banglanewspaper

থাইল্যান্ডের গুহায় আটকা পড়া ১২ জন খুদে ফুটবলারকেই উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। গুহার ভেতর বর্তমানে তাদের ২৫ বছর বয়সী কোচ উদ্ধারের অপেক্ষায় রয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী একজনের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানিয়েছে। খবর গার্ডিয়ানের। গার্ডিয়ানের পক্ষ থেকেও বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

থাই নেভি সিলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বাকি জনকেও উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন উদ্ধারকারীরা। মঙ্গলবার উদ্ধার অভিযানের তৃতীয় দিনে আরো চার কিশোরকে উদ্ধার করা হলো।

এর মাধ্যমে আটকা পড়া ১৩ জনের মধ্যে ১২ জনকে উদ্ধার করা সম্ভব হলো। গুহার মধ্যে ফুটবলারদের কোচ রয়েছেন। জানা গেছে, শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে কাকে আগে বের করে নিয়ে আসা হবে আর কাকে পরে বের করা হবে, তা ঠিক করা হচ্ছে।

গত ২৩ জুন ফুটবল অনুশীলন শেষে ২৫ বছর বয়সী কোচসহ ওই ১২ কিশোর ফুটবলার গুহাটির ভেতরে ঘুরতে গিয়েছিল। কিন্তু বৃষ্টিতে গুহার প্রবেশমুখ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা আর বের হতে পারেনি।

এরপর টানা ৯ দিন নিখোঁজ থাকার পর গত ২ জুলাই গুহার ভেতরে জীবিত অবস্থায় তাদের শনাক্ত করেন ডুবুরিরা। রবিবার (৮ জুলাই ২০১৮) থাইল্যান্ড সরকার তাদের উদ্ধারে দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞদের নিয়ে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় উদ্ধার অভিযান শুরু করে।

অভিযান শুরুর দিনই চারজনকে এবং সোমবার আরো চারজনকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারের পরপরই তাদের হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। সেখানে তারা শঙ্কামুক্ত রয়েছেন বলে আগেই জানানো হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে উদ্ধার অভিযানে নিয়োজিত যৌথ কমান্ড সেন্টারের প্রধান সমন্বয়ক নারোংসাক ওসোতানাক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, অবশিষ্ট পাঁচজনকে একই দিনে বের করে নিয়ে আসা হবে। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, স্থানীয় সময় সকাল ১০টা ৮ মিনিটে ১৯ জন ডুবুরি গুহায় প্রবেশ করেছেন। সোমবার দিবাগত রাতের প্রবল বৃষ্টির পরও গুহার পরিস্থিতির তেমন একটা পরিবর্তন হয়নি।

উদ্ধারকারী অভিযানের প্রধান জানান, সবকিছু পরিকল্পনা মতো যদি হয় তাহলে দিনের শেষে ওয়াইল্ড বোয়ার্স দলের কেউ গুহার ভেতরে থাকবে না। বৃষ্টি দেখে আপনারা চিন্তিত হতে পারেন। ভোর থেকেই তৃতীয় অভিযানের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। প্রথমে ১৯ জন ডুবুরি গুহায় প্রবেশ করেছেন। সারা দিনে আরো অনেকে নিয়মিত প্রবেশ করবেন।

নারোংসাক বলেন, প্রথম দিন লেগেছিল ১১ ঘণ্টা, গতকাল লেগেছে ৯ ঘণ্টা। আজ আরো দ্রুত হবে বলে আশা করছি।

ট্যাগ: banglanewspaper কোচ