banglanewspaper

এম.পলাশ শরীফ, বাগেরহাট: বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে আপন ৪ ভাইসহ ৭ জনকে পিটিয়ে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। শুক্রবার স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আবুল হোসেন হাওলাদার বাদি হয়ে ২৩ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেছেন।

মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ঘটনার নেতৃত্বদানকারি মৃত হাসেন শেখের ছেলে শহিদুল ইসলাম শেখকে।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার দিকে শহিদুল ইসলাম শেখ, আছাদুল কাজী, শহিদুল কাজীসহ ২৫/৩০জনের একটি বাহিনী হরতকীতলা গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে পারভেজ(১৭)কে মারপিট করে।

রাত ৮টার দিকে দলটি কাওছার শেখের বাড়িতে হামলা করে। হামলাকারীরা প্রথমে এক মহিলাকে পাঠিয়ে কাওছারকে রাস্তায় ডেকে নিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। তার ডাক চিৎকারে মোয়াজ্জেম হাওলাদার, কাওছার, হেমায়েত, মধু, নিপু ও মিজানুর রহমান ঘটনাস্থলে ছুটে গেলে তাদেরকে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এরপরে দলটি হেমায়েত হাওলারের বসত ঘরেও হামলা ভাংচুর চালিয়ে স্থান ত্যাগ করে।

খবর পেয়ে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বাচ্চু ও থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। তারা জখমীদেরকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য পাঠায়।

নিশানবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক হাফিজুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম বাচ্চু, কামরুল ইসলাম পলাশ, ইকবাল হোসেন বাদল ও যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম এই নৃশংস হামলার আসামিদের আশু গ্রেফতারসহ দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি জানান।

ট্যাগ: banglanewspaper মোরেলগঞ্জ কুপিয়ে জখম