banglanewspaper

প্রথম ম্যাচে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর কাছে ‘হার’ মানতে হয়েছিল স্পেনকে। তার হ্যাটট্রিকের কাছে মাথা নত করে ৩-৩ গোলের ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন আন্দ্রেস ইনিয়েস্তারা। ফলে ইরানের বিপক্ষে ম্যাচটি তাদের জন্য মহাগুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

টুর্নামেন্টে টিকে থাকতে জয় ভিন্ন কোনো বিকল্প পথ খোলা ছিল না স্প্যানিশদের সামনে। সেই যাত্রায় উতরে গেল ২০১০ বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। মুসলিম দলটিকে ১-০ গোলে হারিয়েছেন তারা। জয়সূচক গোলটি করেছেন স্ট্রাইকার ডিয়েগো কস্তা।

এ জয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেল স্পেন। কঠিন সমীকরণ নিয়ে শুরুতেই ইরানের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন ইনিয়েস্তারা। প্রথমার্ধের পুরোটা সময় সেই ধারা বজায় থাকে। ৮২ শতাংশ বল রাখেন নিজেদের দখলে।

তবে ইরানি ডিফেন্ডারদের কড়া মার্কিংয়ে গোলের তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেননি কস্তা, ইস্কোরা। তাদের সব আক্রমণ ভেস্তে দেন ইরানি রক্ষণসেনারা। ফলে গোলশূন্য ড্র নিয়ে বিরতিতে যায় দুদল।

বিরতি থেকে ফিরেও আক্রমণ সচল রাখে স্পেন। মুহূর্মহু আক্রমণে প্রতিপক্ষকে ব্যতিব্যস্ত রাখে দলটি। এবার বিমুখ হননি ফুটবলদেবী। ৫৪ মিনিটে গোল পেয়ে যায় তারা। ইরানের জালে বল জড়ান ডিয়েগো কস্তা। এ নিয়ে এবারের বিশ্বকাপে ২ ম্যাচে ৩ গোল করলেন তিনি।

পিছিয়ে পড়ে গোল পরিশোধে মরিয়া হয়ে পড়ে ইরান। এবার রক্ষণাত্মক খেলার খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসে তারা। উঠে একের এক আক্রমণে। তাদের প্রচেষ্টা আলোর মুখও দেখে।

৬২ মিনিটে ফ্রি কিক থেকে হেডে স্পেনের জালে বল জড়ান সাঈদ এজাতোলাহি। এতে সমতা ফেরার আনন্দে নেচে ওঠেন সতীথর্ ও সমথর্করা। তবে তাদের নিমিষেই উবে যায়। ভিএআর প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে গোল বাতিল করেন রেফারি। কারণ দর্শান, সেটি অফসাইড ছিল।

পরে গোল পেতে তুমুল চেষ্টা চালান সর্দার আজমাউনরা। তবে স্পেনের ইস্পাত কঠিন রক্ষণ ভাঙতে পারেননি তারা। ফলে শেষ পর্যন্ত তীব্র লড়াই চালিয়েও ১-০গোলে হারের হতাশা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় কার্লস কুইরোজের শিষ্যদের।

ট্যাগ: ইরান দ্বিতীয় রাউন্ড স্পেন