banglanewspaper

শরীফ আনোয়ারুল হাসান রবীন, মাগুরা: মাগুরা জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে অবশেষে ভায়না মোড় আইল্যান্ডে দির্ঘদিন যাবত অবস্থান করা শতবর্ষী এক বৃদ্ধা ফিরে পেলো নিজ পরিবার পরিজনসহ নিজের জন্য সরকারের দেয়া ঘর।

মাগুরা ভায়না মোড়ের আইল্যান্ডে রোদ, ঝড়,বৃস্টি উপেক্ষা করেই দির্ঘদিন যাবৎ অবস্থান করেন এক শতবর্ষী বৃদ্ধা। 

রাস্তার ঠিক মাঝখানের আইল্যান্ডের একটু জায়গা জুড়ে পরিপাটি শোবার জায়গা করে গড়ে তুলেছেন নিজের মত করেই। 

মাত্র এক, দুই হাত দূরে দুরপাল্লার বড় বড় গাড়ির চাকা গুলি দ্রুত গতিতে ছুটে চলার মাঝেও দিব্বি ঘুমে বিভর, কখনো নির্বিকার চেয়ে বসে থাকেন তিনি, সাথে সম্বল একটি মাত্র জির্ন থলে তার। ওই পথ ধরে প্রতিনিয়ত চলাচলকারীদের কাছে অতি পরিচিত দৃশ্য এটি। 

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি আলোচনায় এলে মাগুরা জেলা প্রশাসনের পক্ষথেকে তার পুনর্বাসনের জন্য উদ্দ্যোগ নেয়া হয়, সে প্রেক্ষিতেই আজ দুপুরে মাগুরা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু সুফিয়ান তাকে রাস্তায় এ অবস্থা থেকে উদ্ধার করেন, সাথে ছিলেন সমাজসেবা অফিসের কর্মীরাও। 

এ সময় সেখান থেকে তাকে পুনর্বাসনের উদ্দেশ্যে নিজের গাড়িতে করে মাগুরা শিশুপরিবারে নিয়ে যান তিনি। পরে সেখানে তার কাছেই নিজ ছেলে বৌ পরিবার আছে বলে জানতে পেরেন এবং বৃদ্ধা নিজের ঠিকানা বলতে না পারলেও ভিন্ন মাধ্যম থেকে জেনে তাৎক্ষনিক লোকসহ গাড়ি পাঠিয়ে তাদেও হাজির করেন সেখানে। 

এর পর ছেলে রিক্সা চালক আবুল হোসেন, ছেলে বৌ তুলি বেগম কে বৃদ্ধা মায়ের রাস্তায় ফেলে রাখা ও বৃদ্ধ মা বাবা কে না দেখভাল না করার অপরাধে বর্তমান সরকারের শাস্তির বিধান জানিয়ে এর জন্য সৃস্ট পরিস্থিতি নিয়ে ভয় ভিতিসহ গালমোন্দও করেন তিনি।

এ সময় একটি মাত্র ভাড়া খুপড়ি ঘরে বসবাসসহ নানা অভাব অনটনের সংসারে সকলে কর্মব্যাস্ত থাকায় বৃদ্ধার খেয়াল বা কোন পরিচর্জা করা যায়নি বলে নানা অযুহাত দেখান তারাও। 

এক পর্যায় নিজেদের বাড়িঘর না থাকায় সরকারের হত দরিদ্রদের ঘর গড়ে দেয়া প্রকল্পের আওতায় ঘর করে দেয়াসহ নগদ কুড়ি হাজার টাকায় ছেলে আবুলের রিক্সার নতুন ব্যাটারি ও  বৃদ্ধার জন্য বয়স্ক ভাতাসহ সরকারের বিভিন্ন সুবিধা প্রদানে আস্বস্ত করে ওই বৃদ্ধা মায়ের সকল দ্বায়ভার পালনের মুচলেখা নিয়ে তাকে তাদের জিম্মায় তুলে তিনি। 

এ সময় ওই বৃদ্ধার কান্নায় সেখানে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের সৃস্টি হয়। আবেগে কান্নারত ইউ এন ও কে বুকে জড়িয়ে ধরেন তিনি।

এ বিষয়ে মাগুরা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু সুফিয়ান জানান, বর্তমান সরকার সকল প্রকার অসহায় দুস্থদের পাশে থেকে সর্বাত্বক সহযোগীতার চেষ্টা করে চলেছেন। ইতিমধ্যে অসহায় হতদরিদ্র পরিবারগুলি কে বাড়িঘর তৈরি, ভাতা প্রদানসহ নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে, তারই অংশ হিসেবে আজ আমরা এমন পদক্ষেপ নিতে চলেছি। 

মাগুরায় ইতিমধ্যেই আমরা দুস্থ অসহায় মানুষের পাশে থেকে তাদের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ সুষ্ঠ বন্ঠনে সর্বাত্মক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করে চলেছি।এই ভাবে চলতে থাকলে পর্যায়ক্রমে সরকারের দেয়া  বিভিন্ন সুবিধা, সহযোগীতা প্রাপ্তির যোগ্য সকলকেই  আওতায় আনা হবে বলে জানান তিনি।

ট্যাগ: banglanewspaper মাগুরা