banglanewspaper

ডেস্ক রিপোর্ট: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ঈদের পরও বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নামে নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করে প্রচারণার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ব্যানার-ফেস্টুন রাতের আঁধারে উধাও করে দিচ্ছেন বলেও কিছু কিছু স্থানে খবর পাওয়া গেছে।

তবে আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্পস্ট বলেছেন, দ্বন্দ্ব-বিভেদকারীকে নমিনেশন দেওয়া হবে না। এদিকে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এবার আর ২০১৪ সালের মতো কারো দায়িত্ব নিতে পারবেন না। তাই, নিজের গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণ করেই দলের মনোনয়ন পেতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ ৪ টি দেশি-বিদেশী সংস্থা দিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং বর্তমান সংসদ সদস্যদের গোয়েন্দা প্রতিবেদন তৈরি করাচ্ছেন

সর্বশেষ ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বচনে ৩০০টি আসনের মধ্যে ২৩১ টিতে জয়ী হয় আওয়ামী লীগ। যাদের অনেকেরই জনপ্রিয়তা ছিল না। ছিল না, নেতাকর্মীদের সাথে ন্যুন্যতম যোগাযোগ। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছে এদের মাঝে বেশীর ভাগ এমপি। এদের মধ্যে থেকেই মন্ত্রী বেছে নেওয়া হয়। এখন শুরু হয়েছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তোড়জোড়। আর আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায় থেকে ইতিমধ্যেই কিছু সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়েছে, যার একটি হলো, গত নির্বাচনে দল থেকে নির্বাচিত ২৩১ এমপির মধ্যে ৭৩ জনকে মনোনয়ন না দেওয়া ও অপরদিকে এমপি পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী এগিয়ে আছে ১০০ সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাতে পৌচেছে।

আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, মনোনয়ন বঞ্চিত হতে চলা ৭৩ এমপির মধ্যে অনেকেই বেশ প্রভাবশালী। আবার কয়েকজন আছেন বর্তমান ও সাবেক মন্ত্রী।

সাম্প্রদায়িকতা, দুর্নীতি, বিতর্ক, জনপ্রিয়তা হারানোর মতো কারণে অনেকেই মনোনয়ন বঞ্চিত হতে যাচ্ছেন। আবার অনেকে মনোনয়ন পাচ্ছেন না বয়সের কারণে। এছাড়া নির্দিষ্ট আসনে অন্য কাউকে দল থেকে মনোনয়ন দেওয়ায়ও অনেকে মনোনয়ন বঞ্চিত হচ্ছেন।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অন্য দলের হলেও আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের নির্বাচন করেছেন অনেকে। আবার অনেকে স্বতন্ত্রভাবে (অনেকে আওয়ামী লীগেরই বিদ্রোহী প্রাথী) নির্বাচিত হলেও পরে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। এসব এমপিদেরও কেউ কেউ এবার মনোনয়ন পাচ্ছেন না।
বয়সের কারণে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত এবার মনোনয়ন পাচ্ছেন না। অর্থমন্ত্রীর সিলেট-১ আসনে মনোনয়ন পেতে পারেন তাঁরই ছোট ভাই আবুল কালাম আবদুল মোমেন।

এছাড়া বয়সের কারণে এবার মনোনয়ন পাচ্ছেন না শরীয়তপুর-২ আসনের সাংসদ শওকত আলী। ওই আসনে এবার এনামুল হক শামীম মনোনয়ন পেতে পারেন। একই কারণে মনোনয়ন পাচ্ছেন না ঠাকুরগাঁও-১ আসনের এমপি রমেশ চন্দ্র সেন। ২০০৮ সালে তিনি পানিসম্পদ মন্ত্রী ছিলেন।
ঠাকুরগাঁও-২ আসন থেকে এবার মনোনয়ন পাচ্ছেন না এমপি মো. দবিরুল ইসলাম। স্থানীয়ভাবে তাঁর বিরুদ্ধে নানা রকম অভিযোগ ওঠায় দল থেকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সাম্প্রদায়িকতার অভিযোগ ও স্থানীয় বিরোধের কারণে মনোনয়ন বঞ্চিত হচ্ছেন লালমনিরহাট-১ আসনের এমপি মো. মোতাহার হোসেন, লালমনিরহাট-২ আসনের এমপি নুরুজ্জামান আহমেদ এবং গাইবান্ধা-৩ আসনের এমপি ইউনুস আলী সরকার।

জনপ্রিয়তা হারানোয় মনোনয়ন বঞ্চিত হচ্ছেন জয়পুরহাট-১ আসনের সামছুল আলম দুদু।

রাজশাহী-১ আসনে মনোনয়ন পাচ্ছেন না বর্তমান এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী। ২০০৯ সালে তিনি আওয়ামী লীগ সরকারেরই প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। বিভিন্ন কারণে বিতর্কিত রিয়াল এস্টেট ব্যবসায়ী রাজশাহী-৪ আসনের সাংসদ এনামুল হক মনোনয়ন বঞ্চিত হচ্ছেন।

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমামের ছেলে সিরাজগঞ্জ-৪ আসনের এমপি তানভীর ইমাম। তবে এবছর মনোনয়ন পাচ্ছেন না তিনি।
ছেলে শিরহান শরীফ তমালের গ্রেপ্তার হওয়াসহ নানা কারণেই বিতর্কিত ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ। পাবনা-৪ আসনের এই এমপি এবার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাচ্ছেন না।

টাঙ্গাইল-৩ আসনের সাংসদ আমানুর রহমান খান রানা হত্যা মামলার আসামি। স্বাভাবতই এবার মনোনয়ন বঞ্চিত থাকছেন তিনি।

২০০৯ সালের আওয়ামী লীগ সরকারের ভূমিমন্ত্রী ছিলেন মো. রেজাউল করিম হীরা। জামালপুর-৫ আসানের এই সাংসদ এবার মনোনয়ন বঞ্চিতই থাকছেন।

জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার আরিফ খান জয়। বর্তমানে তিনি নেত্রকোনা-২ আসনের এমপি এবং ক্রীড়া উপমন্ত্রী। তবে এবার মনোনয়ন বঞ্চিতই থাকতে হবে তাঁকে।

রাজবাড়ী ২ আসনের সংসদ সদস্য জিল্লুল হাকিমের স্থলে মনোনয়ন পেতে পারেন ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রিয় নেতা শেখ সোহেল রানা টিপু।

আওয়ামীগের বিদ্রোহী হয়ে স্বতন্ত্র প্রাথী হিসেবে দশম জাতীয় সংসদ নির্বচনে ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন হাজী মো. সেলিম। এবার হয়তো মনোনয়ন পেতেনে। তবে অসুস্থতার জন্যই তিনি মনোননয় বঞ্চিত হচ্ছেন।

সাংসদ এ কে এম রহমতুল্লাহ্ অবশ্য মনোনয়ন বঞ্চিত হচ্ছেন ভিন্ন কারণে। তাঁর ঢাকা-১১ আসনের এবার অন্য কাউকে মনোনয়ন দেওয়া হতে পারে। ওই আসনে ফারুক খান মনোনয়ন পেতে পারেন বলে কানাঘুষা চলছে।

সাংসদ কামাল আহমেদ মজুমদার বয়সের কারণে রাজনীতিতে তেমন সময়ই দেন না। তার বিরুদ্ধে মনিপুর স্কুল নিয়ে বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। মূলতঃ মোহনা টেলিভিশনে বসেই তিনি সময় পার করেন। নেতা কর্মীদের সাথে নেই ন্যুন্যতম যোগাযোগ। তার আসন ঢাকা ১৫ তে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন স্বেচ্ছাসেবকলীগের কেন্দ্রিয় যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু। স্থানীয় জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে মনোনয়ন দেওয়া হলে তার মনোনয়ন পাওয়া এক প্রকার নিশ্চিত।

২০০৯ সালের আওয়ামী লীগ সরকারের মন্ত্রী রাজি উদ্দিন আহমেদ। নরসিংদী-৫ আসনের এই সাংসদ মনোনয়ন বঞ্চিতই থাকতে পারেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংখ্যালঘুদের বাড়িতে হামলার ঘটনায় সাম্প্রদায়িক মন্তব্য করে বিতর্কিত হন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনের সাংসদ এবং মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক। আগামী সংসদ নির্বাচনে এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাচ্ছেন না তিনি।

কুমিল্লা-৯ আসনের সংসদ সদস্য মো. তাজুল ইসলামের বিরুদ্ধেও রয়েছে বিভিন্ন অভিযোগ। বিশেষ করে আওয়ামীলীগের ভিতর থেকেও তার বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী ভূমিকার অভিযোগ তুলেছে মনোহরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম ভূঁইয়া। তিনি অভিযোগ করেন, তাজুলের  বাবা এবং তার আপন মামা মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানী বাহিনীকে সহযোগীতা করেছেন এবং মনোহরগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধাদের ঘর-বাড়ী পোড়ানোসহ বিভিন্ন নির্যাতন পরিচালনায় নেতৃত্ব দিয়েছেন।

সংসদ সদস্য তাজুল ইসলামের আপন ছোট ভাই নজরুল ইসলাম জামায়াতের রোকন সদস্য। এই আসনে কে প্রার্থী হচ্ছে তা নিশ্চিত হওয়া না গেলেও, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রিয় নেতা দেলোয়ার হোসেন ফারুক তরুণ প্রজন্মের কাছে অত্যাধিক জনপ্রিয়। এছাড়াও এলাকায় বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে তার অংশগ্রহণের কারণে সাধারণ মানুষের সাথেও রয়েছে তার গভীর সম্পর্ক। প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত তরুণ প্রজন্মের এমপিদের মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নিলে তার মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে গুঞ্জনকে সত্য বলেই আপাতত মনে হচ্ছে।

বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃত করে বিতর্কিত হয়েছেন চট্টগ্রাম-১১ আসনের সাংসদ এম আবদুল লতিফ। আগামী সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন বঞ্চিত থাকছেন তিনি।
কক্সবাজার-৪ আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ আবদুর রহমান বদি। ইয়াবা ব্যবসায় সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে তিনি দীর্ঘদিন ধরেই বিতর্কিত। এবারের সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন বঞ্চিত হচ্ছেন তিনি।

এছাড়া বিভিন্ন কারণে আরও অনেকেই মনোনয়ন পাচ্ছেন না। এরা হলেন আব্দুল মান্নান (বগুড়া-১), মো. হাবিবর রহমান (বগুড়া-৫), মোহা. গোলাম রাব্বানী (চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১) মো. আব্দুল ওদুদ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩), মো. শহীদুজ্জামান সরকার (নওগাঁ-২) মো. শফিকুল ইসলাম শিমুল (নাটোর-২), গাজী ম.ম. আমজাদ হোসেন মিলন (সিরাজগঞ্জ-৩), আ. মজিদ মন্ডল (সিরাজগঞ্জ-৫), মো. গোলাম ফারুক খন্দ. প্রিন্স (পাবনা-৫), ফরহাদ হোসেন (মেহেরপুর-১) আবদুর রউফ (কুষ্টিয়া-৪), সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার (ছেলুন) (চুয়াডাংগা-১), মো. নবী নেওয়াজ (ঝিনাইদহ-৩ ), মো. আনোয়ারুল আজীম (আনার)(ঝিনাইদহ-৪), শেখ আফিল উদ্দিন (যশোর-১), রণজিত কুমার রায় (যশোর-৪), এ টি এম আব্দুল ওয়াহাব (মাগুরা-১), মো. কবিরুল হক (নড়াইল-১), মো. মোজাম্মেল হোসেন (বাগেরহাট-৪), মুহাম্মদ মিজানুর রহমান (খুলনা-২), মীর মোস্তাক আহমেদ রবি (সাতক্ষীরা-২), শওকত হাচানুর রহমান (রিমন) (বরগুনা-২), মো. মাহবুবুর রহমান (পটুয়াখালী-৪), আলী আজম (ভোলা-২), তালুকদার মো. ইউনুস (বরিশাল-২), বেগম জেবুন্নেছা আফরোজ (বরিশাল-৫), বজলুল হক হারুন (ঝালকাঠি-১), অনুপম শাহজাহান জয় (টাংগাইল-৮), মো. ফরিদুল হক খান (জামালপুর-২), এ. কে. এম. ফজলুল হক (শেরপুর-৩), জুয়েল আরেং (ময়মনসিংহ-১ ), নাজিম উদ্দিন আহমেদ (ময়মনসিংহ-৩), মো. মোসলেম উদ্দিন (ময়মনসিংহ-৬), ডাঃ মোহাম্মদ আমানউল্লাহ (ময়মনসিংহ-১১), রেবেকা মোমিন (নেত্রকোনা-৪), মো. সোহরাব উদ্দিন (কিশোরগঞ্জ-২), মো. ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ্ (ঢাকা-১৬), মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম (নরসিংদী-১), বি, এম, মোজাম্মেল হক (শরীয়তপুর-১), মোয়াজ্জেম হোসেন রতন (সুনামগঞ্জ-১), মুহিবুর রহমান মানিক (সুনামগঞ্জ-৫), মো. আব্দুল মজিদ খান (হবিগঞ্জ-২), অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ (কুমিল্লা-৭), বেগম আয়েশা ফেরদাউস (নোয়াখালী-৬), এ. কে. এম শাহজাহান কামাল (লক্ষ্মীপুর-৩), মো. আবদুল্লাহ (লক্ষ্মীপুর-৪), মাহফুজুর রহমান (চট্টগ্রাম-৩), দিদারুল আলম (চট্টগ্রাম-৪), আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন (চট্টগ্রাম-১৫), আশেক উল্লাহ রফিক (কক্সবাজার-২) প্রমুখ। (তথ্য সূত্র-বিডিহটনিউজ)

গোয়েন্দা প্রতিবেদনে ১০০ সম্ভাব্য প্রার্থী যাদের নাম মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাতে তারা : এমপিদের মধ্যে রয়েছেন সাতক্ষীরা-৪ আসনের জগলুল হায়দার, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী (দিনাজপুর-২), নরুজ্জামান আহমেদ ( লালমনিরহাট-২), ড. শিরিন শারমীন চৌধুরী (রংপুর-৬), জুনায়েদ আহমেদ পলক (নাটোর-৩), মাহবুবুল আলম হানিফ (কুষ্টিয়া-৩), আনোয়ার আজিম আনার (ঝিনাইদহ-৪), কাজী নাবিল আহমেদ (যশোর-৩), নুরুন্নবী শাওন (ভোলা-৩), ড. আব্দুর রাজ্জাক (টাঙ্গাইল-১), ফাহমি গোলন্দাজ বাবেল (ময়মনসিংহ-১০), নাজমুল হাসান পাপন (কিশোরগঞ্জ-৬), নাইমুর রহমান দুর্জয় (মানিকগঞ্জ-১), সাবের হোসেন চৌধুরী (ঢাকা-৯), সিমিন হোসেন রিমি (গাজীপুর-৪), ফারুক খান (গোপালগঞ্জ-১), নাহিম রাজ্জাক (শরিয়তপুর-৩), আনিসুল হক (বি.বাড়িয়া-৪), সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য তারানা হালিম, নূরজাহান বেগম মুক্তা, সাবিরনা আক্তার তুহিন, ফজিলাতুননেসা বাপ্পী, সানজিদা খানম, মেহেজাবিন খালেদ।

অন্যান্যদের মধ্যে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রীর হাতে এসেছে তাদের মধ্যে রয়েছেন শফী আহমেদ (নেত্রকোণা-৪), ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা এবং আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন (চট্টগ্রাম-১৪), এ এইচ এম মাসুদ দুলাল (নারায়ণগঞ্জ-৩), বিশ্বনাথ সরকার বিটু (রংপুর-২), অ্যাডভোকেট আনোয়ারুল ইসলাম (রংপুর-৩), ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপন (গাইবান্ধা-৫), সাখাওয়াত হোসেন শফিক (বগুড়া-৭), ইঞ্জিনিয়ার আকতারুল আলম (নওগাঁ-২), মাহমুদ রেজা (নওগাঁ-২), কোহেলি কুদ্দুস মুক্তি (নাটোর-৪), কুষ্টিয়া-৪ (খোকসা-কুমারখালী) আসনে মো. মিজানুর রহমান বিটু, অ্যাডভোকেট রবিউল আলম বুদু (পাবনা-৩), রফিকুল ইসলাম লিটন (পাবনা-৩), অ্যাডভোকেট এ বি এম আহসানুল হক আহসান (যশোর-৩), কামরুল হাসান বারী (যশোর-৫), সাইফুজ্জামান শিখর (মাগুরা-১), পংকজ সাহা (মাগুরা-১), ড. ওয়াহিদুর রহমান টিপু (মাগুরা-২), শ্যামল দাস টিটু (নড়াইল-১), নিজাম উদ্দিন খান নিলু (নড়াইল), বদিউজ্জামান সোহাগ (বাগেরহাট-৪), আকতারুজ্জামান বাবু (খুলনা-৬), আব্দুল মালেক (পটুয়াখালী-২), জিয়াউল হক জুয়েল (পটুয়াখালী-২), শাহে আলম (বরিশাল-২), মনিরুজ্জামান মনির (ঝালকাঠি-১), এস এম মশিউর রহমান শিহাব (বরগুনা-১), মারুফা আক্তার পপি (জামালপুর), অসীম কুমার উকিল (নেত্রকোনা-৩), আলমগীর হাসান (নেত্রকোনা-৩), অজয় কর খোকন (কিশোরগঞ্জ-৫), গোলাম সরোয়ার কবীর (মুন্সীগঞ্জ-১), ইঞ্জিনিয়ার কাজী আবদুল ওয়াহিদ (মুন্সীগঞ্জ-২), ফয়সাল বিপ্লব (মুন্সীগঞ্জ-৩), পনিরুজ্জামান তরুন (ঢাকা-১), ড. আওলাদ হোসেন (ঢাকা-৪), অ্যাডভোকেট মোল্লা আবু কাউসার (ঢাকা-৮), গোলাম রব্বানী চিনু (ঢাকা-১৩), ইকবাল হোসেন সবুজ (গাজীপুর-৩), অ্যাডভোকেট রিয়াজুল কবীর কাউসার (নরসিংদী-৫), শেখ সোহেল রানা টিপু (রাজবাড়ী-১), ড. আবদুস সোবহান গোলাপ (মাদারীপুর-৩), আনোয়ার হোসেন (মাদারীপুর-৩), দেলোয়ার হোসেন (মাদারীপুর-৩), ইকবাল হোসেন অপু (শরীয়তপুর-১), এ কে এম আজম খান (পিরোজপুর-১), এনামুল হক শামীম (শরীয়তপুর-২), বাহাদুর বেপারী (শরীয়তপুর-৩), মঈন উদ্দিন মঈন (ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২), মো: আলামিনুল হক আলামিন (ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫), সুজিত রায় নন্দী (চাঁদপুর-৩), মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন (চট্টগ্রাম-৬), মাইনুদ্দিন হাসান চৌধুরী (চট্টগ্রাম-১৪), মঞ্জুরুল আলম শাহীন ও জহিরউদ্দীন মাহমুদ লিপটন (ফেনী-৩), সাইফুদ্দীন নাসির (ফেনী-২), এম এ মমিন পাটোয়ারী (লক্ষ্মীপুর-১), নাফিউল ইসলাম নাফা (নীলফামারী-৪ ), রবিউল ইসলাম রবি (ঠাকুরগাঁও-৩) প্রমুখ। 

সূত্র: বাংলাদেশ সময়

ট্যাগ:

জাতীয়
পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খোলা সেই টিকটকার আটক

banglanewspaper

পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খুলে টিকটক করা সেই টিকটকার যুবককে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) তাকে আটক করে। তবে সে এটি মজা করে করছে নাকি কোনও উদ্দেশ্য নিয়ে করছে তা যাচাই-বাছাই করতে তাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

রবিবার (২৬ জুন) বিকালে সিআইডির সাইবার ক্রাইমের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তাকে রাজধানীর শান্তিনগর থেকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়। ওই যুবকের নাম বাইজীদ। তার বাড়ি পটুয়াখালীতে। তিনি রাজধানীতে বেসরকারি চাকরি করেন।

সূত্র জানায়, ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা তার উদ্দেশ্য যাচাই করার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি যদি কোনও খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে এটি করে থাকেন, তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আর যদি কেবল না বুঝে মজা করে থাকে তাহলে মুচলেকা নেওয়া হতে পারে।

এর আগে রবিবার সকাল থেকে সোশাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। এতে দেখা যায় এক যুবক টিকটকে ভিডিও বানাতে গিয়ে খুলে নিয়েছেন পদ্মা সেতুর দুটি নাট-বল্টু। এই নাট দুটি দিয়ে লোহার রেলিংটি আটকানো রয়েছে কংক্রিটের রেলিংয়ের সঙ্গে। এরপর সেই যুবক নাট দুটি বাঁহাত দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে খুলে ডানহাতে নেন এবং আবার বাঁহাতের ওপর রাখেন। এ নিয়ে শুরু হয় তীব্র সমালোচনা। ওই যুবকের এমন কাণ্ড দেখে অনেকেই তার শাস্তি দাবি করেছেন।

ট্যাগ:

জাতীয়
পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ

banglanewspaper

পদ্মা সেতুতে সোমবার (২৭ জুন) থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ।

রোববার (২৬ জুন) সন্ধ্যায় সেতু বিভাগ এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সোমবার (২৭ জুন) ভোর ৬টা থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করেছে সরকার।

এর আগে রোববার (২৬ জুন) সাধারণের জন্য খুলে দেওয়ার প্রথম দিনেই পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটে।এ ঘটনায় অন্তত দুইজন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দুর্ঘটনার ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়ে। সেখানে দেখা যায়, দুইজন গুরুতর আহত হয়ে সেতুর ওপর পড়ে আছে। তাদের পাশে রক্তের দাগ।

এ বিষয়ে পদ্মা সেতু উত্তর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‌দুর্ঘটনার তথ্যটি জেনেছি। তবে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।

এ ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খোলার আরও একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। রোববার (২৬ জুন) বিকেলে রাজধানীর শান্তিনগর এলাকা থেকে নাট-বল্টু খোলার অভিযোগে ওই যুবককে আটক করে পুলিশ।

এ বিষয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) সাইবার ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড রিস্ক ম্যানেজমেন্ট বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার রেজাউল করিম জানান, ‘ভিডিওতে যে যুবককে পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খুলতে দেখা গেছে, তার নাম মো. বায়েজিদ। তাকে আমরা আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছি। তিনি কেন এই কাজ করেছেন, সেটা জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

সিআইডি সূত্রে জানা গেছে, বায়েজিদের গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালী। তিনি রাজধানীতে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। তার বয়স ৩১ বছর। তার ব্যক্তিগত গাড়ি আছে। সেটা নিয়েই তিনি চলাফেরা করেন।

এর আগে, কাইসার ৭১ (Kaisar 71) নামে একটি টিকটক অ্যাকাউন্ট থেকে প্রথমে বায়েজিদের পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খোলার ভিডিওটি আপলোড করা হয়। পরবর্তীতে ৩৬ সেকেন্ডের ওই ভিডিওটি ফেসবুকসহ সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন সাইটে ভাইরাল হয়।

ভিডিওতে দেখা যায়, পদ্মা সেতুর কংক্রিটের রেলিংয়ের ওপর থাকা লোহার রেলিংয়ের দুটি নাট খুলছেন বায়েজিদ। মূলত নাট দুটি দিয়ে কংক্রিটের রেলিং ও লোহার রেলিংয়ের সংযোগ দেওয়া হয়েছে। নাট খুলে হাতে নিয়ে বায়েজিদকে বলতে শোনা যায়, ‘এই হলো আমাদের পদ্মা সেতু। আমাদের হাজার হাজার কোটি টাকার পদ্মা সেতু।’ এ সময় ক্যামেরার পেছন থেকে আরেকজনকে বলতে শোনা যায়, ‘নাট খুলে ভাইরাল করে দিয়েন না।’ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়তেই শুরু হয়েছে তীব্র সমালোচনা। বায়েজিদের এমন কাণ্ডে নেটিজেনদের অনেকেই তার শাস্তির দাবি করেছেন।

নেটিজেনরা বলছেন, নাটগুলো খোলার জন্য বায়েজিদ সঙ্গে করে রেঞ্জও নিয়ে গিয়েছিলেন। ভিডিও করার আগে তিনি নাটগুলো রেঞ্জ দিয়ে খুলে রেখেছিলেন। পদ্মা সেতু নিয়ে ব্যঙ্গ করার জন্যই ক্যামেরার সামনে হাত দিয়ে নাটগুলো খোলেন তিনি। কারণ, এমন অত্যাধুনিক ও মজবুত সেতুর নাট কখনোই খালি হাতে খোলা সম্ভব নয়।

নেটিজেনদের কেউ কেউ প্রশ্ন তুলেছেন, এত হাজার কোটি টাকার একটা সেতু, সেই সেতুর মান নিয়ে এভাবে ব্যঙ্গ করা ঠিক?

এদিকে অমিত দাস নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে দাবি করা হয়েছে, বায়েজিদ ছাত্রদল কর্মী।

পুলিশ সুপার রেজাউল করিম গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, এ বিষয়ে আগামীকাল (সোমবার) সিআইডি সদর দপ্তরে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে।

প্রসঙ্গত, শনিবার (২৫ জুন) পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরদিন রোববার ভোর ৬টা থেকে সব ধরনের যান চলাচলের জন্য পদ্মা সেতু খুলে দেওয়া হয়।

ট্যাগ:

জাতীয়
চাকরি ও বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিতে ডোপ টেস্ট

banglanewspaper

দেশে তরুণদের মধ্যে মাদকের রাশ টানতে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে ‘ডোপ টেস্ট’ বাধ্যতামূলক হচ্ছে। পাশাপাশি শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রেও ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক রেখে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আইনে সংশোধন আনা হচ্ছে।

বর্তমানে বাহিনীগুলোর নিজ উদ্যোগে সন্দেহভাজনদের ডোপ টেস্ট করা হলেও সরকারি অন্য পেশাজীবিদের জন্য এই ধরনের কোনো উদ্যোগ নেই। এখন আইনের বলে বাধ্যতামূলক করা হলে সবাই ডোপ টেস্টের আওতায় আসবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলছেন, মাদকের বিরুদ্ধে সরকারের অবস্থান ‘জিরো টলারেন্স’। মাদক নিয়ন্ত্রণে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। পাশাপাশি যুব সমাজকে মাদকদ্রব্যের ছোবল থেকে রক্ষার কাজও করছে বাহিনীগুলো।

রবিবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘শুধু মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণই নয়, প্রতিবেশী দেশ থেকে মাদকের অনুপ্রবেশ ঠেকাতেও কাজ করছে সরকার।’

জানা গেছে, দেশে ইয়াবা, গাঁজা ও ফেনসিডিলের সঙ্গে এখন নতুন মাদক হিসেবে ঢুকেছে আইস। এরমধ্যে ভয়ঙ্কর ইয়াবা ও আইস আসছে মিয়ানমার থেকে। আর ভারত থেকে ঢুকছে গাঁজা-ফেনসিডিল। ২০২০-২১ সালে ইয়াবা, গাঁজা ও ফেনসিডিলসহ মাদক সংশ্লিষ্ট ২০ হাজারেরও বেশি মামলা হয়েছে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর বলছে, মাদকদ্রব্য জব্দ করেই এর সর্বনাশা ছোবল বন্ধ অসম্ভব। চাকরিতে প্রবেশের সময় ডোপ টেস্ট বা মাদকাসক্তি পরীক্ষা বাধ্যতামূলক হলে এটি অনেকাংশেই রোধ সম্ভব।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘এখন যদি সব চাকরিতে প্রবেশের সময় ডোপ টেস্টের রিপোর্ট দিতে হয় তাহলে সবাই সতর্ক হবে, মাদক থেকে দূরে থাকবে। ডোপ টেস্টে ধরা পড়ার ভয় থেকেই যুবসমাজ মাদকসেবন থেকে নিজেকে দূরে রাখবে।’

জানা গেছে, সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ডোপ টেস্ট প্রথমে চালু করে পুলিশ। পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে পুলিশে ডোপ টেস্ট চালু হয়। এরইমধ্যে ডোপ টেস্টে ধরা ৩৭ জন পুলিশ সদস্য চাকরি খুঁইয়েছেন। পুলিশের পর র‌্যাব, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), কোস্টগার্ড এবং আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীও অভ্যন্তরীনভাবে ডোপ টেস্ট কার্যক্রম চালু করে।

বিজিবির গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল ফায়জুর রহমান বলেন, ‘বিজিবি সদস্যদের নিয়মিত ডোপ টেস্ট করা হয়। ২০২০ মে ২০২২ মে পর্যন্ত ডোপ টেস্টে পজেটিভ আসা ১৩ সদস্যকে শাস্তির মুখে পড়তে হয়েছে।’

আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর গণমাধ্যম শাখার পরিচালক জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আনসারের ব্যাটেলিয়নের অধিনায়করা কোনো সদস্যের ডোপ টেস্ট করানোর প্রযোজন মনে করলে তাদের টেস্ট করান। তবে এখন পর্যন্ত বাহিনীর কোনো সদস্যের পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া যায়নি।’

জানা গেছে, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮-এর আওতায় ডোপ টেস্টের জন্য খসড়া আইনটি এরইমধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। তারা বেশ কিছু পর্যবেক্ষণ চেয়েছে এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর সেই অনুযায়ী কাজ করছে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর পরিচালক (চিকিৎসা ও পুনর্বাসন) মো. মাসুদ হোসেন বলেন, ‘আইন মন্ত্রণালয় ডোপ টেস্টের নিয়মগুলো যাচাইবাছাই করবে। তারপর সেটা গেজেট আকারে প্রকাশ করা হবে।’

অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘এই প্রকল্প অনুমোদন পেলে সারাদেশে ডোপ টেস্ট প্রক্রিয়া চালু হবে। এর মাধ্যমে খুব সহজে ডোপ টেস্ট কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ডোপ টেস্টের মাধ্যমে মাদকাসক্ত ব্যক্তিদের শনাক্ত করার পাশাপাশি দেশে মাদকসেবীর একটা পরিসংখ্যানও পাওয়া যাবে। সবমিলিয়ে তাদের প্রতিকারের বিষয়েও পদক্ষেপ গ্রহণ করাও সম্ভব হবে।’

জানা গেছে, ডোপ টেস্ট চালু হলে রাজধানী ঢাকায় তিনটি স্থানে পরীক্ষা করানো যাবে। এছাড়া ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ২২টি ল্যাবরেটরি স্থাপন করা হবে। এর ফলে নিজ নিজ এলাকা থেকে ডোপ টেস্ট করানো সম্ভব হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মেডিকেল সেন্টারের প্রধান সহকারী মামুনুল হক বলেন, ‘এখন পর্যন্ত কোনো শিক্ষার্থীকে ডোপ টেস্ট করানো হয়নি। বাধ্যতামূলক হলে সেইক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা কাজ করবো।’

ট্যাগ:

জাতীয়
পদ্মা সেতুতে টোল আদায় হলো যত টাকা

banglanewspaper

বহু প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর যানবাহন চলাচল শুরু হয়েছে।

রোববার (২৬ জুন) পদ্মা সেতু থেকে প্রথম আট ঘণ্টায় উভয় প্রান্তে মোট ৮২ লাখ ১৯ হাজার ৫০ টাকা টোল আদায় করা হয়েছে।

এদিন বিকেলে গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবুল হোসেন।

তিনি বলেন, আট ঘণ্টায় মাওয়া প্রান্তে আট হাজার ৪৩৮টি গাড়ি টোল প্রদান করে। এতে আয় হয়েছে ৪৬ লাখ ৮৯ হাজার ৫৫০ টাকা। অন্যদিকে জাজিরা প্রান্তে ৬ হাজার ৭৬২টি গাড়ি টোল প্রদান করে। এতে আয় হয়েছে ৩৫ লাখ ২৯ হাজার ৫০০ টাকা।

তবে সকাল থেকে পদ্মা সেতু পারাপার হওয়া গাড়ির ৬০ শতাংশই মোটরসাইকেল এবং বড় যানবাহন তুলনামূলক কম বলে জানান টোলপ্লাজায় দায়িত্বরত এই কর্মকর্তা।

প্রসঙ্গত, শনিবার (২৫ জুন) পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরদিন রোববার ভোর ৬টা থেকে সব ধরনের যান চলাচলের জন্য পদ্মা সেতু খুলে দেওয়া হয়।

ট্যাগ:

জাতীয়
পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত দুই যুবকের মৃত্যু

banglanewspaper

পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত দুজনের মৃত্যু হয়েছে।

রোববার (২৬ জুন) রাত ১০টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। এর আগে একই দিন রাতে পদ্মা সেতুতে ভয়াবহ মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হন তারা।

নিহত দুই যুবক হলেন- মো. আলমগীর হোসেন (২২) ও মো. ফজলু (২১)।

জানা গেছে, আজ রোববার রাতে সেতুর ২৭ ও ২৮ নম্বর পিলারের মাঝামাঝি এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজের পুলিশ ক্যাম্পের (ইনচার্জ) ইন্সপেক্টর বাচ্চু মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, মারাত্মক আহত হয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় দুজন সেতুর ওপর পড়ে আছেন। পরে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

মো. বাচ্চু মিয়া আরও জানান, মরদেহ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে।

ট্যাগ: