banglanewspaper

ডেস্ক রিপোর্ট: বলিউড অভিনেতা জনি লিভার। মুখে হাসি আনার জন্য শুধু নামটিই যথেষ্ট। বলিউডের প্রথম সারির কমেডিয়ান তিনি। দর্শকদের হাসানোর কাজটি দক্ষতার সঙ্গে করে যাচ্ছেন প্রায় চার দশক ধরে। কিন্তু, নিজের জীবন একসময় খুব কষ্টে কাটিয়েছেন। অন্ধ্রপ্রদেশের নিম্নমধ্যবিত্ত ক্রিশ্চান পরিবারের সন্তান জনির পড়াশোনা ওই ক্লাস সেভেন পর্যন্ত। পেটের তাগিদে চলে আসতে হয় মুম্বাইয়ে।

বেঁচে থাকার জন্য নামেন মুম্বাইয়ের রাস্তায়। শুরু করেন কলম বিক্রি। বলিউড তারকাদের গলা নকল করে কলম বেচতে শুরু করেন। গলা নকলের এই দক্ষতাই জনিকে পরবর্তী জীবনে ঠেলে দেয় কমেডির মঞ্চে।

বলা যেতে পারে কলম বিক্রির মাধ্যমে অভিনয় জগতের জার্নি শুরু হয় জনির।

তবে খুব সহজে বলিউডে জায়গা পেয়েছেন তা মোটেও নয়। আঘাত এসেছে। সুযোগ পেয়েও সেভাবে লাইমলাইটে আসেননি। কিন্তু, মনোবল হারাননি। অভিনয়টা মন দিয়ে করে গেছেন। কলম বিক্রির পর একটা সময় বাবার সঙ্গে মুম্বাইয়ে হিন্দুস্তান লিভার কম্পানিতে কাজ করতেন। তখনও অভিনয়ের প্ল্যাটফর্ম পাননি। তাই কম্পানির কর্মীদের সামনে অভিনয় করে দেখাতেন। মজার কথা হলো, জনি লিভার নামটিও তিনি পেয়েছিলেন এখানে কাজ করতে গিয়েই। তাঁর আসল নাম প্রকাশ রাও জানুমালা।

কাজের ফাঁকে মুম্বইয়ে শো করতে শুরু করেন। আর এই শো তাঁর ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দেয়। জনির শো দেখেন অভিনেতা সুনীল দত্ত। প্রতিভা চিনতে ভুল হয়নি তাঁর। তিনিই সুযোগ করে দেন জনিকে। ১৯৮২ সালে দর্দ কা রিস্তা ছবিতে অভিষেক করেন জনি। তবে এই ছবিটি তাঁকে পরিচিতি দেয়নি। বাজিগর ছবি থেকে লাইমলাইটে আসেন। তারপর আর ফিরে তাকাতে হয়নি। বাকিটা তো ইতিহাস।

জনি হিন্দি ভালো বলতে পারতেন না জনি। কিন্তু, বলিউড ছবিতে অভিনয় করবেন আর হিন্দি জানবেন না, তা কি হয়? শুরু করেন হিন্দি শেখা। কাগজ, বই পড়াশোনার পাশাপাশি নিতে থাকেন প্রাতিষ্ঠানিক হিন্দি শিক্ষা।

৩৫০টিরও বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন এই অভিনেতা। পেয়েছেন অনেক সম্মান ও পুরস্কার। একসময় পেট ভরানোর জন্য মুম্বাইয়ের পথে পথে দুটাকা পাঁচটাকা দামের কল্ম বিক্রি করতেন। সেই জনি আজ প্রায় ১৯০ কোটি টাকার মালিক। ভাবা যায়!

ট্যাগ: