banglanewspaper

স্পোর্টস ডেস্ক: তাসকিনের জন্যই ১৩ সদস্যের দল ঘোষণা করেছিলো বিসিবি। যেন রাতের মধ্যেই স্বস্তির রিপোর্ট আসলেই দলে ঢুকে যাবেন তাসকিন। সেই আসার গুড়ে বালি পড়েযায় রাতেই। বার্তা আসে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার জন্য।

হঠাৎ করেই সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটলো। অবশেষে এল প্রত্যাশার সেই বার্তা। বোলিং অ্যাকশনের শুদ্ধতার সনদ পেয়েছেন তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানি।

শুক্রবার বিকেলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আইসিসি জানায়, ব্রিজবেনের পরীক্ষায় বৈধ প্রমাণিত হয়েছে বাংলাদেশের দুই বোলারের বোলিং অ্যাকশন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলিংয়ের অনুমতি মেলায় আফগানিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে প্রথম দুই ম্যাচের দলে জায়গা পাচ্ছেন তাসকিন। বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে দল ঘোষণার সময়ই প্রধান নিবাচক মিনহাজুল আবেদীন বলেছিলেন, তাসকিনের ইতিবাচক ফল আসবে ধরে নিয়েই একটি জায়গা ফাঁকা রেখে ১৩ জনের স্কোয়াড দেওয়া হয়েছে।

সানিকে অবশ্য রাখা হয়নি চূড়ান্ত দলের আগে ঘোষিত ২০ জনের ওয়ানডে পুলে। নতুন অ্যাকশনে এই বাঁহাতি স্পিনারকে আরও অভ্যস্থ হওয়ার সময় দিতে চান নির্বাচকেরা, আরেকটু পরখ করে নিতে চান ঘরোয়া ক্রিকেটে।

গত ৯ মার্চ ধর্মশালায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচে প্রশ্নবিদ্ধ হয় তাসকিন ও সানির বোলিং অ্যাকশন। পরে চেন্নাইয়ে অ্যাকশনের পরীক্ষা দেন দুজন। ১৯ মার্চ অবৈধ অ্যাকশনের দায়ে দুজনকেই বোলিংয়ে নিষিদ্ধ করে আইসিসি।

২১ মার্চ তাসকিনের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে আপিল করে বিসিবি। দুদিন পর জুডিশিয়াল কমিশনার বহাল রাখেন নিষেধাজ্ঞা।

এরপর দেশে ফিরে অ্যাকশন শোধরাতে কাজ করেন দুজন। পাশাপাশি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আবাহনীর হয়ে খেলেন তাসকিন। সানি আরেকটু নিবিড়ভাবে কাজ করার জন্য লিগের শুরুর বেশ কটা দিন খেলেননি, শুরু করেন মাঝামাঝি সময় থেকে। লিগ শেষেও দুজন চালিয়ে যান শোধরানোর কাজ।

এরপর বিসিবি ‘টুডি’ প্রযুক্তিতে নিজেরাই পরীক্ষা করে দেখে দুই বোলারের অ্যাকশন। তাতে বিসিবির বিশেষজ্ঞরা সন্তুষ্ট হওয়ার পর দুজনকে পাঠানো হয় আবার অ্যাকশনের পরীক্ষার জন্য। গত ৮ সেপ্টেম্বর ব্রিজবেনে অ্যাকশনের পরীক্ষা দেন দুজন। সেটির ফলাফল এল দেশের ক্রিকেটের জন্য বড় স্বস্তি হয়ে।

ট্যাগ: