banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিনিধি: আগামী ডিসেম্বরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনী বছরের মাঝামাঝি সময়ের এই ঈদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-নেতাদের বেশিরভাগই ঈদ করছেন নিজ নিজ এলাকায়। কেউ কেউ আবার ঈদের দিন সকালে ঢাকায় থেকে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেই নিজ এলাকায় ছুটে গেছেন। আওয়ামী লীগ নেতাসহ তাদের ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে এই কথা জানা গেছে।

চলতি বছরের শেষভাগে অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় নির্বাচনকে টানা মেয়াদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো একপেশে নির্বাচন হিসেবে দেখছে না। এই নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জিং নির্বাচন হিসেবে নিয়ে ইতোমধ্যে বিভিন্ন প্রস্তুতি গ্রহণ শুরু করে দিয়েছে দলটি। এ লক্ষ্যে দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও দলের নেতা-মন্ত্রীদের ঈদে এলাকার মানুষের কাছে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। ফলে এবারের ঈদে এলাকার মানুষের কাছে যাওয়া-আসার মধ্যেই বেশি ব্যস্ত দলের নেতা-মন্ত্রীরা। সেখানে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ কোন্দল থাকলে তা মিটিয়ে দূরত্ব ঘোচানোর চেষ্টা ছিল পুরো রমজান মাসজুড়েই। অনেকে ১৫ রমজানের পর থেকেই নিজে উপস্থিত না থেকে নিজ অনুগত নেতাদের দিয়ে বিভিন্ন উপহার দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন।

বরাবরের মতোই আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকায় ঈদ করছেন। সরকারি বাসভবন গণভবনে ঈদের নামাজের পর প্রধানমন্ত্রী দলীয় নেতাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, বিদেশি কূটনীতিক, পেশাজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উদযাপন করছেন নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে নিজ বাড়িতে। তিনি তার নির্বাচনী এলাকার বসুরহাট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন।

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এবার ঈদ করছেন ঢাকায়। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সংসদ উপনেতা সাজেদা চৌধুরী দীর্ঘদিন থেকে বয়সজনিত কারণে শারীরিকভাবে অসুস্থ। এ কারণে তিনি এবার ঢাকাতে ঈদ করছেন। আর প্রতিবারের মতো এবারো নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে ঈদ করছেন শিল্পমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমু। উপদেষ্টা পরিষদের আরেক সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদও তার নির্বাচনী এলাকা ভোলায় ঈদ করছেন।

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যদের মধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এবার ঈদ করছেন ঢাকায়। গত বুধবার তিনি নিজ এলাকা সিরাজগঞ্জের কাজীপুরে থেকে ঢাকায় এসেছেন। সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরীও ঈদ করছেন ঢাকায়। তবে তিনি ঈদের আগেই নির্বাচনী এলাকার জনগণের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন। সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য সদস্য পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য্যও ঈদ করছেন ঢাকায়। ঈদের পরে তিনি নিজ এলাকায় যাবেন। সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য সাবেক মন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক ঈদের নামাজ আদায় করেছেন ঢাকায়। জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে তিনি আজ নামাজ আদায় করেছেন। এরপর গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে তিনি ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

লে. কর্নেল (অব) মুহাম্মদ ফারুক খানও ঈদ করছেন ঢাকায়। ক্যান্টনমেন্ট মসজিদে নামায আদায় করে গণভবন ও বঙ্গভবনে গেছেন তিনি। সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ ও আবদুল মতিন খসরু ঈদ করছেন ফরিদপুরে। সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য ও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ঈদ করছেন ঢাকায়। তিনি ঈদের আগেই এলাকায় নেতাকর্মীদের সঙ্গে কুশলবিনিময় করে এসেছেন। আবার ঈদের পরে যাবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কানাডা গিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরলেও তিনি ঈদের পরে দেশে ফিরবেন বলে জানা গেছে।


অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানকের নির্বাচনী এলাকা ঢাকায় হওয়াতে তিনি প্রতিবারেই নিজ নির্বাচনী এলাকা ঈদ করেন। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপু মণি নিজ এলাকা চাঁদপুরের মানুষের সঙ্গে ঈদ করছেন। এছাড়া আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমানও ঈদ করছেন তার নিজ এলাকা ফরিদপুরের মানুষের সঙ্গে। এদিকে দলের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ঈদ করছেন ঢাকায়। ঈদের পর বিপ্লব বড়ুয়া চট্টগ্রামে যাবেন বলে  জানিয়েছেন।

প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ঢাকায় ঈদের নামাজ শেষে নিজ নির্বাচনী এলাকা চট্টগ্রামে গেছেন। উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিনও ঈদ করছেন নিজ নির্বাচনী এলাকা চট্টগ্রামে। এছাড়াও দলের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় এবার ঢাকায় থাকছেন। ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী রোজার শুরু থেকেই নিজ এলাকা চাঁদপুরে আসার যাওয়ার মধ্যে আছেন।

আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ এবং বন পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দোলোয়ার হোসেন ঈদ করছেন ঢাকায়। আর সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল ঈদের দিন সকালে ঢাকায় থাকলেও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার পরেই চলে গেছেন নিজ এলাকা নেত্রকোনায়। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস ঈদ করছেন ঢাকায়। ঈদের পরে তিনি নিজ নির্বাচনী এলাকায় যাবেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর ঢাকায় ঈদ ঢাকায় করে ঈদের দিন দুপুরেই রওয়না হয়েছেন নিজ এলাকা কুমিল্লার দাউদকান্দি ও মেঘনায়।

আইন বিষয়ক সম্পাদক শ ম রেজাউল করিমও ঈদের কয়েকদিন আগে নিজ নির্বাচনী এলাকা পিরোজপুরে গেছেন। আর সাংগঠনিক সম্পাদক মধ্যে আহমেদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম ও খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এবার ঈদে ঢাকায় আছেন। তবে তারা তিনজনই ঈদের আগে নিজ নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন। ইফতার পার্টিসহ অংশ নিয়েছেন বেশ কিছু অনুষ্ঠানেও। ঈদের পরপরই আবার এলাকায় গিয়ে বেশ কিছু অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন বলে জানান তারা। এছাড়া আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন জয়পুরহাট, একেএম এনামুল হক শামীম শরীয়তপুরে, ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলও নিজ এলাকা চট্টগ্রামে ঈদ করছেন।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ১৫ রমজানের পর থেকে নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করে দলীয় নেতাকর্মী ও জনগণের সাথে কুশল বিনিময় করে এসেছি। এবার বিশেষ কারণে ঈদ ঢাকায় করবো। ঈদের পরেই পুনরায় আবার এলাকায় যাবো।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের বেশিরভাগই নিজ নিজ এলাকায় মানুষের সঙ্গে ঈদ করছেন। ঈদে সাধ্যমত নেতাকর্মী ও মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করছেন তারা। কয়েকদিন আগেই নিজ নির্বাচনী এলাকা বাগেরহাটে গিয়েছেন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য আমিরুল আলম মিলন ও এবিএম রিয়াজুল কবির কাওসার। কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য ইকবাল হোসেন অপু, এস এম কামাল হোসেন, আনোয়ার হোসেন ঈদ করছেন ঢাকায়। কয়েকদিন আগে তারা নিজ নির্বাচনী এলাকায় নেতাকর্মী ও জনগণের সাথে দেখা করে এসেছেন।

ট্যাগ: banglanewspaper আওয়ামী লীগ