banglanewspaper

ইন্দুরকানী (পিরোজপুর) প্রতিনিধি: ইন্দুরকানীতে পরকীয়া প্রেমিকের অনৈতিক কাজের আলোচনা করায় তার লোকজনের পরিকল্পিত হামলায় এক ইলেকট্রিক মিস্ত্রি গুরুতর আহত করে। এসময় তার সাথে থাকা মোবাইল ফোন ও টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। ওই লোকজন তার বাড়িতে গিয়েও হামলা চালায় প্রতিপক্ষ মুখোশধারীরা। এসময় উভয় পক্ষের হামলায় ৩ জন আহত। জানা যায়, শনিবার রাতে উপজেলার দক্ষিন ইন্দুরকানী গ্রামের মাঝি বাড়ি এলাকায় পরকীয় প্রেমিক স্বপন হালদারের নিদের্শে একই গ্রামের নিরঞ্জন হালদারের ছেলে সজল হালদার মিন্টু (৩০) ঘোষেরহাট বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে একদল মুখোশধারী প্রতিপক্ষরা হাতুরি ও রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। তার সাথে থাকা নগদ ২৭ হাজার টাকা ও একটি স্যামসাং জে৭ মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। আহতের স্বজনরা খবর পেয়ে অজ্ঞান অবস্থায় মিন্টুকে উদ্ধার করে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে রাতেই ভর্তি করেন। 

পরে একই গ্রামের স্বপন হালদার ও তার পরকীয়া প্রেমিকার স্বামী অগোর ঠাকুর তার ছেলেরা আহত মিন্টুর বাড়িতে হামলা চালায়। আহত মিন্টুর ভাইদের প্রতিরোধের মুখে তারা হাতুড়ি ও রড রেখে পালিয়ে যায়। তখন অগোর ঠাকুর ও তার ছেলে অলোক ঠাকুর আহত হয়। 

এবিষয়ে মিন্টু হালদারের বড় ভাই সুধান হালদার জানান, পরিকল্পিত ভাবে স্বপন হালদার ও অগোর ঠাকুরের ছেলেরা আমার ভাইয়ের উপর হামলা করে গুরতর আহত করে এবং নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনতাই করে নিয়ে যায়। পরে আমাদের বাড়িতেও তারা হামলা করে। 

একই গ্রামের প্রধান র্শিক্ষক গীতিষ চন্দ্র হালদার জানান, অগোর ঠাকুরের স্ত্রীর সাথে স্বপন হালদারের অনৈতিক কাজের জের ধরে স্বপনের ইন্দনে পরিকল্পিত ভাবে মিন্টু ও তার বাড়িতে হামলা চালানো হয়। অভিযুক্ত পরকীয়া প্রেমিক স্বপন হালদারের সাথে মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দিলেও সে কলটি রিসিভ করেনি।

ইন্দুরকানী থানার ওসি মো. নাসির উদ্দিন জানান, অগোর ঠাকুরের স্ত্রীকে নিয়ে অনৈতিক কাজের কথা উঠলে উভয় পক্ষের মধ্যে হামলার ঘটনা ঘটে। লিখিত অভিযোগ পেলেও এখন পর্যন্ত কোন মামলা নেয়া হয়নি। 

উল্লেখ্য, গত শনিবার রাতে পরকীয়া প্রেমিক স্বপন হালদার একই গ্রামের পরকীয়া প্রেমিকা অগোর ঠাকুরের স্ত্রীর সাথে অনৈতিক কাজ করতে গেলে তার পুত্রবধূ দেখে ফেলায় বিষয়টি নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়। এরই সূত্র ধরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। 

ট্যাগ: banglanewspaper পরকীয়া