banglanewspaper

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রুমান মিয়া (৩৫) নামে এক প্রতিবন্ধীকে শিকল দিয়ে বেধে মধ্য উপযুগী কায়দায় নির্যাতন করে সম্পত্তি হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয় ওই ব্যক্তিকে তারা পাগল সাজানোর আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

সে উপজেলার লামাপইল গ্রামে গ্রামের মৃত আব্দুস সোবহানের পুত্র।

নোমান ও এলাকাবাসী জানান, তার প্রায় অর্ধ কোটি টাকার পৈত্রিক সম্পত্তি রয়েছে। এর মধ্য কিছু অংশ তার বড় বোন হেনা বেগমের নিকট বিক্রি করে। ওই টাকা তার কাছ থেকে নেওয়ার জন্য তার বড় ভাই আব্দুস সালাম মিন্টু (৪০) ও তার ভাবি ঝর্ণা বেগম (৩০) কৌশলে তার কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়ে তাকে এক সপ্তাহ ধরে পায়ে শিকল ও তালা দিয়ে একটি বন্ধি করে রেখেছে। শুধু মাত্র বেঁচে থাকার মত তাকে খাবার দেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও সে তার টাকা ফেরত চাইলে তার উপর চালানো হয় অমানুষিক নির্যাতন। এমনকি তাকে পাগল বানানোর জন্য জোরপুর্বক ইনজেকশন ও পুষ করা হচ্ছে। তার পায়ে শিকল থাকায় ঘরের আশে পাশেই মল ত্যাগ করতে হচ্ছে। সে এক সপ্তাহ ধরে শিকলে বাধা থাকায় দিন দিন অসুস্থ হয়ে পড়ছে।

এ খবর প্রচার হলে রবিবার (৯ জুলাই) বিকেলে সরেজমিনে এ দৃশ্য দেখে সাংবাদিকরা ক্যামেরা বন্ধি করতে গেলে মিন্টু ও তার লোকজনের রোশানলে পড়তে হয়।

এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি মোঃ ইয়াছিনুল হক জানান, অভিযোগ পেয়েছি। জরুরি ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।


এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে রসালো আলোচনার ঝড় বইছে। স্থানীয় এলাকাবাসী মনে করছেন দ্রুত তাকে উদ্ধার করা না গেলে হয়ত পায়ে শিকল বাধা অবস্থায় মৃত্যু হতে পারে তার। তাই দ্রুত আইনত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিও জানান স্থানীয়রা।

এদিকে রাতে রুমান মিয়ার বোন হেনা আক্তার বাদী হয়ে সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ট্যাগ: