banglanewspaper

বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরের শার্শায় এক স্কুল ছাত্রীর ইজ্জতের মূল্য ৪ হাজার টাকা। গ্রাম্য মাতব্বররা এক সালিশির মাধ্যমে এ জরিমানা নির্ধারণ করে দিয়েছে। পিতৃহারা অসহায় এ স্কুল ছাত্রী ও তার মাতার কাছ থেকে মাতব্বররা সাদা কাগজে স্বাক্ষর করে নিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার দুপুরে শার্শা উপজেলার বারিপোতা গ্রামের দিঘির পাড় নামক নির্জন স্থানে। এ ঘটনায় অভিভাবক ও সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যাপক ঘৃণা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

এলাকাবাসী ও ছাত্রীর মাতা মাসুরা খাতুন জানায় ছুটি শেষে রবিবার দুপুরে স্কুল ছাত্রী বাড়ি ফেরার পথে উপজেলার বারিপোতা গ্রামের দিঘির পাড় নামক স্থানে পৌছালে বারিপোতা গ্রামের ঝড়ো মিয়ার ছেলে ফারুক হোসেন স্কুল ছাত্রীকে টেনে হেচড়ে নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করে বলে জানা যায়। এ সময় স্কুল ছাত্রীর জামা কাপড় ছিড়ে ফেলে। ঘটনাটি স্কুল ছাত্রী তার মাতাকে জানালে স্কুল ছাত্রীর মাতা মাসুরা খাতুন আইনের আশ্রয়ের প্রস্তুতির সংবাদ পেয়ে বারিপোতা গ্রামের মাতব্বররা পলাশের বাড়িতে এক সালিশির আয়োজন করে। সালিশি বৈঠকে ৪ হাজার টাকা জরিমানা নির্ধারণ করা হয়। সালিশি বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন গাতিপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, একজন সহকারী শিক্ষক, একজন জনপ্রতিনিধি, স্কুল ছাত্রী ও তার মাতাসহ গ্রাম্য মাতব্বররা। গ্রাম্য মাতব্বরদের হুমকিতে স্কুল ছাত্রীর মাতা এ বিচার মানতে বাধ্য হয়।

এ ব্যাপারে গাতিপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি নাভারণ কলেজের অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল ও গাতিপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামারুল ইসলাম বলেন, ছেলেটি স্কুল ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর চেষ্টা চালায়। এ সময় ছেলেটি ছাত্রীর জামা কাপড় ছিড়ে ফেলে। স্থানীয় ভাবে বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে। তবে ঘটনাটি দু:খজনক।

শার্শা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা চৌধুরী হাফিজুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিষয়টি স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

ট্যাগ: