banglanewspaper

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লির বুরারি এলাকার একটি বাড়িতে গত রোববার ঝুলন্ত ও চোখ-মুখ বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করা একই পরিবারের ১১ জনের চাঞ্চল্যকর মৃত্যুকে নিয়ে রহস্য ঘনিয়ে উঠছে।

‘মানুষের শরীর ক্ষণস্থায়ী। চোখ আর মুখ ঢেকে ভয়কে জয় করা যায়’ সংবাদ সংস্থা পিটিআইর দেওয়া তথ্য অনুসারে বাড়িটিতে এ রকম কথা লেখা চিরকুট খুঁজে পাওয়া গেছে।

তদন্ত কর্মকর্তারা বাড়িটিতে খুঁজে পাওয়া আরো বেশ কিছু চিরকুটের ওপর ভিত্তি করে মনে করছেন, আধ্যাত্মিক ও রহস্যময় কোনো রীতির চর্চায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ঘটানো এটি কোনো গণআত্মহত্যা হতে পারে।

নিহত ১১ জনের মধ্যে ৭৫ বছর বয়সী বৃদ্ধা নারায়াণ দেবী, তাঁর মেয়ে, দুই ছেলে, ছেলেদের স্ত্রী এবং  ৩৩ থেকে ১৫ বছর বয়সী ৫ নাতি-নাতনি ছিল। একমাত্র নারায়ণ দেবী ছাড়া বাকিদের সবাইকে ঘরের ছাদ থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

ডেপুটি পুলিশ কমিশনার অলক কুমার বলেন, ‘হাত ও পা কীভাবে বাঁধতে হবে তেমন নির্দেশনা লেখা বেশ কিছু চিরকুট আমরা খুঁজে পেয়েছি। উদ্ধার করা ১০টি মৃতদেহ সেই নির্দেশনার সাথে মিল রেখেই বাঁধা হয়েছিল।’

পুলিশ আরো জানিয়েছে, চিরকুটগুলো থেকে মনে হচ্ছে, এ রকম কিছু চর্চার ভেতর দিয়ে ‘মোক্ষ’ লাভ করা যায় এমন কিছুকে উৎসাহিত করা হয়েছে। বেশ কয়েকবার ‘মোক্ষ’ শব্দের উল্লেখ আছে।

ট্যাগ: banglanewspaper দিল্লি