banglanewspaper

হলিউডে আবারও ফিরছে ‘সামার ব্লবাস্টার’ এর ধারা। গ্রীষ্মের আগেই ‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা: উইন্টার সোলজার’, ‘ডাইভারজেন্ট’ এবং ‘রিও টু’-এর মতো সিনেমাগুলো ইঙ্গিত দিচ্ছে জমজমাট বক্স অফিস লড়াইয়ের।

গ্রীষ্মের দাবদাহে ঢাকায় প্রাণ ওষ্ঠাগত হলেও হলিউডে সময়টা কিন্তু এখন দারুণ উপভোগ্য। গরমের ছুটিতে এই সময়েই ফুর্তির মেজাজে থাকেন মার্কিন স্কুল-কলেজ পড়ুয়ারা। আর তাই সাইফাই, অ্যাকশন থ্রিলার থেকে শুরু করে সুপারহিরো আর অ্যানিমেশন মুভি-- টিনএজ দর্শকদের টার্গেট করে বানানো বিশাল বাজেটের মসলাদার সিনেমাগুলোর ব্যবসার মওসুম এটাই।

মে থেকে জুলাই-- হলিউডি প্রথা অনুযায়ী এই তিনমাসই ‘সামার ব্লকবাস্টার’-এর সময়। তবে বসন্তের শেষেই ক্যাপ্টেন আমেরিকার আগমন আগেভাগেই বক্স অফিসে এনে দিয়েছে গ্রীষ্মের উষ্ণতা। মার্চের ৭ তারিখে মুক্তি পাওয়ার পর থেকে শুধু যুক্তরাষ্ট্র আর কানাডাতেই ‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা: উইন্টার সোলজার’ আয় করেছে সাড়ে ২২ কোটি ডলার। কাছাকাছি সময়ে মুক্তি পাওয়া অন্য সিনেমাগুলোও পার করেছে ১০ কোটি ডলারের সীমা।

মে মাসের আগেই মুক্তি পেয়ে ভালো ব্যবসা করা সিনেমাগুলোর তালিকায় আছে কেইট উইন্সলেট অভিনীত সাইফাই মুভি ‘ডাইভারজেন্ট’ও। সাড়ে আট কোটি ডলার বাজেটের এই সিনেমা এরইমধ্যে আয় করে নিয়েছে ২৩ কোটিরও বেশি ডলার। আরও ভালো ব্যবসা করেছে অ্যানিমেটেড সিনেমা ‘রিও টু’-এর সিকুয়েলও। সাড়ে ১০ কোটি বাজেটের এই সিনেমার আয় এখন ত্রিশ কোটি ডলারের কাছাকাছি।

২০১৩ সালের মার্চে মুক্তি পেয়েছিল ৪৬টি সিনেমা, যার মধ্যে মাত্র তিনটি ১০ কোটির সীমা ছাড়াতে পেরেছিল। এ বছর এর মধ্যেই বক্স অফিস ৩১০ কোটি ডলার আয় করেছে, যা গত বছরের তুলনায় ৯ দশমিক ৪ শতাংশ বেশি। গত বছরের তুলনায় বক্স অফিস এখন অনেকটাই চাঙা হওয়ায় চলতি বছর নিয়ে এখন আশায় বুক বাঁধছেন অনেকেই।  

গ্রীষ্মের মাঝামাঝিতে তুমুল প্রতিযোগিতা এড়াতেই নাকি এবার আগেভাগে সিনেমা মুক্তি দেওয়ার কৌশল অবলম্বন করেছে ওয়াল্ট ডিজনি।

ওয়াল্ট ডিজনি স্টুডিওর প্রধান অ্যালান হোম বলেন, “জুলাইয়ে সিনেমাটি মুক্তি দিলে আমাদের পেছনে থাকতো বড় বাজেটের এক মুভি, সামনেও থাকত আরেকটি বড় রিলিজের ধাক্কা। এর চাইতে এপ্রিলে কোনো প্রতিযোগিতা ছাড়াই আয় করা ভালো।”

বড় কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় লাগাতার তিন সপ্তাহ ধরে এক নম্বরে ‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা’। তবে মে মাসের প্রথম সপ্তাহেই ‘দ্য অ্যামেইজিং স্পাইডার-ম্যান’-এর সিকুয়েল ভাগ বসাবে ক্যাপ্টেন আমেরিকার রাজত্বে। এরপরপরই বক্স অফিসে গর্জে উঠবে ‘গডজিলা’। পরের সপ্তাহে থাকছে আরেকটি বিগ রিলিজ; ‘এক্স মেন; ডেইজ অফ দ্য ফিউচার পাস্ট’। ওদিকে, জুনের শেষে ‘ট্রান্সফর্মার্স: এইজ অফ এক্সটিঙ্কশন’ তো আসছেই। 

গত বছরেও এই সময়টিতেই মুক্তি পেয়েছিল মেগা বাজেটের ১৮টি মুভি। অতি সন্ন্যাসীতে গাঁজন নষ্ট-- এই প্রবাদকে সত্যি করে সেবার মাঠে মারা পড়েছে ডিজনির ২১ কোটি ৫০ লক্ষ ডলার বাজেটের সিনেমা ‘দ্য লোন রেঞ্জার’ এবং ১৩ কোটি ডলার বাজেটের ‘আরআইপিডি’।

অবশ্য একই ভুল এবার করবেন না হলিউডি মহারথিরা। সিনিয়র বক্স অফিস বিশ্লেষক জেফ বক জানান, এবছর পুরো গরমের মৌসুমে মুক্তি পাবে খুব বেশি হলে ১২টির মতো বড় বাজেটের মুভি।

অপ্রতাশিত কোনো দুঘর্টনা না হলে এবার বেশ কয়েকটি ‘সামার ব্লকবাস্টার’ পেতে যাচ্ছে হলিউড। এই সময়ের মধ্যেই উঠে আসতে পারে এ বছরের সবচেয়ে বেশি আয় করা সিনেমাও।

ট্যাগ: