banglanewspaper

বিশেষ প্রতিনিধিঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য অনুষদের জনপ্রিয় ডিন শিবলী রুবায়েত-উল-ইসলাম বিগত সাড়ে তিন বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যকলাপের সাথে সরাসরি যুক্ত রয়েছেন। তার আমলে বিশ্ববিদ্যালয়ের এমবিএ ভবনের নতুন কাঠামো প্রদান করা হয়েছে। অতি শীঘ্রই এখানে ২০ তলা বিশিষ্ট একটি আধুনিক ভবনের নকশা অনুমোদন হয়েছে। সূত্রমতে, এখানে বিভিন্ন কর্পোরেট বিভাগের অনুদানে নির্মিত হবে। 

এই অনুষদে নির্মিত হয়েছে বিশ্বের অত্যাধুনিক ই-লাইব্রেরী। বর্তমানে ছাত্র-শিক্ষক এ লাইব্রেরীর অনলাইন জার্নাল, বই, পত্রিকা ও পাণ্ডুলিপি ব্যবহার করে বিভিন্ন এসাইন্মেন্ট ও উন্নত মানের গবেষণা কার্যকলাপের সুযোগ পাচ্ছে। এই ই-লাইব্রেরীতে আরও রয়েছে অত্যাধুনিক ইন্টারনেট ব্রাউজিং ল্যাব। আশ্চর্য হলেও সত্য সম্পূর্ণ ফ্যাকাল্টি ওয়াইফাই আওতাধীন। যার ফলে পার্শ্ববর্তী বিভাগ ও অনুষদের ছাত্র-ছাত্রীরা বিনা খরচে এখানে ইন্টারনেট ব্রাউজিং সুবিধা পাচ্ছে। 


দ্বিতীয়বার নির্বাচিত হওয়ার পর অধ্যাপক শিবলী রুবায়েত অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের একাধিক প্রফেশনাল মাস্টার্স প্রোগ্রাম চালু করেছে। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে মাস্টার্স অফ একাউন্টিং, মাস্টার্স ইন প্রফেশনাল হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট, মাস্টার্স ইন প্রফেশনাল মার্কেটিং, মাস্টার্স ইন প্রফেশনাল ব্যাংকিং প্রোগ্রাম। এসকল প্রোগ্রাম অধ্যায়ন করে কর্পোরেট বিশ্বে কর্মজীবীরা পাচ্ছেন উন্নতমানের প্রশিক্ষণ ও কর্মদক্ষতা। 

এই ফ্যাকাল্টিতে আরও চালু হয়েছে উচ্চমানের গবেষণা প্রসার করার জন্য ডক্টর অব বিজনেস এডমিন্সট্রেটিভ প্রোগ্রাম। সম্প্রতি এই প্রোগ্রামে ভর্তি হয়েছে বাংলাদেশের সরকারী-বেসরকারী উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। 

শিক্ষকদের জন্য বিগত এক বছরে প্রচুর সংখ্যাক বিদেশে মাস্টার্স এবং পিএইচডি লাভের জন্য শিক্ষা বৃত্তির ব্যবস্থা করা করেছেন। সূত্রমতে, প্রায় ৩০ জন শিক্ষককে জাপান, বৃটেন, অস্ট্রেলিয়া ও আমেরিকায় এখন উক্ত সুবিধা ভোগ করছে। এসবের পেছনে রয়েছে অধ্যাপক শিবলী রুবায়েতের অবদান। তিনি বিভিন্ন সময় পাশ্চ্যাতের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সমঝোতা স্বারক চুক্তি সম্পাদন করেছেন। তাঁহার ফেসবুক পেজ থেকে জানা যায় সম্প্রতি বৃটেন ওয়ারউইক বিশ্ববিদ্যালয় ও অস্ট্রেলিয়ার মনাস বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশে এক যুগোপযোগী সেমিনার সম্পাদন করেছে। অধ্যাপক শিবলী রুবায়েতের ফেসবুক পেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন শিক্ষকদের ফেসবুক পেজ থেকে জানা যায়, বর্তমানে থাইল্যান্ডে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মেলন তিনটি পুরষ্কার এই বানিজ্য অনুষদের শিক্ষকরা জিতেছেন। 

 

 

বানিজ্য অনুষদের ফেসবুক পেজ থেকে জানা যায়, ৪০ জন গরীব মেধাবী ছাত্রীদের জন্য একটি প্রাইভেট ব্যাংকের সহায়তায় মেধা বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। মেয়েদের জন্য তৈরী হয়েছে অত্যাধুনিক মানের কমন রুম এবং প্রার্থনা কক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম স্থাপিত হয়েছে ছেলেদের কম রুম ও ফুড কোর্ট। 


বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন উন্নয়ন ও একাডেমিক কার্যকলাপ সম্প্রসারণ হওয়ার পরেও একটি মহল ঈর্ষানিত হয়ে গত কয়েকদিন বিভিন্ন গণমাধ্যমে অধ্যাপক শিবলী রুবায়েতের বিরুদ্ধে একটি ব্যাংকের ঋণ খেলাপি হিসাবে খবর প্রকাশিত করেছে। ধারণা করা যাচ্ছে যে, সামনেই বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন নির্বাচন আসন্ন হওয়াতে পূর্বের ন্যায় এবারও তাঁহার প্রতিপক্ষরা এমন অপবাদ ছড়াচ্ছে।  
 

ট্যাগ:

আইন-আদালত
প্রেগনেন্সি : আদালতে আসনেনি পরীমণি, পেছাল সাক্ষ্য

banglanewspaper

প্রেগনেন্সির কারণে আদালতে হাজির হতে না পারায় পরীমণির মালমায় ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদসহ তিন আসামির সাক্ষ্যগ্রহণ পেছানো হয়েছে।

সোমবার (১ আগস্ট) ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৯-এর বিচারক মোহাম্মদ হেমায়েত উদ্দিন আগামী ২৯ নভেম্বর সাক্ষ্যগ্রহণের পরবর্তী তারিখ ধার্য করেন।

পরীমণির আইনজীবী নীলাঞ্জনা রিফাত (সুরভী) জানান, প্রেগনেন্সির কারণে পরীমণি আদালতে হাজির হতে পারেননি। তাই সাক্ষ্যগ্রহণ পেছানোর আবেদন করলে আদালত ২৯ নভেম্বর পরবর্তী তারিখ ধার্য করেন।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের ১৪ জুন সাভার থানায় ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিনসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন পরীমণি। ওই দিনই নাসির উদ্দিনসহ পাঁচজনকে আটক করে ডিবি পুলিশ। পরে গত ৬ সেপ্টেম্বর নাসির উদ্দিন মাহমুদ, তুহিন সিদ্দিকী অমি এবং শহিদুল আলমকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

এরপর চলতি বছরের ১৮ মে একই আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে বিচার শুরুর আদেশ দেন।

ট্যাগ:

আইন-আদালত
শপথ নিলেন নতুন ১১ অতিরিক্ত বিচারপতি

banglanewspaper

সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে নিয়োগ পাওয়া ১১ জন অতিরিক্ত বিচারপতি শপথ নিয়েছেন।

রোববার (৩১ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৪টায় সুপ্রিম কোর্ট জাজেস লাউঞ্জে প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ১১ জন অতিরিক্ত বিচারপতিকে শপথবাক্য পাঠ করান।

এর আগে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে ১১ জন নতুন অতিরিক্ত বিচারপতি নিয়োগ দেন রাষ্ট্রপতি।

নতুন নিয়োগ পাওয়া অতিরিক্ত বিচারপতিরা হলেন-জেলা ও দায়রা জজ (পি আর এল ভোগরত) মো. শওকত আলী চৌধুরী, কুমিল্লার জেলা ও দায়রা জজ মো. আতাবুল্লাহ, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আমিনুল ইসলাম, সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট মো. আলী রেজা, সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. বজলুর রহমান, ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ, টাঙ্গাইল জেলা ও দায়রা জজ ফাহমিদা কাদের, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. বশির উল্লাহ, সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট এস এম মাসুদ হোসেন দোলন এবং অ্যাডভোকেট এ কে এম রবিউল হাসান।

শপথ অনুষ্ঠানে সুপ্রিম কোর্টের আপিল ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিরা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া উপস্থিত ছিলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মমতাজ উদ্দিন ফকির ও সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুন নূর দুলাল।

ট্যাগ:

আইন-আদালত
বিচারকদের উদ্দেশ্যে যা বললেন আইনমন্ত্রী

banglanewspaper

সরকারের পক্ষ থেকে সব সুবিধা দেওয়া হবে জানিয়ে দ্রুত ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। জনগণকে দ্রুত ন্যায়বিচার দিতে বিচারকদের প্রতি গুরুত্বারোপও করে তিনি বলেন, মামলার বিচার করতে দেরি হলে ন্যায়বিচার শব্দের ‘ন্যায়’ কথাটি আস্তে আস্তে অনেক ঝাপসা হয়ে যায়।

শনিবার (৩০ জুলাই) রাজধানীর ধানমন্ডির জিনজিয়ান রেস্টুরেন্টে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজনে আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ারকে দেওয়া এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন। গোলাম সারওয়ারকে আইন ও বিচার বিভাগে পূর্ণাঙ্গ সচিব হিসেবে পদায়ন উপলক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

আনিসুল হক বলেন, ‘মামলার বিচার করতে দেরি হলে ন্যায়বিচার শব্দের ‘ন্যায়’ কথাটি আস্তে আস্তে অনেক ঝাপসা হয়ে যায়। এই ঝাপসাটা হতে দেবেন না। যখন পরিষ্কার থাকে তখনই যাতে মামলাটা শেষ হয়, সেই কাজটা আপনারা করবেন। সেই সাথে মামলা নিষ্পত্তির হার বাড়াবেন। আমি জনগণের একজন প্রতিনিধি হিসেবে আপনাদের কাছে এটুকু অনুরোধ করছি। আইনজীবীদের সাথে বিচারদের সুসম্পর্ক থাকলে মামলা নিষ্পত্তির হার বাড়বে এবং বিচার বিভাগ শক্তিশালী হবে।’

মন্ত্রী বিচারকদের উদ্দেশে বলেন, বিচার বিভাগের স্বার্থে আপনারা সরকারের কাছে বা রাষ্ট্রের কাছে যেটাই চাবেন, সেটা দিয়ে দেওয়া হবে। বিনিময়ে দ্রুত ন্যায়বিচার চাই্। তিনি বলেন, সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে ও জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করার পর আমরা দেখেছি, কোনো বিচার হয়নি। এসব হত্যার বিচার না হওয়াটা আমাদের মনে ও হৃদয়ে রক্তক্ষরণ করেছে। জনগণের এই রক্তক্ষরণ আপনারা বন্ধ করবেন।

আনিসুল হক আরও বলেন, জনগণের টাকা-পয়সায় দেশ চলে, তাদের পরিশ্রমে, তাদের মাথার ঘাম পায়ে ফেলে কাজ করার কারণে আমরা এই অবস্থানে আছি। তাই তাদের ন্যায়বিচার প্রাপ্তিকে নিশ্চিত করতে হবে।

‘আইন মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগ হলো নির্বাহী বিভাগ ও বিচার বিভাগের সেতুবন্ধন। এই সেতুবন্ধন যাতে আরও দৃঢ় হয়, বিচারকদের যাতে কোনো অসুবিধা না থাকে, সেই লক্ষ্যে আমাদের কাজ করতে হবে’, বলেন আইনমন্ত্রী।

ট্যাগ:

আইন-আদালত
মানবতাবিরোধী অপরাধ : খুলনার ৬ রাজাকারের মৃত্যুদণ্ড

banglanewspaper

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় খুলনার বটিয়াঘাটার ছয় রাজাকারকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান ও বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল এ রায় ঘোষণা করেন। ট্রাইব্যুনালের অপর সদস্যরা হলেন বিচারপতি আবু আহমেদ জমাদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলম।

মামলার আসামিরা হলেন আমজাদ হোসেন হাওলাদার (৭৫), সহর আলী সরদার (৬৫), আতিয়ার রহমান শেখ (৭০), মোতাসিন বিল্লাহ (৮০) ও কামাল উদ্দিন গোলদার (৬৬) ও নজরুল ইসলাম (পলাতক)।

আদালতে আসামিপক্ষে আইনজীবী আব্দুস সাত্তার পালোয়ান এবং রাষ্ট্রপক্ষে প্রসিকিউটর সাবিনা ইয়াসমিন খান মুন্নি শুনানি করেন।

এর আগে গত ২২ মে মামলাটি রায়ের জন্য সিএভি (অপেক্ষমাণ) রাখে ট্রাইব্যুনাল।

চারটি অভিযোগের ভিত্তিতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

অভিযোগগুলো হলো-

১৯৭১ সালের ১০ আগস্ট বটিয়াঘাটার মাছালিয়া গ্রামের শান্তি লতা মণ্ডলের বাড়িতে হামলা চালিয়ে বিনোদ মণ্ডলকে অবৈধভাবে আটক-নির্যাতন, অপহরণ ও গুলি করে হত্যা করে আমজাদ হোসেন হাওলাদারসহ চার-পাঁচজন রাজাকার।

১৯৭১ সালের ১৫ অক্টোবর আসামিরা বটিয়াঘাটার পূর্বহালিয়া গ্রামের চাপরাশী বাড়িতে হামলা চালিয়ে নিরস্ত্র হরিদাস মজুমদারকে আটক, নির্যাতন ও গুলি করে হত্যা করে।

১৯৭১ সালের ২১ অক্টোবর হিন্দু সম্প্রদায়কে নিশ্চিহ্ন করতে বটিয়াঘাটার সুখদাড়া গ্রামে হামলা চালিয়ে নিরীহ নিরস্ত্র হিন্দু সম্প্রদায়ের চারজনকে হত্যা, চার থেকে ছয়টি বাড়ির মালামাল লুট এবং অগ্নিসংযোগ করে আসামিরা।

১৯৭১ সালের ২৯ নভেম্বর বটিয়াঘাটার বারোআড়িয়া গ্রামে হামলা চালিয়ে মুক্তিযোদ্ধা জ্যোতিষ মণ্ডল এবং আব্দুল আজিজকে গুলি করে হত্যা করে এই আসামিরা।

২০১৫ সালের ১৫ নভেম্বর মামলার তদন্ত শুরু হয়। ২০১৭ সালের ৮ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে ১ হাজার ২৭ পাতার প্রতিবেদন ট্রাইব্যুনালে জমা দেয় তদন্ত সংস্থা। প্রতিবেদনে উল্লেখিত চারটি অপরাধেই আমজাদ হোসেন হাওলাদারকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

ট্যাগ:

আইন-আদালত
বিচার বিভাগের সম্মানে দেশের সম্মান বাড়বে : আইনমন্ত্রী

banglanewspaper

বিচার বিভাগের সম্মান বাড়লে, বাংলাদেশেরও সম্মান বাড়বে বলে মনে করেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। নিতি বলেন, বাংলাদেশের বিচার বিভাগকে জনগণ সম্মান দেবে তখন, যখন বিচার বিভাগের অফিসাররা তাদের নিজের সম্মান স্থাপন করবে। এক্ষেত্রে আমি শুধু সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করছি।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) সচিবালয়ে আইন ও বিচার বিভাগ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে একথা বলেন আইনমন্ত্রী।

আনিসুল হক বলেন, অনেক সংগ্রাম ও যুদ্ধ করে আমরা এ বাংলাদেশ পেয়েছি। অনেক মানুষ এই দেশের জন্য জীবন দিয়েছেন, নির্যাতিত হয়েছেন, পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন। আমি নিজেও মুক্তিযুদ্ধের সময় দীর্ঘ নয় মাস মা-বাবা ও ভাইকে ছাড়া ছিলেন। তাই এ দেশকে আমাদের রক্ষা করতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪১ সালে যে উন্নত বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখছেন তা বাস্তবায়ন করার দায়িত্ব আমাদের সবার। আমি বিশ্বাস করি, প্রত্যেক বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা প্রধানমন্ত্রীর এ স্বপ্ন পূরণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবেন।

অনুষ্ঠানে আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ার, যুগ্ম সচিব বিকাশ কুমার সাহা, যুগ্ম সচিব উম্মে কুলসুম, সলিসিটর রুনা নাহিদ, উপসচিব ড. শেখ গোলাম মাহবুব প্রমুখ আইনমন্ত্রীর প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন। এ সময় আইন ও বিচার বিভাগের সর্বস্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ট্যাগ: