banglanewspaper

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: সোমবার ভোর পাঁচ টার সময়ে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার লালনশাহ সেতু ব্রিজের গোলচত্বর নামক স্থানে ভেড়ামারা থানা পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে।

এতে ২১৯ বোতল আমদানী নিষিদ্ধ ভারতীয় ফেন্সিডিল ও একটি প্রাইভেটকার সহ ৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে। আটককৃতরা হলেন কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার চরদিয়া গ্রামের শুকুর মন্ডলের পুত্র আলমগীর হোসেন আলম (২৯) ও একই এলকার মৃত শফি বিশ্বাসের পুত্র বজলু বিশ্বাস (৫৬) ও ভোলা জেলার দৌলতখান থানার চরপাতা গ্রামের মৃত হানিফ দর্জির পুত্র জুয়েল হাসান ওরফে আব্দুল্লাহ (২৮)।

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ কামরুল হাসানের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা প্রাইভেট কারটি লালনশাহ সেতু ব্রিজের গোলচত্বর এলাকায় তল্লাসি করে ২১৯ বোতল আমদানী নিষিদ্ধ ভারতীয় ফেন্সিডিলসহ প্রাইভেট (কার নং-ঢাকা মেট্রো-খ-১১-১৮০৮) আটক হয় । অন্যদিকে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভেড়ামারা পুলিশ জানতে পারে প্রাইভেট কার যোগে ফেন্সিডিলের বড় একটি চালান ভেড়ামারা লালনশাহ ব্রিজ পার হয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাবে।

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ কামরুল হাসানের নেতৃত্বে ভেড়ামারা থানার এসআই রোকনুজ্জামান, এসআই মাসুম বিল্লাহ, এসআই এমএ কুদ্দুস, এএসআই আয়ুব হোসেন সহ সঙ্গীয় ফোর্স ভেড়ামারা লালনশাহ সেতুর অভিমুখে গোলচত্বরে অবস্থান নেয়। সেখানে ফেন্সিডিল বোঝায় প্রাইভেট কারটি পৌছালে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দ্রুত গতিতে গাড়িটির টার্নিং নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।

তারপরে ভেড়ামারা থানা পুলিশের অভিযানের চৌকস এই টিমটি দ্রুত গতিতে উক্ত প্রাইভেট কারটি চারিদিক থেকে ঘিরে ফেলে। সে সময় পুলিশ প্রাইভেট কার ও আটককৃত ৩ মাদক ব্যবসায়ীর শরীর তল্লাশী চালিয়ে ২১৯ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করে। উক্ত ব্যাপারে ভেড়ামারা থানায় ১৯৯০ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ১৯ (১) খ এর ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা নং ১০, তাং -১৯/০৬/২০১৭ ইং।  জুয়েল হাসান ও বজলু বিশ্বাস এবং হোসেন আলমের বিরুদ্ধে ভেড়ামারা থানায় মাদক নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রুজু করে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

ট্যাগ: