banglanewspaper

আবারও কলঙ্কিত হলো ছাত্রী-শিক্ষক সম্পর্ক। ১০ বছর বয়সী এক নাবালিকাকে ধর্ষণের চেষ্টায হাতেনাতে ধরা পড়ল শিক্ষক। ওই ছাত্রীর অভিভাবকদের তৎপরতায় সেই ঘটনাটি ক্যামেরাবন্দি করা হয়৷

এরপরই নির্যাতিতা নাবালিকা অভিভাবকগণ অভিযুক্ত সেই শিক্ষককে মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

ভারতের গাজিয়াবাদের লোনি এলাকায় ন্যাক্কারজনক এ ঘটনাটি ঘটে। খবর কলকাতা২৪।

জানা গেছে, গাজিয়াবাদে লোনির বাসিন্দা ১০ বছরের ওই ছাত্রী সত্যপাল কাশ্যপ নামের এক প্রাইভেট টিচারের কাছে পড়ত। কিন্তু, স্কুল বন্ধ থাকার জন্য সত্যপাল ওই ছাত্রীর বাড়িতে এসেই পড়াত। বেশকিছু দিন ধরেই সত্যপাল ওই ছাত্রীর সঙ্গে অশ্লীল আচরণ থেকে শুরু করে যৌন হেনস্তা করত। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার ধর্ষণের চেষ্টা করে বলেও অভিযোগ পাওযায় তার বিরুদ্ধে।

এ নিয়ে ওই ছাত্রী তার পরিবারের কাছে সবকিছু বলে। এর পরের দিন ওই শিক্ষক আসার আগেই ছাত্রীর কক্ষে একটি স্থানে অভিভাবকেরা মোবাইল ক্যামেরা অন করে রেখে দেয়।

ছাত্রীকে পড়াতে আসার পর সত্যপাল তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে যা ওই মোবাইলে ক্যামেরাবন্দি হয়ে যায়। সেই ভিডিওটি দেখার পর ক্ষোভে ফেটে পড়েন সবাই। পরে সেই প্রাইভেট টিচারকে গণধোলাই দেয়া হয়। এরপর পুলিশের হাতে তাকে তুলে দেয়া হয়।

ইতোমধ্যে অভিযুক্তকে আটক করে তদন্ত শুরু করে দিয়েছে পুলিশ। ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলাও দায়ের করা হয়েছে।

ট্যাগ: banglanewspaper ছাত্রীর সঙ্গে শিক্ষক