banglanewspaper

রাবি প্রতিনিধি: বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে উপাচার্যের দেওয়া বক্তব্য প্রত্যাহার ও সরকারের প্রতি ৫ দফা দাবি জানিয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) প্রগতিশীল ছাত্র জোট।

শনিবার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বিবৃতিতে তারা এ দাবি জানান।

দাবিগুলো হলো-‘সরকার পতন আন্দোলন’- জাতীয় মিথ্যাচার থেকে বেড়িয়ে এসে সরকার শিক্ষার্থীদের কোটা সংস্কারের দাবীকে মানবিক বিবেচনায় দেখবেন, অবিলম্বে বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে কোটা সংস্কার বিষয়ক একটি কমিশন গঠন করে সকল শ্রেণী পেশার মানুষের মতামতের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় রিপোর্ট প্রস্তুত করবেন, বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে হমলাকারী সন্ত্রাসীদের বিচার করবেন, গ্রেফতারকৃত আন্দোলনকারীদের যেন আইনী অধিকার থেকে বঞ্চিত না করা হয় সে বিষয়টি নিশ্চিত করবেন, হামলায় আহতদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে হবে।

বিবৃতিতে তারা বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দেওয়া ভাষণে উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়টিকে একটি সায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান থেকে সরকারি প্রতিষ্ঠান বানিয়ে দেন। তিনি জানিয়ে দেন, যারা সরকারে আছেন কেবল তারাই কথা বলার অধিকার রাখেন। বাদবাকি সকলকে তথাকথিত বিএনপি-জামাত-শিবির বলে সাধারনিকীকরণ করেন। নিপীড়কের পক্ষ নিয়ে উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ধারণাকে অপমান করে দেওয়া তার এমন বক্তব্য অগণতান্ত্রিক এবং সাধারণ শিষ্টাচার বহি:র্ভূত, যা কেবল ফ্যাসিজমকেই উষ্কে দেয়। ছাত্রদের একটি অহিংস এবং সরল আন্দোলনকে সরকারের বিভিন্ন মহল যেভাবে সহিংস এবং জটিল করে তুলছেন, উপাচার্যের বক্তব্যও তার ব্যতিক্রম নয়। তার এমন বক্তব্য সাধারণ শিক্ষাথীদের মর্মাহত করেছে। আমরা লজ্জিত বোধ করছি। আমরা অবিলম্বে এ বক্তব্যের প্রত্যাহার দাবী করছি।,

এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রগতিশীল ছাত্র জোটের সমন্বয়ক ও বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক  সুমন মোড়ল, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি এ.এম শাকিল হোসাইন, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি মনির হোসেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক তারেক কর্নেল প্রমুখ।

ট্যাগ: Banglanewspaper উপাচার্য প্রগতিশীল ছাত্র জোট