banglanewspaper

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার সাতছড়ির গহীন অরণ্য থেকে আরো আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করেছে র‌্যাব। 

সোমবার সকাল থেকে শুরু হওয়া এ অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব-৯ এর শ্রীমঙ্গল ক্যাম্পের অধিনায়ক সানা শামীনুর রহমান।  

তিনি বলেন, সকালে সংরক্ষিত বনাঞ্চলের পাহাড়ি একটি টিলার গর্ত থেকে একটি মেশিনগানের ব্যারেল ও ৫৬টি কামান বিধ্বংসী গুলি ও ৬৩৩টি এসএমজির গুলি উদ্ধার হয়েছে।

সর্ব প্রথম গত ৩ জুন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাতছড়ির ত্রিপুরা পল্লী ও আশপাশের বিভিন্ন টিলায় অভিযান চালায় র‌্যাব।

টিলাগুলোতে মোট সাতটি বাঙ্কারের সন্ধান পাওয়া যায়। এগুলো থেকে ১টি রকেট লঞ্চারসহ ১৮৪টি উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন কামান বিধ্বংসী গোলা উদ্ধার হয়। এই গোলা ছোড়ার কাজে ব্যবহৃত ১৫৪টি চার্জও পাওয়া যায়। এছাড়া মেশিনগানের ১৯ ড্রাম চেইন, ১৯টি ম্যাগজিন, অস্ত্র সচল রাখার জন্য বিপুল পরিমাণ তেল উদ্ধার হয় এদিন।

প্রথম দিনের অভিযান শেষে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল জিয়াউল আহসান বলেছিলেন, আরো গোলাবারুদ সেখানে রয়েছে বলে তাদের ধারণা।

দ্বিতীয় দিনে চারটি মেশিনগান, একটি রকেট লঞ্চার, মেশিনগানের পাঁচটি ব্যারেল, একটি রাইফেল, ২২২টি কামানের গোলা ও  তা ছোড়ার কাজে ব্যবহারের ২৪৮টি চার্জ এবং বিভিন্ন ধরনের ১১ হাজার ৮৬৪টি গুলি উদ্ধার করে র‌্যাব সদস্যরা।

এ ঘটনায় চুনারুঘাট থানায় অজ্ঞাতনামা আসামি উল্লেখ করে পৃথক দু’টি মামলা হয়।

এদিকে, উদ্ধারকৃত অস্ত্রগুলো ঢাকা সেন্ট্রাল অ্যামুনিশন ডিপো ও সেন্ট্রাল অর্ডিনেন্স ডিপোতে পাঠানো হয়েছে।

এসব আগ্নেয়াস্ত্রের উৎস জানতে চাইলে কর্নেল জিয়া বলেন, তারা আরো তদন্ত করে পরে তা জানাবেন।

যে স্থানটিতে এই গোলাবারুদ পাওয়া গেছে, তা এক সময় অল ত্রিপুরা টাইগার ফোর্সের (এটিটিএফ) আস্তানা ছিল বলে মনে করা হয়। ত্রিপুরার এই বিদ্রোহী দলটি এখন দুর্বল হয়ে পড়েছে।

ট্যাগ: