banglanewspaper

অমিত হাসান রবিন: সদ্য শেষ হওয়া মার্কিন নির্বাচনকে ঘিরে এখন উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র। ইলেক্ট্রোরাল ভোটে প্রেসিডেন্ট নির্বাচীত হয়েছেন ডোনাল ট্রাম্প। সেটা যেন কোন ভাবেই মানতে পারছে না বেশিরভাগ যুক্তরাষ্ট্রবাসী।

দেশটির নির্বাচনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে জনগণের ভোটেই নির্বাচিত হয়েছেন ট্রাম্প। কিন্তু জনগণের আরেকটি অংশ কোনভাবেই ট্রাম্পকে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হিসেবে চান না।

গত কয়েকদিন ধরে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে চলছে ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভ। ফলাফল ঘোষণার পর থেকেই রাস্তায় নেমে এসেছে তারা। ‘ট্রাম্প আমার প্রেসিডেন্ট নন’এমন স্লোগান দিচ্ছে বিক্ষোভকারীরা। অনেক স্থানে বিক্ষোভ রূপ নিয়েছে সংঘর্ষেও।

ট্রাম্প বিরোধী শিবিররা নির্বাচনের ফলাফল পাল্টানোর কোন সুযোগ আছে কিনা সেটাই খতিয়ে দেখছে । আর আমেরিকার আইন অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট নির্বাচন প্রক্রিয়ার মধ্যেই অবশ্য এমন একটি সুযোগ আছে।

 

এদের নাগরিকরা কার্যত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পরোক্ষভাবে ভোট দিয়ে থাকেন। তারা ভোট দিয়ে ইলেক্টোরাল কলেজ নির্বাচন করেন। এ প্রতিনিধিরাই প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করেন। প্রত্যেকটি অঙ্গরাজ্যে জনসংখ্যা ও আয়তনের ভিত্তিতে নির্দিষ্ট সংখ্যক ইলেক্টোরাল প্রতিনিধি নির্বাচন করেন নাগরিকেরা। আগামী ১৯ ডিসেম্বর তারা পরবর্তী প্রেসিডেন্ট কে হবেন সে সিদ্ধান্ত নিতে একত্রিত হবেন।

তাছাড়া ডিস্ট্রিক্ট অব কলাম্বিয়াসহ ৫০ অঙ্গরাজ্য মিলিয়ে মোট ইলেক্টোরাল কলেজ সংখ্যা ৫১৮। এর মধ্যে জয়ের জন্য দরকার ২৭০টির সমর্থন। সেখানে ২৯০টি পেয়ে বিজয়ী হয়েছে ট্রাম্প, হিলারি পেয়েছেন ২২৮।

তবে পপুলার ভোটে এগিয়ে আছেন হিলারি। তিনি পেয়েছেন ৬ কোটি ২৭ লাখ ৪ হাজার ৯৭৪ এবং ট্রাম্প পেয়েছেন ৫ কোটি ৯৯ লাখ ৩৭ হাজার ৩৩৮টি ভোট। ভোট কম পেলেও ফ্লোরিডার মতো অঙ্গরাজ্যে ইলেক্টোরাল ভোট বেশি পাওয়ার কারণেই জিতে গেছেন ট্রাম্প।

তাই ১৯ ডিসেম্বরের দিকে চোখ সবার।এই দিন ইলেক্টররা ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে হিলারিকে সমর্থন দিলেই ঘটবে অন্য কিছু ।

তারা বলছেন, ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রকে নেতৃত্ব দেয়ার উপযুক্ত নন। অধিকাংশ আমেরিকান জনগণ ট্রাম্পের অন্যের ঘাড়ে দোষ চাপানো স্বভাব, আবেগপ্রবণতা, রগচটা, মিথ্যা বলা স্বভাব, নারী কেলেংকারী ও রাজনীতিতে অনভিজ্ঞতার কারণে তাকে দেশটির জন্য বিপদজনক মনে করছেন।

গত ৮ নভেম্বর নির্বাচনে মোট ভোট সংগৃহিত হয়েছে ১৩০ মিলিয়ন। যার ৬০.৪ মিলিয়ন ভোট পেয়েছে হিলারি ক্লিনটন এবং ৬০ শতাংশ ভোট পেয়েছে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী ডোনাল ট্রাম্প। সুতরাং যদি সরাসরি জনগণের ভোটের উপর নির্বাচিত করা হতো তাহলে নির্বাচিত হতেন সাবেক ফার্ট লেডি এবং দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন।

মার্কিন নির্বাচন পদ্ধতি নিয়ে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, মার্কিন ব্যবস্থায় প্রতিটি রাষ্ট্র ও তার কংগ্রেসসম্পর্কিত বিষয় মূলত ভোটারদের উপরই নির্ভর করে।উল্লেখ করে বলা হয় যেমন ক্যালিফোর্নিয়া মত একটি বড় রাজ্যেই রয়েছে ৫৫টি ইলেক্ট্রোরাল ভোট এবং নিউ হ্যাম্পশায়ারে রয়েছে মাত্র ৪টি ভোট।

প্রতিবেদনটিতে কথা ওঠে, ভোট গণনার পদ্ধতি নিয়েও। উল্লেখ করা হয় বড় বড় রাজ্য গুলো যে ভোট গণনা করা হয়েছে সেখানে ভোটের সংখ্যা আরও বেশি বলে মনে করা হয়।

 “কলেজ সিস্টেমে প্রতিটি ভোট অবশ্যই সমান ভাবে গণনা করা হয় না উল্লেখ করে ম্যাক এ্যাডাম বলেন, কমপক্ষে অর্ধ ডজন রাজ্যে পরিষ্কার ভাবে ভোট গণনা করলে ভোট আরও বাড়বে”।

নির্বাচন পদ্ধতি নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠলেও বর্তমানে সব কিছুর সামনে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে ট্রাম্প বিরোধী আন্দলোন এবং ১৯ ডিসেম্বরের ভোট। যদিও যুক্তরাষ্ট্রে ইতিহাসে মুল আনুষ্ঠানিক ভোটের পরে এই ভোট ছিলো শুধু মাত্র সৌজন্য মুলক। কিন্তু এবার এই ভোটই হয়ে দাড়িয়েছে নির্বাচন পরবর্তি মূল কেন্দ্রবিন্দু। 

 

 

ট্যাগ:

আন্তর্জাতিক
৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত জাপানি মায়ের কাছে থাকবে দুই শিশু

banglanewspaper

আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত জাপানি মা নাকানো এরিকোর কাছেই থাকবে তার দুই শিশু জেসমিন মালিকা ও লাইলা লিনা। তবে এসময়ে মধ্যে প্রতিদিন শিশুদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন তাদের বাংলাদেশি বাবা ইমরান শরীফ।

আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. নুরুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন ৫ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ রবিবার এই আদেশ দেন।

আদেশে বলা হয়, জাপানি মা ও তার দুই শিশু ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রাজধানীর বারিধারার হোটেল ইসকর্ট প্যালেসে থাকবে। তবে প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টার মধ্যে যেকোনো সময় শিশুদের সঙ্গে তাদের বাংলাদেশি বাবা ইমরান শরীফ দেখা করতে পারবেন।

জাপানি মায়ের পক্ষে আদালতে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি, অ্যাডভোকেট আহসানুল করিম।

অন্যদিকে আদালতে বাংলাদেশি বাবা ইমরান শরীফের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ফিদা এম কামাল, অ্যাডভোকেট ফাওজিয়া করিম। তাকে সহযোগিতা করেন ব্যারিস্টার মারুফুল ইসলাম।

আপিল বিভাগ শুনানিতে বলেন, প্রধান বিচারপতি অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন। প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে আমরা এই মামলা শুনব। পরে আদালত শুনানির জন্য ৬ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন। আদালত বলেন, ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আগের আদেশ বহাল থাকবে।

গত ৩ জানুয়ারি আপিল বিভাগ এক আদেশে বলেন, জাপানি দুই শিশু জেসমিন মালিকা ও লাইলা লিনা তাদের মা নাকানো এরিকোর সঙ্গে আগামী ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত রাজধানীর বারিধারার হোটেল ইসকর্ট প্যালেসে থাকবে। তবে প্রতিদিন সকাল ৯ থেকে রাত ৯টার মধ্যে যেকোনো সময় শিশুদের সঙ্গে তাদের বাংলাদেশি বাবা ইমরান শরীফ দেখা করতে পারবেন।

প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ এ আদেশ দেন।

ট্যাগ:

আন্তর্জাতিক
পুতিনের প্রশংসা করে পদ হারালেন জার্মান নৌ প্রধান

banglanewspaper

ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার সঙ্গে পশ্চিমাদের দ্বন্দ্ব যখন চরমে, তখন প্রেসিডেন্ট পুতিনের প্রশংসা করলেন জার্মান নৌ বাহিনী প্রধান কে-আচিম শোয়েনবাখ। এই প্রশংসাই তার জীবনে কাল হয়ে দাঁড়ালো। পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন তিনি।

ইউক্রেন সীমান্তে প্রায় এক লাখ সেনা মোতায়েন করে রেখেছে প্রতিবেশী দেশ রাশিয়া। যেকোনো মুহূর্তে রুশ সেনারা দেশটিতে আক্রমণ করতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে আমেরিকা। এই পরিস্থিতিতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে প্রশংসা করে পদত্যাগ করেছেন জার্মানির নৌবাহিনীর প্রধান কে-আচিম শোয়েনবাখ।

জার্মানির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্রের বরাত দিয়ে ২৩ জানুয়ারি এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএফপি। গত শুক্রবার ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে থিংকট্যাংকের সঙ্গে এক বৈঠকে শোয়েনবাখ ওই মন্তব্য করেছিলেন।

জার্মানির নৌবাহিনীর সদ্য পদত্যাগকৃত প্রধান কে-আচিম শোয়েনবাখ রুশ প্রেসিডেন্টকে নিয়ে বলেছিলেন, রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা করতে চায়; এটি ‘বাজে কথা’। তিনি আরও বলেছিলেন যে, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন (সবার) সম্মান পাওয়ার যোগ্য।

জার্মানির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র এএফপি’কে জানিয়েছেন, ভাইস-অ্যাডমিরাল কে-আচিম শোয়েনবাখ অবিলম্বে পদত্যাগ করবেন।

মূলত নয়াদিল্লির ওই বৈঠকে শোয়েনবাখের বিতর্কিত মন্তব্যের একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পরই শোরগোল পড়ে যায়। ওই ভিডিওতে জার্মান নৌপ্রধানকে বলতে শোনা যায়, ‘প্রেসিডেন্ট পুতিন কেবল অন্যদের কাছ থেকে সম্মান পেতে চান। তার চাওয়া অনুযায়ী তাকে সম্মান দেওয়াটা সহজ এবং এবং সম্ভবত তিনি সেটি পাওয়ার যোগ্যও।’

তিনি আরও বলেছিলেন, ২০১৪ সালে ইউক্রেনের কাছ থেকে রুশ দখলদারিত্বে চলে যাওয়া ক্রিমিয়া উপদ্বীপ (চূড়ান্তভাবে) রাশিয়ার হাতে চলে গেছে এবং আর কখনোই সেটি ইউক্রেনের কাছে ফিরবে না।

শনিবার অবশ্য নিজের ওই বিতর্কিত মন্তব্য ব্যাখ্যা করেন কে-আচিম শোয়েনবাখ। তার দাবি, তার বক্তব্য জার্মান সরকারের নীতির প্রতিনিধিত্ব করে না এবং এটি বিবেচনাশূন্য। টুইটারে তিনি জানিয়েছিলেন, ‘সমালোচনা বা তিরস্কারের কোনো প্রয়োজন নেই এবং এটি স্পষ্টতই একটি ভুল ছিল।’

পরে শনিবার দিনের শেষভাগে দেওয়া এক বিবৃতিতে তিনি জানান, জার্মানির কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে তিনি পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন। ‘জার্মানির নৌবাহিনীকে আরও ক্ষতি’ হওয়া এড়াতেই পদত্যাগ করেছেন তিনি।

উল্লেখ্য, ইউক্রেন সীমান্তে দীর্ঘদিন ধরেই প্রায় এক লাখ সেনাসদস্য মোতায়েন করে রেখেছে প্রতিবেশী দেশ রাশিয়া। যেকোনো মুহূর্তে রুশ সেনারা দেশটিতে আক্রমণ করতে পারে বলেও আশঙ্কা রয়েছে। যদিও ইউক্রেনে হামলার কোনো পরিকল্পনা নেই বলে বরাবরই দাবি করে আসছে মস্কো।

ট্যাগ:

আন্তর্জাতিক
‘আমেরিকাই বিশ্বের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি’

banglanewspaper

আমেরিকার হাতে রয়েছে সবচেয়ে বেশি পরমাণু অস্ত্র এবং তারাই হচ্ছে বিশ্ব শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি বলে অভিযোগ করেছে চীন। এ অবস্থায় পরমাণু অস্ত্রের ভান্ডার ধ্বংস করার জন্য আমেরিকারই প্রথমে পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানিয়েছে দেশটি।

বৃহস্পতিবার এক যৌথ বিবৃতিতে আমেরিকা ও জাপান ‘চীনের ক্রমবর্ধমান পরমাণু সক্ষমতার জন্য’ উদ্বেগ প্রকাশ করে এবং স্বচ্ছতার সঙ্গে পরমাণু অস্ত্র কমানোর ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে বেইজিংয়ের প্রতি আহ্বান জানায়। এর জবাবে গতকাল (শুক্রবার) চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান এসব কথা বলেন।

তিনি সুস্পষ্ট করে বলেন, আমেরিকার হাতে রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পরমাণু অস্ত্র এবং তারাই আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি। তিনি আরো বলেন, আমেরিকা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তাদের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করেছে। এছাড়া, তাদের হাতে সর্বাধুনিক এবং সবচেয়ে বেশি পরমাণু অস্ত্র থাকার পরেও তারা পরমাণু অস্ত্রের আধুনিকায়নের জন্য ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করছে।

চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র পরিষ্কার করে বলেন, বেইজিংয়ের সমালোচনা করার আগে আমেরিকার উচিত তার নিজের দিকে তাকানো এবং পরমাণু অস্ত্র ধ্বংস করে অন্য দেশগুলোর জন্য উদাহরণ সৃষ্টি করা উচিত।

ট্যাগ:

আন্তর্জাতিক
করোনার উর্ধ্বগতি, নিজের বিয়েও বাতিল করলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

banglanewspaper

করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের সংক্রমণে নিউজিল্যান্ড কাবু! ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে দেশটিতে চলছে বিধিনিষেধ। এই বিধিনিষেধ মানতে গিয়ে বাধ্য হয়েই দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন নিজের বিয়েও বাতিল করেছেন। স্থানীয় সময় আজ রবিবার জেসিন্ডা এ ঘোষণা দিয়েছেন।

নতুন বিধিনিষেধে দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন—এমন ১০০ জনকে কোনো অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার অনুমতি দিয়েছে নিউজিল্যান্ড সরকার। বিধিনিষেধ সম্পর্ক বিস্তারিত জানিয়ে জেসিন্ডা বলেন, ‘আমার বিয়েও হবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘মহামারির ঠেকাতে বিধিনিষেধের কারণে এ ধরনের অভিজ্ঞতা এর আগে যাদের হয়েছে, আমিও তাদের দলে যোগ দিলাম। আমি খুবই দুঃখিত।’

বিয়ের পরিকল্পনা ভেস্তে যাওয়ায় কেমন অনুভূতি হচ্ছে জানতে চাইলে জাসিন্ডা বলেন, জীবনটা এমনই।

জাসিন্ডা আরডার্ন তার দীর্ঘদিনের সঙ্গী ও তার সন্তানের বাবা ক্লার্ক গেফোর্ডের সঙ্গে বিয়ের পরিকল্পনা করেছিলেন। তবে করোনা সেই পরিকল্পনা ভেস্তে দিল।

মহামারির শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডে ১৫ হাজার ১০৪ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৫২ জনের। গত দুই বছরের বেশিরভাগ সময় দেশটিতে সীমান্তে কঠোর বিধিনিষেধ ও লকডাউন চলেছে।

ট্যাগ:

আন্তর্জাতিক
বিশ্বে আরও সাড়ে ৬ হাজার মৃত্যু, সংক্রমণ ৩৫ কোটির কাছে

banglanewspaper

এক দিনের ব্যবধানে বিশ্বে মহামারি করোনাভাইরাসে মৃত্যু ও শনাক্তের সংখ্যা কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৬ হাজারের বেশি মানুষ। একই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে প্রায় ২৮ লাখে। এতে বিশ্বব্যাপী করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছেছে প্রায় ৩৫ কোটিতে। অন্যদিকে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫৬ লাখ ৯ হাজার।

রবিবার সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে সর্বশেষ এ তথ্য পাওয়া যায়।

ওয়ার্ল্ডওমিটারস জানাচ্ছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৬ হাজার ৩৫৬ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে আড়াই হাজার। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৫৬ লাখ ৯ হাজার ৬৮৪ জনে।

একই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৭ লাখ ৯৫ হাজার ৮৯৩ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা কমেছে সাড়ে ৭ লাখের বেশি। এতে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৪ কোটি ৯৭ লাখ ৭ হাজার ৫৬১ জনে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে ফ্রান্সে। অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রাণহানির তালিকায় এরপরই রয়েছে রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, ইতালি, মেক্সিকো, ব্রাজিল ও পোল্যান্ড।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যার তালিকায় দেশটির অবস্থান তৃতীয়। মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ৩ কোটি ৯২ লাখ ১২ হাজার জন এবং মারা গেছেন ৪ লাখ ৮৯ হাজার ৪২২ জন।

এছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় তুরস্কে ১৮৪ জন, দক্ষিণ আফ্রিকায় ১১৪ জন, পোল্যান্ডে ১৯৩ জন, কানাডায় ১৩৩ জন, আর্জেন্টিনায় ১৩৪ জন এবং ভিয়েতনামে ১৫৩ মারা গেছেন। অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় মেক্সিকোতে মারা গেছেন ৩৩১ জন। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত উত্তর আমেরিকার এই দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ২ হাজার ৭২১ জনের।

ট্যাগ: