banglanewspaper

ইবি প্রতিনিধি: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেছেন, পরিকল্পনা ছাড়া কোন কিছুতেই সফলতা অর্জন সম্ভব নয়। তিনি বলেন, আমাদের সেল্ফ এ্যাসেসমেন্ট কার্যক্রমের শুরুটা ভাল ছিল। সঠিক পরিকল্পনা গ্রহণ করে আমাদেরকে এগুতে হবে, যাতে করে শেষটাও ভাল হয়। ভাইস চ্যান্সেলর বলেন, আমাদের ২২টি বিভাগে সেল্ফ এ্যাসেসমেন্টের কার্যক্রম সফল ভাবে বাস্তবায়িত হয়েছে। আশারাখি এ অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে বিভাগগুলোর আরো উন্নয়ন ঘটবে। তিনি বলেন, বর্তমান বিশ্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ব্যক্তিগত ও পেশাগত জীবনে কোয়ালিটি এ্যাসেসমেন্ট এর সাথে সম্পর্ক ছাড়া কোন বিকল্প নেই। তিনি আরও বলেন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইকিউএসি’র পরিচালক হিসেবে আমার কাজ করার সৌভাগ্য হয়েছে। আমার যতটুকু পেশাগত সাফল্য তার সিংহভাগ দাবিদার আইকিউএসি। তিনি বলেন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর হতে একনেক সভায় আমাদের সবচেয়ে বড় মেগা প্রকল্প অনুমোদন হয়েছে। এসডিজি গোল্ড-৪ ও ভিশন  ২০২০-২০২১ এর আলোকে আমাদের মেগা প্রকল্পটি অনুমোদন পেয়েছে। ভাইস চ্যান্সেলর বলেন, চতুর্থ সমাবর্তন সফলতার সাথে অনুষ্ঠিত হওয়ায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ঘুরে দাঁড়িয়েছে। আমাদের সকল বিভাগে সেমিস্টার সিস্টেম পদ্ধতিতে পাঠদান চলছে। একাডেমিক এবং এমফিল ও পিএইচডি’র উন্নয়ন ঘটেছে। এখানে বিদেশী শিক্ষার্থীরা পড়াশুনা করছে । আমাদের যে অভিযাত্রা শুরু হয়েছে সেল্ফ এ্যাসেসমেন্টের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে আরো এগিয়ে যেতে হবে। গতকাল বুধবার সকালে লাইব্রেরীতে আইকিউএসি’র সেমিনার কক্ষে  দিনব্যাপী  আত্মমুল্যায়ন উন্নয়ন পরিকল্পনা শীর্ষক কর্মশালার উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী এসব কথা বলেন।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, আমরা যদি নিজেকে প্রশ্ন করি আমরা কতটুকু দায়িত্ব পালন করছি তাহলে আমরা আরো এগিয়ে যাব। তিনি বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠালগ্নে যে সকল শিক্ষক নিয়োগে হয়েছে তা ঢাকা, রাজশাহীসহ বিভিন্ন  বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবীরা নিয়োগ পেয়েছেন। সে কারনে আমাদের শিক্ষকদের মান অনেক ভাল। তিনি আরও বলেন, আমাদের হয়তো আর আর্থিক সমস্যা থাকবেনা, তাই আত্মমুল্যায়ন উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করে বিশ্ববিদ্যালয়কে আরও উন্নয়নে দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। আইকিউএসি’র পরিচালক প্রফেসর ড. কে.এম আব্দুস ছোবহানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কর্মশালার মুলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন  বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের কিউএসি’র প্রধান ও নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. সঞ্জয় কুমার অধিকারী, কিউএসি বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ড. মাহবুব আহসান খান ও ড. আহমেদ তাজমিম। দিনব্যাপী এ কর্মশালায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২টি বিভাগের এস.এ.সি কমিটির সদস্য ও আইকিউএসি’র প্রধানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষকগণ অংশগ্রহণ করেন।

ট্যাগ: banglanewspaper কর্মশালা