banglanewspaper

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ আইন অনুযায়ী অনুমোদনের পর সাত বছরের মধ্যে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে স্থায়ী জমিতে ক্যাম্পাস পরিচালনা করতে হবে। কিন্তু অধিকাংশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এই নিয়ম মানেনি। আইনের অমান্য করেই বছরের পর বছর শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে আসছে অস্থায়ী ক্যাম্পাসেই। খোদ ইউজিসি চেয়ারম্যান বলছেন, আইন না মানার প্রবণতা রয়েছে এমন বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা কম নয়। প্রতিষ্ঠার পর দশ বছরের বেশি অতিবাহিত হলেও কোনো কোনো বিশ্ববিদ্যালয় যায়নি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে।

দেশে ৯৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সর্বশেষ প্রতিবেদনে দেখা গেছে এদের মধ্যে মাত্র ১৩টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী জমিতে ক্যাম্পাস পরিচালনা করছে। বাকিগুলো থেকে গেছে এ আওতার বাইরেই। কোনো কোনো বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণ শুরু করেছে, কোনো কোনো বিশ্ববিদ্যালয় জমি কিনেছে স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য। আবার কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নবায়ন করে স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে সময় বাড়িয়ে নিয়েছে আরও পাঁচ বছর। 

২০১০ সালে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইনের আগে ৫১টি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা হয়। এই ৫১টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ২০১০ এ বলা হয়েছে, ‘এই আইনে যাই থাকুক না কেন এই আইন কার্যকর হবার পূর্বে সাময়িক অনুমতিপ্রাপ্ত কোনো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইতোমধ্যে সনদ গ্রহণপূর্বক স্থায়ী না হইয়া থাকিলে এই আইন কার্যকর হবার পর উক্ত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ধারা ৯ এর শর্তাবলী পূরণ সাপেক্ষে সনদপত্র গ্রহণ করিতে হইবে।’

ইউজিসির সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদনেও উঠে এসেছে সংকটের নানান দিক। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দেওয়া সর্বশেষ আল্টিমেটাম অনুসারে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের কি অবস্থা, ২৪ বছরের কার অগ্রগতি কতটুকু, কারা নিয়ম মেনে কাজ করছে, কারা করছে না এমন নানান প্রশ্নের উত্তর মিলেছে প্রতিবেদনে। দুই যুগে আয় বাড়লেও মান বাড়েনি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের। 

দেশে ৯৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সর্বশেষ প্রতিবেদনে দেখা গেছে, এদের মধ্যে মাত্র ১২ বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী জমিতে ক্যাম্পাস পরিচালনা করছে। কোনো কোনো বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণ শুরু করেছে, আবার কোনোটি জমি কিনেছে স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য। তবে বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয় নবায়ন করে স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে সময় বাড়িয়ে নিয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা থাকলেও স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে দফায় দফায় বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে সময়। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসিও তাদের বিরুদ্ধে কঠোর কোনো পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়েছে।

ইউজিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, নিজস্ব জমিতে স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রম স্থানান্তর করেছে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি-চট্টগ্রাম, ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি, ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজি, ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়-চট্টগ্রাম, আহসানুল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। তালিকায় আরও আছে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেজ অ্যান্ড টেকনোলজি, গণবিশ্ববিদ্যালয়, বিজিসি ট্রাস্ট ইউনিভার্সিটি, দ্য ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক এবং সিটি ইউনিভার্সিটি। স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণ করা হলেও সম্পূর্ণভাবে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে না ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটি। 

স্থায়ী ক্যাম্পাসে আংশিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়। এ তালিকায় আছে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, লিডিং ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ, উত্তরা ইউনিভার্সিটি, রয়েল ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অব সায়েন্সেস, অতীশ দীপঙ্কর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ও  নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি।

শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেনি, তবে স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণ করছে ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়। এ তালিকায় আছে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি, গ্রীন ইউনিভার্সিটি, দি পিপলস ইউনিভার্সিটি, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, সাউদার্ন ইউনিভার্সিটি, ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি, আশা ইউনিভার্সিটি।

এছাড়া জমি কিনলেও নির্মাণকাজ শুরু করেনি ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়। এগুলো হচ্ছে- স্টেট ইউনিভার্সিটি, মানারাত ইন্টারন্যাশনাল, প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি, ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অল্টারনেটিভ, ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়া।

ফাউন্ডেশনের জমিতে ক্যাম্পাস রয়েছে দু’টি বিশ্ববিদ্যালয়ের। একটি সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটি অপরটি মিলিওনিয়ার ইউনিভার্সিটি। একাধিক স্থায়ী ক্যাম্পাস রয়েছে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি ও শান্ত মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজির। এ দুটি বিশ্ববিদ্যালয়কে আইন অনুসারে জমি নির্দিষ্ট করে সরকারকে স্থায়ী ক্যাম্পাসের তথ্য জানাতে বলা হয়েছে।

নির্ধারিত পরিমাণের চেয়ে কম জমিতে ক্যাম্পাস থাকা তিনটি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে- স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি, প্রাইম ইউনিভার্সিটি ও সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি। আর আইন অনুযায়ী জমি ক্রয় করেনি প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়। এর বাইরে মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ ও দুই পক্ষের মধ্যে মামলা রয়েছে প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি, সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং ইবাইস ইউনিভার্সিটির।

 

 

 

 

ট্যাগ:

সারাবাংলা
আবারও বুড়িগঙ্গা-তুরাগে উচ্ছেদ অভিযান শুরু

banglanewspaper

বুড়িগঙ্গা ও তুরাগ নদের তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে আজ মঙ্গলবার থেকে আবারও অভিযানে নামছে বিআইডব্লিউটিএ। এটি হবে চলমান অভিযানের দ্বিতীয় পর্ব।

আগামী ২৮ মার্চ পর্যন্ত চারটি পর্যায়ে মোট ১২ দিন এ অভিযান চলবে। তবে রাজধানীর পশ্চিম হাজারীবাগে হাইক্কার খালের কাছে বুড়িগঙ্গা ও তুরাগের সংযোগস্থলে বছিলা এলাকায় অবৈধভাবে নির্মিত আলোচিত ১০ তলা ভবনটি এবারের অভিযানের উচ্ছেদ তালিকার শীর্ষে থাকলেও এ নিয়ে এখন অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

অভিযানের প্রথম দিন আজই ভবনটি ভাঙার কথা ছিল। তবে রাজউকের সাড়া না মেলায় এ বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

বিআইডব্লিউটিএর ঢাকা নদীবন্দরের যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফ উদ্দিন গণমাধ্যমকে বলেন, মালিকপক্ষের দাবি, ভবনটি নদীর সীমানার মধ্যে পড়েনি। বিআইডব্লিউটিএর প্রকৌশলীরাও একই মত দিয়েছেন। তবে ভবনটি রাজউকের অনুমোদন ছাড়া নির্মিত হওয়ায় এটি ভাঙার দায়িত্ব ওই সংস্থার ওপরই বর্তায়। এ কারণেই নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় ও বিআইডব্লিউটিএ থেকে ভবনটি ভেঙে ফেলার বিষয়ে রাজউকের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছিল।

জানা গেছে, প্রথম পর্যায়ে আজ মঙ্গলবার শুরু হয়ে আগামী বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অভিযান চালানো হবে। আজ সকাল ৯টায় বছিলার নিকটবর্তী বুড়িগঙ্গার তীরে হাইক্কার খাল ও তুরাগের তীরে চন্দ্রিমা উদ্যান এলাকা থেকে অভিযান শুরু হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে ১২ থেকে ১৪ মার্চ, তৃতীয় পর্যায়ে ১৯ থেকে ২১ মার্চ এবং চতুর্থ পর্যায়ে ২৫, ২৭ ও ২৮ মার্চ বুড়িগঙ্গা ও তুরাগ তীরের বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও অপসারণ করা হবে। বিআইডব্লিউটিএ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রথম পর্বের তালিকা ধরেই এ অভিযান চালানো হবে।

এর আগে ২৯ জানুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রথম পর্বের উচ্ছেদ অভিযান চলেছে। চার পর্যায়ে মোট ১২ দিন বুড়িগঙ্গা ও তুরাগের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে এ অভিযান চালানো হয়।

ট্যাগ:

সারাবাংলা
অনৈতিক কাজে জড়িত থাকায় ৪ জনকে আটক

banglanewspaper

ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর ধামইরহাটে অনৈতিক কাজে জড়িত থাকায় ৪ জনকে আটক করেছে। ধামইরহাট থানার এস.আই পিযুষ কান্তি জানান, উপজেলার খেলনা ইউনিয়নের রসপুর কোশামারী গ্রামের তাইবুল ইসলামের দুই মেয়ে তার নিজ বাড়ীতে দীর্ঘদিন ধরে অনৈতিক কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে গ্রামবাসীর এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে রওনা দেন।

এমন সময় গত ১৮ জুন দিবাগত রাতে গ্রামবাসীরা তাইবুলের বাড়ীতে অনৈতিক কর্মকান্ডে তার দুই মেয়েসহ উপজেলার ফার্শিপাড়া গ্রামের মো. বেলাল হোসেনের ছেলে শিহাব (২২) ও ছাইফুল ইসলামের ছেলে স্বাধীন (২০) হাতে নাতে আটক করে। পরে ১৯ জুন দুপুর ২ টায় তাদের দন্ডবিধি ২৯০ ধারা মোতাবেক আদালতে প্রেরণ করা হয়।  থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছানোয়ার হোসেন জানান, তাইবুলের ওই মেয়েদ্বয় ইতিপূর্বে এমন অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িত থাকায় জেল হাজত বাস করে।

 

ট্যাগ:

সারাবাংলা
‘পানিবন্দি মানুষের জানমাল রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব’

banglanewspaper

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, বন্যা দুর্গত মৌলভীবাজারসহ বৃহত্তর সিলেটের যে সব জায়গায় পানিবন্দি মানুষ কষ্টে আছে তাদের জানমাল রক্ষা করা আমাদের পবিত্র দায়িত্ব। যত দিন পর্যন্ত বন্যার্তদের দুঃখ-দুর্দশা ও কষ্ট লাঘব হবে না, তত দিন পর্যন্ত এ ত্রাণ দেওয়া অব্যাহত থাকবে। আমাদের ত্রাণের কোনো অভাব নাই। এলাকার মানুষের যে চাহিদা তার চেয়ে বেশি ত্রাণ দিতে সক্ষম হব।

আজ সোমবার দুপুরে মৌলভীবাজার সার্কিট হাউসে প্রশাসনসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে বৈঠক শেষে স্থানীয় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

পরে ত্রাণমন্ত্রী বন্যা দুর্গত এলাকা শহরের বড়হাট ও রাজনগর উপজেলার কদমহাটা এলাকা পরির্দশন করেন এবং দুর্গতদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেন।

ভারতের উত্তর ত্রিপুরায় উল্লেখযোগ্য বৃষ্টিপাত না হওয়ায় মৌলভীবাজারের কুলাউড়া, কমলগঞ্জ ও রাজনগর উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তবে মনু নদীর বারইকোনাতে প্রতিরক্ষা বাঁধের ভাঙন দিয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করায় পৌর এলাকা এবং সদর উপজেলার মোস্তফাপুর ও কনকপুর ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চলে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। শহরের বড়হাট এলাকায় আটকেপড়া মানুষদের উদ্ধারে সেনাবাহিনীসহ স্থানীয় জনগণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

ট্যাগ:

সারাবাংলা
মাগুরায় সড়ক দূর্ঘটনায় বাবা-মেয়ে সহ একই দিনে ৪ জন নিহত হয়েছে

banglanewspaper

শরীফ আনোয়ারুল হাসান রবীন, মাগুরা প্রতিনিধিঃ মাগুরার আজ সোমবার সড়ক দূর্টনায় বাবামেয়েসহ ৪জন নিহত হয়েছে।  নিহতরা হলেন শালিখার হারিশপুর গ্রামের বাবা মমতাজ হোসেন, তার শিশু কণ্যা সুমাইয়া, শ্রীপুরের গোয়ালদাহ গ্রামের শিশির বিশ্বাস ও সদরের বেলনগর গ্রামের সোহরাব হোসেন।

পুলিশ জানায়- আজ সোমবার দুপুরে স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে আড়পাড়া বাজার থেকে ভ্যানযোগে শতখালির দিকে  যাচ্ছিলেন মমতাজ। এ সময় একটি ইজিবাইকের সাথে ধাক্কা খেয়ে রাস্তার উপর তাদের ভ্যানটি উল্টে যায়।

এ সময় সোহাগ পরিবহনের একটি বাস উল্টোদিক থেকে এসে তাদের চাপা দেয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের ৪ জনকে মাগুরা সদর হাসপাতালে আনা হলে সেখানে বাবা ও মেয়ে মারা যান। আহতদের চিকিৎসা চলছে।

অন্যদিকে সকালে শ্রীপুরের গোয়ালদাহ  ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে শিশির অধিকারী ও গত রাতে মোত্রসাইকেলের ধাক্কায় সাইকেল আরোহী বেলনগর এলাকারসোহরাব হোসেন  নামে এক পথচারি নিহত হয়েছেন।

ট্যাগ:

সারাবাংলা
ঈদে নানাবাড়ি বেড়াতে এসে লাশ হলো শিশু

banglanewspaper

ফরহাদ খান, নড়াইল প্রতিনিধিঃ  ঈদে নানাবাড়ি বেড়াতে এসে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার শালনগর ইউনিয়নের রামকান্তপুর গ্রামে মধুমতি নদীতে পড়ে নাহিদ (৮) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (১৮ জুন) বেলা ১১টায় নদী থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

নাহিদ পাশের জয়পুর গ্রামের জাহিদ শেখের ছেলে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, লোহাগড়ার রামকান্তপুর গ্রামে মা কাজলী বেগমের সঙ্গে  নানাবাড়িতে ঈদ করতে আসে নাহিদ। ঈদের পরেরদিন রোববার বিকেলে কাজলী বেগম সহ কয়েকজন বাবার বাড়ির পাশে মধুমতি নদীতে গোসল করতে যান।

এ সময় কাজলী তার ছেলে নাহিদকে নদীর পাড়ে বসিয়ে রেখে গোসল করতে নামেন। এক পর্যায়ে নাহিদ নদীতে নেমে  পড়লে ¯্রােতে টানে ডুবে যায়। স্থানীয় লোকজন তাৎক্ষণিক খোঁজাখুজি করেও তার সন্ধান পাননি।

লোহাগড়া ফায়ার সার্ভিস এবং খুলনার ডুবরি দলের সদস্যরাও নাহিদকে উদ্ধারে ব্যর্থ হন। এদিকে সোমবার সকালে মধুমতি নদীতে নাহিদের মৃতদেহ ভেসে উঠলে স্থানীয় লোকজন তা উদ্ধার করেন। 

ট্যাগ: