banglanewspaper

নূর আলম: বেনারসি শাড়ির ইতিহাস শুরু ষোড়শ শতাব্দীতে মুঘল শাসননামলে,ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় বেনারস শহরে। বাংলাদেশে এ শিল্পের শুরু হয় ১৯৪৭ সালের  ভারত ও পাকিস্তান বিভক্তির পর, বেনারস থেকে আসা কিছু  মুসলমান কারিগর  ঢাকার মোহাম্মদপুর ও মিরপুরে  বেনারসি শাড়ি তৈরী শুরু করেন (বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড উৎস অনুযায়ী)।পরবর্তীতে এ শিল্প আরও ছড়িয়ে পরে ও প্রচুর লোক এর সাথে যুক্ত হয়। মিরপুর ১০ এলাকা জুড়ে গড়ে উঠে  ঐতিহ্যবাহি বেনারসি পল্লী।

মিরপুর বেনারসি পল্লীতে শুরুতে  হাতে গোনা দু তিনটি গদিঘর ছিল। এই গদিঘর হল বেনারসি শাড়ি তৈরীর কারখানা এবং খুচরা ও পাইকারী বিক্রয় কেন্দ্র। এই দু-তিনটি গদিঘর থেকে চাহিদার ভিত্তিতে আরও কিছু গদিঘর প্রতিষ্ঠিত হয়। ঐতিহ্যবাহী এবং পুরনো গদিঘরগুলোর সাথে নতুন কিছু ব্যবসায়ীরা এসে যোগ হলে এলাকাটি একটি পরিপূর্ণ বেনারসি পল্লীতে পরিণত হয়। এরপর থেকেই বেনারশী পল্লীর সুনাম ও শাড়ির চাহিদা বৃদ্ধি পায়। দেশ-বিদেশে রপ্তানী করে বেনারশী পল্লী বেশ ভাল পরিচিতি লাভ করে।
কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে  বন্ধ হয়ে যাচ্ছে এ এলাকার কারখানাগুলো। ভারতীয় শাড়ির অবাধ আমদানি,কাঁচা মালের দাম বৃদ্ধি, দক্ষ কারিগরের অভাব, গার্মেন্টস ও স্কিন প্রিন্ট কারখানার চাহিদা  বৃদ্ধি এর প্রধান কারণ।

বেনারসি শাড়ি সব সময়েই সিল্ক সুতায় বোনা হয়ে আসছে। তবে বুননে জমিন অলংকরণের জন্য রুপা ও সোনার জরি ও মিনা করার জন্য অন্য সুতা বা জরি ব্যবহার করা হয়েছে। মার্সেরাইজড কটন বা গ্যাস সিল্ক সুতা ও সিল্ক সুতা ব্লেন্ড করেও উন্নত মানের বেনারসি বোনা হয়। এ ছাড়া আরো তৈরি হয় কটন বেনারসি, স্বর্ণকাতান ইত্যাদি। বর্তমানে বেনো জলের মতোই ঢুকছে নানা ধরনের কৃত্রিম সুতা। তাই আসল বেনারসি পাওয়া মুশকিল। এখনো এই শাড়ির জমিন নকশা হাতে সুতা ঘুরিয়েই করা হয়ে থাকে।

​ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় কয়েকশো গদিঘর আছে এ বেনারসি পল্লীতে।প্রায় কয়েক হাজার শ্রমিক কর্মরত আছেন এই গদিঘর গুলোতে।

এই শ্রমিকদের কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নেই।ওস্তাদ ধরে বা পারিবারিক ভাবে শিখেছেন এ শিল্প।একটি শাড়ি বুনতে সময় লাগে এক সপ্তাহ থেকে দুই সপ্তাহ,

পান পনেরশ থেকে তিন হাজার টাকা।

মুল কারিগর ছাড়াও অনেক নারী ও শিশু শ্রমিক কাজ করে সংসার চালান  এই গদি ঘর গুলোতে।

 

মিরপুর বেনারসি পল্লীতে রয়েছে কয়েকশো শোরুম।এখানে দেশি বেনারসির বাজার দখল করছে অবৈধ উপায়ে আসা  ভারতীয় নিন্ম ও কম দামের বেনারসি।

গত কয়েক বছরে ​বেনারসি কারখানাগুলো বন্ধ হয়ে চালু হচ্ছে গার্মেন্টস ও স্ক্রীন প্রিন্ট কারখানা।

বেনারসি পল্লীর হাজারও শ্রমিকের সাথে বাংলাদেশর জনগণের দাবি সরকারের আন্তরিক উদ্যোগ ই পারে এই ঐতিহ্যবাহি বেনারসি শিল্পকে এবং এর সাথে যুক্ত  হাজার হাজার শ্রমিক ও তাদের পরিবারকে রক্ষা করতে।

ট্যাগ:

সারাবাংলা
আবারও বুড়িগঙ্গা-তুরাগে উচ্ছেদ অভিযান শুরু

banglanewspaper

বুড়িগঙ্গা ও তুরাগ নদের তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে আজ মঙ্গলবার থেকে আবারও অভিযানে নামছে বিআইডব্লিউটিএ। এটি হবে চলমান অভিযানের দ্বিতীয় পর্ব।

আগামী ২৮ মার্চ পর্যন্ত চারটি পর্যায়ে মোট ১২ দিন এ অভিযান চলবে। তবে রাজধানীর পশ্চিম হাজারীবাগে হাইক্কার খালের কাছে বুড়িগঙ্গা ও তুরাগের সংযোগস্থলে বছিলা এলাকায় অবৈধভাবে নির্মিত আলোচিত ১০ তলা ভবনটি এবারের অভিযানের উচ্ছেদ তালিকার শীর্ষে থাকলেও এ নিয়ে এখন অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

অভিযানের প্রথম দিন আজই ভবনটি ভাঙার কথা ছিল। তবে রাজউকের সাড়া না মেলায় এ বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

বিআইডব্লিউটিএর ঢাকা নদীবন্দরের যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফ উদ্দিন গণমাধ্যমকে বলেন, মালিকপক্ষের দাবি, ভবনটি নদীর সীমানার মধ্যে পড়েনি। বিআইডব্লিউটিএর প্রকৌশলীরাও একই মত দিয়েছেন। তবে ভবনটি রাজউকের অনুমোদন ছাড়া নির্মিত হওয়ায় এটি ভাঙার দায়িত্ব ওই সংস্থার ওপরই বর্তায়। এ কারণেই নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় ও বিআইডব্লিউটিএ থেকে ভবনটি ভেঙে ফেলার বিষয়ে রাজউকের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছিল।

জানা গেছে, প্রথম পর্যায়ে আজ মঙ্গলবার শুরু হয়ে আগামী বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অভিযান চালানো হবে। আজ সকাল ৯টায় বছিলার নিকটবর্তী বুড়িগঙ্গার তীরে হাইক্কার খাল ও তুরাগের তীরে চন্দ্রিমা উদ্যান এলাকা থেকে অভিযান শুরু হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে ১২ থেকে ১৪ মার্চ, তৃতীয় পর্যায়ে ১৯ থেকে ২১ মার্চ এবং চতুর্থ পর্যায়ে ২৫, ২৭ ও ২৮ মার্চ বুড়িগঙ্গা ও তুরাগ তীরের বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও অপসারণ করা হবে। বিআইডব্লিউটিএ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রথম পর্বের তালিকা ধরেই এ অভিযান চালানো হবে।

এর আগে ২৯ জানুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রথম পর্বের উচ্ছেদ অভিযান চলেছে। চার পর্যায়ে মোট ১২ দিন বুড়িগঙ্গা ও তুরাগের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে এ অভিযান চালানো হয়।

ট্যাগ:

সারাবাংলা
অনৈতিক কাজে জড়িত থাকায় ৪ জনকে আটক

banglanewspaper

ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর ধামইরহাটে অনৈতিক কাজে জড়িত থাকায় ৪ জনকে আটক করেছে। ধামইরহাট থানার এস.আই পিযুষ কান্তি জানান, উপজেলার খেলনা ইউনিয়নের রসপুর কোশামারী গ্রামের তাইবুল ইসলামের দুই মেয়ে তার নিজ বাড়ীতে দীর্ঘদিন ধরে অনৈতিক কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে গ্রামবাসীর এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে রওনা দেন।

এমন সময় গত ১৮ জুন দিবাগত রাতে গ্রামবাসীরা তাইবুলের বাড়ীতে অনৈতিক কর্মকান্ডে তার দুই মেয়েসহ উপজেলার ফার্শিপাড়া গ্রামের মো. বেলাল হোসেনের ছেলে শিহাব (২২) ও ছাইফুল ইসলামের ছেলে স্বাধীন (২০) হাতে নাতে আটক করে। পরে ১৯ জুন দুপুর ২ টায় তাদের দন্ডবিধি ২৯০ ধারা মোতাবেক আদালতে প্রেরণ করা হয়।  থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছানোয়ার হোসেন জানান, তাইবুলের ওই মেয়েদ্বয় ইতিপূর্বে এমন অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িত থাকায় জেল হাজত বাস করে।

 

ট্যাগ:

সারাবাংলা
‘পানিবন্দি মানুষের জানমাল রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব’

banglanewspaper

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, বন্যা দুর্গত মৌলভীবাজারসহ বৃহত্তর সিলেটের যে সব জায়গায় পানিবন্দি মানুষ কষ্টে আছে তাদের জানমাল রক্ষা করা আমাদের পবিত্র দায়িত্ব। যত দিন পর্যন্ত বন্যার্তদের দুঃখ-দুর্দশা ও কষ্ট লাঘব হবে না, তত দিন পর্যন্ত এ ত্রাণ দেওয়া অব্যাহত থাকবে। আমাদের ত্রাণের কোনো অভাব নাই। এলাকার মানুষের যে চাহিদা তার চেয়ে বেশি ত্রাণ দিতে সক্ষম হব।

আজ সোমবার দুপুরে মৌলভীবাজার সার্কিট হাউসে প্রশাসনসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে বৈঠক শেষে স্থানীয় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

পরে ত্রাণমন্ত্রী বন্যা দুর্গত এলাকা শহরের বড়হাট ও রাজনগর উপজেলার কদমহাটা এলাকা পরির্দশন করেন এবং দুর্গতদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেন।

ভারতের উত্তর ত্রিপুরায় উল্লেখযোগ্য বৃষ্টিপাত না হওয়ায় মৌলভীবাজারের কুলাউড়া, কমলগঞ্জ ও রাজনগর উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তবে মনু নদীর বারইকোনাতে প্রতিরক্ষা বাঁধের ভাঙন দিয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করায় পৌর এলাকা এবং সদর উপজেলার মোস্তফাপুর ও কনকপুর ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চলে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। শহরের বড়হাট এলাকায় আটকেপড়া মানুষদের উদ্ধারে সেনাবাহিনীসহ স্থানীয় জনগণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

ট্যাগ:

সারাবাংলা
মাগুরায় সড়ক দূর্ঘটনায় বাবা-মেয়ে সহ একই দিনে ৪ জন নিহত হয়েছে

banglanewspaper

শরীফ আনোয়ারুল হাসান রবীন, মাগুরা প্রতিনিধিঃ মাগুরার আজ সোমবার সড়ক দূর্টনায় বাবামেয়েসহ ৪জন নিহত হয়েছে।  নিহতরা হলেন শালিখার হারিশপুর গ্রামের বাবা মমতাজ হোসেন, তার শিশু কণ্যা সুমাইয়া, শ্রীপুরের গোয়ালদাহ গ্রামের শিশির বিশ্বাস ও সদরের বেলনগর গ্রামের সোহরাব হোসেন।

পুলিশ জানায়- আজ সোমবার দুপুরে স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে আড়পাড়া বাজার থেকে ভ্যানযোগে শতখালির দিকে  যাচ্ছিলেন মমতাজ। এ সময় একটি ইজিবাইকের সাথে ধাক্কা খেয়ে রাস্তার উপর তাদের ভ্যানটি উল্টে যায়।

এ সময় সোহাগ পরিবহনের একটি বাস উল্টোদিক থেকে এসে তাদের চাপা দেয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের ৪ জনকে মাগুরা সদর হাসপাতালে আনা হলে সেখানে বাবা ও মেয়ে মারা যান। আহতদের চিকিৎসা চলছে।

অন্যদিকে সকালে শ্রীপুরের গোয়ালদাহ  ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে শিশির অধিকারী ও গত রাতে মোত্রসাইকেলের ধাক্কায় সাইকেল আরোহী বেলনগর এলাকারসোহরাব হোসেন  নামে এক পথচারি নিহত হয়েছেন।

ট্যাগ:

সারাবাংলা
ঈদে নানাবাড়ি বেড়াতে এসে লাশ হলো শিশু

banglanewspaper

ফরহাদ খান, নড়াইল প্রতিনিধিঃ  ঈদে নানাবাড়ি বেড়াতে এসে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার শালনগর ইউনিয়নের রামকান্তপুর গ্রামে মধুমতি নদীতে পড়ে নাহিদ (৮) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (১৮ জুন) বেলা ১১টায় নদী থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

নাহিদ পাশের জয়পুর গ্রামের জাহিদ শেখের ছেলে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, লোহাগড়ার রামকান্তপুর গ্রামে মা কাজলী বেগমের সঙ্গে  নানাবাড়িতে ঈদ করতে আসে নাহিদ। ঈদের পরেরদিন রোববার বিকেলে কাজলী বেগম সহ কয়েকজন বাবার বাড়ির পাশে মধুমতি নদীতে গোসল করতে যান।

এ সময় কাজলী তার ছেলে নাহিদকে নদীর পাড়ে বসিয়ে রেখে গোসল করতে নামেন। এক পর্যায়ে নাহিদ নদীতে নেমে  পড়লে ¯্রােতে টানে ডুবে যায়। স্থানীয় লোকজন তাৎক্ষণিক খোঁজাখুজি করেও তার সন্ধান পাননি।

লোহাগড়া ফায়ার সার্ভিস এবং খুলনার ডুবরি দলের সদস্যরাও নাহিদকে উদ্ধারে ব্যর্থ হন। এদিকে সোমবার সকালে মধুমতি নদীতে নাহিদের মৃতদেহ ভেসে উঠলে স্থানীয় লোকজন তা উদ্ধার করেন। 

ট্যাগ: