banglanewspaper

ওপার বাংলাঃ দার্জিলিং-এ প্রকাশ্যে ধূমপান বন্ধ করতে ময়দানে নেমেছে জেলা প্রশাসন। ১৫ অগস্ট স্বাধীনতা দিবস থেকে চালু হল নয়া বিধি। প্রকাশ্যে ধূমপান করতে দেখলেই করা হবে জরিমানা। ইতিমধ্যে নয়া বিধি জারি হয়েছে। শুধু শৈল শহরেই নয়, গোটা দার্জিলিং জেলাতেই লাগু হয়েছে এই বিধি।

দার্জিলিং-এর জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, ‘‘১৫ অগস্ট থেকে বিধি জারি হয়েছে। আইন আছেই। যাতে তার প্রয়োগ হয় তা নিশ্চিত করা হবে। প্রকাশ্যে ধূমপান করলে জরিমানা করবে পুলিশ। জনবহুল জায়গায় ধূমপান আটকাতে জেলা স্বাস্থ্য দফতরও নজরদারি চালাবে।”

পরিসংখ্যান দিয়ে তিনি জানান, শুধু দার্জিলিং জেলাতেই ধূমপায়ীর সংখ্যা ২ লাখ ৮১ হাজার। সিকিমের গ্যাংটক-সহ বহু জায়গাতেই প্রকাশ্য ধূমপানে নিষেধাজ্ঞা আছে। এবার শিলিগুড়ি-সহ পাহাড়ে তা চালু হল। সরকারি দফতরগুলিকেও ‘নো স্মোকিং জোন’ ঘোষণা করে নোটিস জারির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

নাবালকদের তামাকজাত দ্রব্য বিক্রি করা হলে দোকানগুলির বিরুদ্ধেও প্রশাসন অভিযানে নামবে বলে জানিয়েছেন জেলাশাসক। ইতিমধ্যেই পাহাড়ে বিভিন্ন দোকানে অভিযান শুরু হয়েছে। কেউ সিগারেট কিনে প্রকাশ্যে খেলেই পাকড়াও করা হচ্ছে। দিতে হচ্ছে জরিমানা।

তাই, ধূমপায়ীরা পাহাড়ে বেড়াতে গেলে— ‘সাবধান’।

ট্যাগ:

ওপার বাংলা
যৌনকর্মীদের জন্য খাবার নিয়ে গেলেন পরমব্রত

banglanewspaper

লকডাউনে স্থবির হয়ে আছে গোটা ভারত। কোথাও কাজ নেই, নেই আয়। হুমকির মুখে পড়েছে নিম্ন আয়ের ও দিনে এনে দিনে খাওয়া মানুষের জীবন। এরকম পরিস্থিতিতে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন দেশটির বহু তারকা। এই তালিকায় এবার নাম লেখালেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। তিনি সাহায্য নিয়ে ছুটে গেলেন যৌনপল্লীতে, অসহায় যৌনকর্মীদের পরিবারে হাসি ফোটাতে।

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় এক সমিতির সঙ্গে মিলে সোনাগাছি এলাকার যৌনকর্মীদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন পরমব্রত। যারা প্রায় না খেতে পেয়ে মারা যেতে চলেছেন। তাদের হাতে পরমব্রত তুলে দিয়েছেন নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র এবং খাবার। [ads]

কারও হাত দিয়ে নয়, মাস্ক পরে নিজেই মাঠে নেমে পড়েছেন পরমব্রত। নিজের হাতে বিলি করেছেন ত্রাণ। তাই যৌনকর্মীরাও পরমব্রতর সাহায্য পেয়ে ভারী খুশি।

পরমব্রত সাংবাদিকদের বলেন, যৌনকর্মীদের সমাজ নিজেদের প্রয়োজনে ব্যবহার করে। কিন্তু তারা যে সমাজের অংশ সেটা ২০২০ সালে দাঁড়িয়েও মেনে নিতে পারে না। তাদের জমানো বলেও কিছু নেই। রোজ আয় করে রোজ খায়। তাদের আয়ের পথ সম্পূর্ণভাবে বন্ধ এখন। তাই তাদের পাশে নিজের সাধ্যমতো দাঁড়িয়েছি। সরকারের উচিত এদের দায়িত্ব নেয়া।'

ট্যাগ:

ওপার বাংলা
কলকতার হাসপাতালগুলো ঘুরে দেখলেন মমতা

banglanewspaper

করোনা পরিস্থিতিতে সরকারি চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্য প্রশাসনের আধিকারিকদের মনোবল বাড়াতে মঙ্গলবার কলকাতার প্রায় সব ক’টি মেডিক্যাল কলেজ, রাজারহাট কোয়রান্টিন কেন্দ্র এবং আইডি হাসপাতাল ঘুরে দেখেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। [ads]

নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকের শেষে প্রথমে আর জি কর হাসপাতালে যান মুখ্যমন্ত্রী। ইতিমধ্যেই সেখানে করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড খোলা হয়েছে। আগামী দিনে রাত্রি-আবাসে শয্যা বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে।পরিকাঠামোগত কী সমস্যা রয়েছে তা নিয়ে কথা বলেন মমতা।

মমতা জানান, লকডাউনের জেরে হাসপাতালের চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীদের যাতায়াতে অসুবিধার কথা মাথায় রেখে হোটেলে থাকা এবং গাড়ির ব্যবস্থা করা হয়েছে। এরপর মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের দু’টি বাক্স কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জানান, এর সঙ্গে স্বাস্থ্য দফতরের সম্পর্ক নেই। এটা আলাদাভাবে দেওয়া হল। [ads]

সাংবাদিক বৈঠকেও রাজ্যবাসীকে সতর্ক থাকার বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। তিনি বলেন, হাত জোড় করে অনুরোধ করছি, দূরত্ব বজায় রেখে কেনাকাটা করুন। ব্যাঙ্কের লাইনে যারা দাঁড়ান, তাদেরও একই কথা বলব। রাস্তায় ক্রিকেট খেলবেন না দয়া করে। একটা বাড়িতেই চার জনের হয়ে গেল। কতটা ভয়ঙ্কর, বুঝতে পারছেন না। ভিন্য রাজ্য থেকে যারা ফিরেছেন, তাদের বলব, ঘরে থাকুন। ১৪ দিন পরিবারের সঙ্গেও দূরত্ব রেখে চলুন।

ট্যাগ:

ওপার বাংলা
কলকাতা লকডাউনে গ্রেফতার ২৫৫

banglanewspaper

করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে কলকাতাসহ গোটা পশ্চিমবঙ্গ। লকডাউন চলাকালীন সময়ে কলকাতা শহর প্রায় জনশূন্য বলছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম। এসময় নিময় অমান্য করায় অন্তত ২৫৫ জনকে গ্রেফতার করেছে ভারতীয় পুলিশ।

জানা যায়, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে সোমবার বিকাল পাঁচটা থেকে শুক্রবার মধ্যরাত পর্যন্ত লকডাউন চলবে গোটা রাজ্য। আর এমন পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার সকাল থেকেই কলকাতার রাজপথের ছবি হার মানাবে যে কোনও ধর্মঘটকে। [ads]

গণমাধ্যমে জানা যায়, কলকাতার রাজপথে নামেনি সরকারি বা বেসরকারি কোন গণপরিবহণ। শুধু জরুরি গাড়ি এবং তাদের কর্মী ছাড়া আর কোনও যানবাহন শহরে চোখে পড়েনি। বন্ধ ছিল বেশিরভাগ বাজারও। তবে যে সব বাজার খুলেছে সেগুলোতে জনসমাগম ছিল বেশ।

এদিকে, জনশূন্য রাজপথে চলছে পুলিশের কড়া চেকিং। জরুরি সেবা কিংবা অত্যাবশ্যকীয় পণ্য সংক্রান্ত না হলে খতিয়ে দেখা হচ্ছে প্রত্যেকটি গাড়ি। নিতান্ত জরুরি দরকার ছাড়া আইন ভেঙে অযথা পথে নামলেই আটক করছে পুলিশ। শহরের সব গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চলছে পুলিশের টহল।

কলকাতার পুলিশ সুপার অনুজ শর্মা টুইট বার্তায় জানিয়েছেন আইন ভাঙার দায়ে গ্রেফতার করা হয়েছে ২৫৫ জনকে। তিনি করোনার এমন পরিস্থিতিতে জনগণকে ঘরে থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী, আইনশৃঙ্খলা, আদালত, জেল, স্বাস্থ্যসেবায় বিধিনিষেধ থাকবে না। বিদ্যুৎ, পানি, পরিচ্ছন্নতা, অগ্নিনির্বাপণ, অসামরিক প্রতিরক্ষা, টেলিকম, ইন্টারনেট, তথ্যপ্রযুক্তি, ডাকঘর, ব্যাংক-এটিএম, গণবণ্টন ব্যবস্থা চালু থাকবে। সেই সঙ্গে মাছ মাংস, দুধ, ফলের মতো আবশ্যিক খাদ্যদ্রব্যের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে বলা হয়েছে। খাদ্যদ্রব্যের অনলাইন বাজার এবং হোম-ডেলিভারিও নিষেধাজ্ঞার বাইরে। পেট্রোল পাম্প, গ্যাস, তেল, ওষুধ পরিষেবা স্বাভাবিক থাকবে। যে দ্রব্যগুলির উৎপাদন বন্ধ করা যাবে না, সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকের অনুমোদন সাপেক্ষে সেই কাজ চালানো যাবে। জরুরি সেবা সম্পর্কে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন জেলাশাসক অথবা পুর কমিশনার। সংবাদমাধ্যমগুলোও লকডাউনের বাইরে।

ট্যাগ:

ওপার বাংলা
পেঁয়াজ রফতানির নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল ভারত

banglanewspaper

প্রায় ছয় মাস পর পেঁয়াজ রফতানির নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল ভারত। বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) দেশটির খাদ্যমন্ত্রী রাম বিলাস পাসওয়ান এক টুইট বার্তায় এ ঘোষণা দেন।

টুইটে তিনি বলেন, যেহেতু পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল রয়েছে এবং এ বছর প্রচুর উৎপাদিত রয়েছে, তাই সরকার পেঁয়াজ রফতানির নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মার্চ মাসের প্রত্যাশিত উৎপাদন আশা করা হচ্ছে ৪০ লাখ মেট্রিক টন। যা গত বছর একই সময় ছিল ২৮.৪ লাখ মেট্রিক টন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়,  দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের নেতৃত্বে মন্ত্রীদের একটি গ্রুপের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বৈঠকে খাদ্যমন্ত্রী ছাড়াও দেশটির কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার, বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল এবং মন্ত্রিপরিষদ সচিব রাজীব গৌবা উপস্থিত ছিলেন।

বৈদেশিক বাণিজ্য অধিদফতর (ডিজিএফটি) থেকে এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারির পর এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। পেঁয়াজের ন্যূনতম রফতানি মূল্য নির্ধারণ নিয়েও মন্ত্রীদের বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। আগামী এপ্রিলে দেশটিতে ৮৬ লাখ টন পেঁয়াজের উৎপাদন করা হচ্ছে। গত বছরের একই সময়ে যা ছিল ৬১ লাখ টন।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে বন্যায় ভারতের বিভিন্ন অংশ প্লাবিত হওয়ায় পেঁয়াজ উৎপাদনে ঘাটতি দেখা দেয়। সে সময় পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ ঘোষণা করে দেশটি। ভারতের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ ঘোষণার পর বাংলাদেশেও এর প্রভাব পড়ে। প্রতিবেশী দেশটি থেকে বাংলাদেশও বিপুল পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানি করে থাকে। এর প্রভাবে দফায় দফায় বাড়ে থাকে পেঁয়াজের দাম।

এক পর্যায়ে বাংলাদেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ দ্রব্যটির দাম আকাশছোঁয়া হয়ে যায়। দাম ওঠে ৩০০ টাকা পর্যন্ত। পেঁয়াজের বাজার সামাল দিতে বাধ্য বাংলাদেশকে ভারতের বাইরেও চীন, মিসর, তুরস্ক ও পাকিস্তান থেকে পেঁয়াজ আমদানি করতে হয়।

ট্যাগ:

ওপার বাংলা
টেনে হিঁচড়ে স্কুল শিক্ষিকাকে মারধর

banglanewspaper

হাঁটুতে দড়ি দিয়ে বেঁধে, টেনে হিঁচড়ে এক স্কুল শিক্ষিকাকে মারধর করছে একদল দুষ্কৃতি।ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় ঘটেছে এই ঘটনা।

ওই শিক্ষিকার বোন প্রতিবাদ করলে তাকেও হেনস্থা করা হয়। এই ঘটনার এক ভয়াবহ ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে।

দেশটির সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জোর করে জমি অধিগ্রহণের প্রতিবাদ করায় সেখানকার পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত নেতা অমল সরকারের নেতৃত্বে একদল দুষ্কৃতী ওই শিক্ষিকাকে এভাবে হেনস্থা করেছে।

জানা যায়, ঘটনার নেপথ্যে রয়েছে রাস্তা তৈরির জন্য জমি অধিগ্রহণ। সেখানকার তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েত কর্তৃক রাস্তা নির্মাণের জন্য জোর করে তাদের জমি দখলের প্রতিবাদ করেছিলেন ওই শিক্ষিকা।

এই ঘটনার জেরে রবিবার তৃণমূলের জেলা প্রধান অর্পিতা ঘোষ পঞ্চায়েত নেতা অমল সরকারকে বরখাস্তের নির্দেশ দিয়েছেন। তবে রবিবার গভীর রাত পর্যন্ত এই মামলায় কেউই গ্রেফতার হয়নি।

ইতিমধ্যে ওই ঘটনার ভিডিও দেশটির সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, মেরুন রঙের পোশাক পরা স্মৃতিকণা দাস নামের ওই শিক্ষিকাকে মাটিতে ফেলে দেওয়া হয় এবং একজন লোক তার হাঁটু দড়ি বেঁধে রাখে। বাকি একদল লোক তাকে হাত ধরে টানতে টানতে মাটিতে ফেলে দেয়।

ট্যাগ: