banglanewspaper

শাফিউল কায়েস,গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের  সঙ্গে এলাকাবাসীর সংঘর্ষ চলছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

বুধবার বিকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মাঠে প্রায় ১৫ জন বহিরাগত ফুটবল খেলা শেষে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীদের ইভটিজিং করেন। উপস্থিত অন্য শিক্ষার্থীরা এর প্রতিবাদ করলে তাদের গায়ে হাত তোলেন বহিরাগতরা। এ খবর শুনে শিক্ষার্থীদের মাঝে চরম ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে এবং ক্যাম্পাসে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

পরে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল ও গোপালগঞ্জ-পিরোজপুর সড়ক অবেরোধ করে রাখেন।

এক পর্যায়ে তারা মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাস সংলগ্ন সোবাহান সড়কের দিকে গেলে এলাকাবাসীর সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে। তখন এলাকাবাসী মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে ক্যাম্পাসে আক্রমণ চালায়। তারা একটি মোটরসাইকেল ও ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থাপনাসহ গাছপালায় আগুন লাগিয়ে দেয়। এ ঘটনায় প্রায় ৫০ জন আহত হন।

রাতে পৌনে ১১টার পর পর্যন্ত এলাকাবাসীর সঙ্গে পুলিশ ও শিক্ষার্থীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলছিল। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুঁড়ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, তারা বেশ কয়েক রাউন্ড গুলির শব্দ শুনেছেন।

কিন্তু গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম রাবার বুলেট নিক্ষেপের কথা অস্বীকার করে বলেছেন, পরিস্থিতি এখন শান্ত।

ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, তারা বেশ কয়েক রাউন্ড গুলির শব্দ শুনেছেন।

কিন্তু গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম রাবার বুলেট নিক্ষেপের কথা অস্বীকার করে বলেছেন, পরিস্থিতি এখন শান্ত। ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ট্যাগ: বঙ্গবন্ধু বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-এলাকাবাসী সংঘর্ষ