।

ভারতের প্রভাবশালী দৈনিক ‘দ্য হিন্দু’তে একই রকম সময়ে প্রকাশিত হলো একটি প্রতিবেদন, যার মূল কথা, বিএনপি নেতারা ভারতের কাছে সাহায্য চাইছেন বাংলাদেশে একটি অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যাপারে।

বিএনপি বাংলাদেশে পরিচিত একটি ভারত-বিরোধী রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে।

কিন্তু গত মাসখানেকের ঘটনা কি সেখানে কোন পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিচ্ছে? বিএনপি কি তার ভারত সম্পর্কিত অবস্থানে বড় পরিবর্তন আনছে? ভারতের নীতিনির্ধারকরা কি বাংলাদেশ নিয়ে নতুন করে ভাবছেন?

বিএনপি নিয়ে নতুন আগ্রহ
ভারতের কয়েকজন সাবেক কূটনীতিক, লেখক ও সাংবাদিকের সাথে কথা বলে এমন ধারণা পাওয়া যাচ্ছে যে, বিএনপি ভারতের আস্থা অর্জনে নতুন করে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। বিএনপির নেতাদের কথাতেও তার আভাস মিলছে। আর এর পাশাপাশি ভারতের নীতিনির্ধারকরাও বাংলাদেশে বিকল্প রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে বিএনপিতে বিবেচনায় রাখতে চাইছেন।

বিএনপি যে বাংলাদেশে এখনো একটি গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক শক্তি, তারা যে ক্ষমতায় ফিরে আসতে পারে, আবারও বাংলাদেশে সরকার গঠন করতে পারে, এই বিবেচনাগুলো কিন্তু ভারত সরকারের নীতিনির্ধারকরা একেবারে বাদ দিতে চাইছেন না।

বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে প্রচলিত একটি ধারণা হচ্ছে, ভারতের কাছে আওয়ামী লীগ হচ্ছে সবচেয়ে বেশি পছন্দের দল এবং বিএনপি ক্ষমতায় ফিরে আসুক এটি তারা চায় না।
এ প্রশ্নটাই করা হয়েছিল অবসরপ্রাপ্ত একজন ভারতীয় কূটনীতিক বীনা সিক্রির কাছে। বাংলাদেশে একসময় ভারতের হাইকমিশনার ছিলেন বীনা সিক্রি, ২০০৩ হতে ২০০৬ সন পর্যন্ত, যখন বিএনপি ছিল ক্ষমতায়। তিনি দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া'র বাংলাদেশ স্টাডি সেন্টারের সাবেক চেয়ারপার্সন।

ভারত বিএনপিকে পছন্দ করে না এবং আওয়ামী লীগের প্রতিই তাদের পক্ষপাত, বীনা সিক্রি কিন্তু এই ধারণা একেবারেই নাকচ করে দিলেন।

“এটা একেবারেই ভুল প্রশ্ন এবং ভুল দৃষ্টিভঙ্গী। ভারত বাংলাদেশকে একটি শক্তিশালী, শান্তিপূর্ণ এবং সমৃদ্ধ রাষ্ট্র হিসেবে দেখতে আগ্রহী। ভারতের নেইবারহুড ফার্স্ট পলিসির মূল কথাও এটাই। পারস্পরিক সার্বভৌমত্বের প্রতি শ্রদ্ধা এবং পারস্পরিক অর্থনৈতিক স্বার্থের ভিত্তিতেই এটা হবে।”

তিনি স্বীকার করছেন যে শেখ হাসিনার সরকারের আমলে ভারতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কের বিরাট উন্নতি হয়েছে, কিন্তু তিনি একই সাথে এটাও বলছেন, ভারত বাংলাদেশের যে কোন রাজনৈতিক শক্তির সাথে কাজ করতে আগ্রহী, কথা বলতে প্রস্তত। তবে তাদেরকে অবশ্যই দুদেশের মধ্যে শান্তিপূর্ণ এবং বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক অব্যাহত রাখার নিশ্চয়তা দিতে হবে।

ট্যাগ: banglanewspaper বিএনপি