banglanewspaper

বিনোদন ডেস্ক: সাবেক মহাতারকার হঠাৎ মৃত্যু শুধু তাঁর দেশে নয় দেশের বাইরেও যথেষ্ট আলোড়ন তুলেছে। সারা উপমহাদেশজুড়ে জনপ্রিয় একসময়ের ড্রিম গার্ল শ্রীদেবীর জন্য তাই পাশের দেশ পাকিন্তানেও শোক জানিয়েছেন অনেকেই। পাকিস্তানি শোবিজের অনেক তারকাই শ্রীদেবীর প্রতি গভীর সমবেদনা ও শোক জানিয়েছেন। এঁদের মধ্যে আছেন মাহিরা খান, আলী জাফর, ফাওয়াদ খান আর ইমরান আব্বাসের মতো তারকারা। 

পাকিস্তানি অভিনেত্রী সজল আলী খান, যিনি শ্রীদেবীর সাথে তাঁর ছবি 'মম'-এ অভিনয় করেছিলেন, শ্রীদেবীকে 'মা' সম্বোধন করে লেখেন, আমি আমার আর একজন মাকে হারালাম। তিনি লেখেন, তাঁর সাথে আমার কাজের অভিজ্ঞতা ছিল অসাধারণ। তিনি খুব বড় মাপের অভিনয়শিল্পী ছিলেন। তিনি মার মতো যত্ন করে সব শেখাতেন। তিনি দারুণ কেয়ারিং ছিলেন, আমাকে তাঁর সন্তানের মতোই স্নেহ করতেন। আমার মনে হচ্ছে আমি আমার আর একজন মাকে হারালাম।

আদনান আলী সিদ্দিকী, যিনি 'মম' ছবিতে শ্রীদেবীর স্বামীর ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন, সমবেদনা জ্ঞাপন করে লেখেন, জীবন ভীষণ অনিশ্চিত। তিনি হয়তো ভীষণ মেধাবী ছিলেন না, তবে ছিলেন অসম্ভব সুন্দর মনের একজন মানুষ। শ্রীদেবী কাপুরের চলে যাওয়া আমাদের হৃদয়ে ক্ষত তৈরি করেছে।

আরেক পাকিস্তানি তারকা অভিনেত্রী মাহিরা খান তাঁর ট্যুইটার হ্যান্ডেলে শোক প্রকাশ করে লেখেন, তাঁর সময়ে বেড়ে উঠেছি, তাঁকে দেখে শিখেছি- এটাই বা কম কী! এর চেয়ে বড় আর কী থাকতে পারনে আমাদের জন্যে। আপনি ছিলেন ম্যাজিক্যাল। আমাদের সময়টাকে রঙিন করে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।

সেই সাথে পাকিস্তানের তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী মরিয়ম আওরঙ্গজেব একটি অনুষ্ঠানে শ্রীদেবীর জন্য শোক প্রকাশ করে বলেন, তিনি সত্যিকার অর্থেই একজন বড় মাপের অভিনেত্রী ছিলেন। আমরা একজন গুণীকে হারালাম।

পাকিস্তানের অন্যতম শীর্ষ চলচ্চিত্র পরিবেশক নাদিম মাদভিওয়ালা দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, শ্রীদেবীর সবচেয়ে সুন্দর ছবিগুলোর সময় পাকিন্তানে ভারতের ছবি নিষিদ্ধ ছিল। তিনি নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে বলেন, আমার ভিসিআরে তাঁর ছবি দেখতাম, মিস করতাম না। 

ইমরান আব্বাস তাঁর সোশাল হ্যান্ডেলে লেখেন, তিনি ছিলেন একজন আপাদমস্তক অভিনয়শিল্পী।

আরেক পাকিস্তানি অভিনেতা আলী জাফর তাঁর ট্যুইটার হ্যান্ডেলে লেখেন, আনন্দ আর অশ্রুর অনেক স্মৃতি রেখে গেলেন তিনি। 
সূত্র : ডিএনএ       

ট্যাগ: Banglanewspaper পাকিন্তান শোবিজ শ্রীদেবী শোক

বিনোদন
মিমের বিয়েতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত শাহরিন?

banglanewspaper

বিয়ের করেছেন চিত্রনায়িকা বিদ্যা সিনহা সাহা মিম। গত ৪ জানুয়ারি সেই বিয়ের আসর বসেছিল ঢাকার পাঁচ তারকা হোটেল রেডিসন ব্ল’তে। ওই অনুষ্ঠানে গিয়ে শোবিজের অনেকেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে খবর। এমনকী, মিমের পরিবারেরও অধিকাংশ সদস্যের রিপোর্ট পজিটিভ।

এবার জানা গেল, মিমের বিয়েতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ছোটপর্দার অভিনেত্রী ফারিয়া শাহরিনও। শুক্রবার রাতে সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যমে ফেসবুকে নিজের করোনা পজিটিভ হওয়ার খবর জানিয়ে এমন ইঙ্গিত অভিনেত্রী নিজেই দিয়েছেন।

শাহরিন লিখেছেন, ‘পজিটিভ। আমার জন্য দোয়া করবেন। সবাই জনসমাগমে যাওয়া বন্ধ করুন, মাস্ক পরুন। আমার মতো বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে যাবেন না। যদি ভাবেন, আপনি করোনার চেয়েও বেশি শক্তিশালী তাহলে শেষ। প্লিজ, দরকার ছাড়া কেউ বের হবেন না। বিয়ের সিজন বুঝলাম, কিন্তু বিয়ে খেতে গিয়ে মরবেন না।’

অভিনেত্রী আরও লেখেন, ‘আমি অনেক কষ্ট পাচ্ছি। আমার মতো কেউ ভয় পাবেন না, এটা আমার অনুরোধ। করোনার এই ভ্যারিয়েন্ট খুব বেশি দ্রুত ছড়াচ্ছে। তাই নিজের পরিবার, সন্তানদের কথা ভেবেও নিরাপদ থাকুন, নিরাপদ রাখুন।’

শাহরিনের দেওয়া স্ট্যাটাস থেকে এটা পরিষ্কার যে, সম্প্রতি তিনি কোনো বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়েই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যদিও সেটি মিমের বিয়ের অনুষ্ঠানই কিনা, তা অবশ্য সরাসরি লেখেননি ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’-এর অভিনেত্রী। তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন মাত্র।

ট্যাগ:

বিনোদন
তিনি এখন মাহিয়া সরকার মাহি

banglanewspaper

গাজীপুরের ব্যবসায়ী ও রাজনীতিক রাকিব সরকারকে বিয়ে করে অনেক কিছুই বদলে ফেলেছেন চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। পোশাকে এনেছেন পরিবর্তন, এরপর গত ডিসেম্বরে সৌদি আরবে গিয়ে স্বামীর সঙ্গে পালন করে এসেছেন উমরাহ হজ। এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের নামের সঙ্গে যোগ করে নিলেন স্বামী রাকিব সরকারের ‘সরকার’ পদবী।

এতদিন নায়িকার ফেসবুক পেজটি ছিল মাহিয়া মাহি নামে। শনিবার থেকে সেটি হয়ে গেছে মাহিয়া সরকার মাহি। অর্থাৎ, আগের নামে সার্চ দিলে এখন থেকে আর তাকে পাওয়া যাবে না। লিখতে হবে মাহিয়া মাহি সরকার। শনিবার নাম পাল্টানোর সঙ্গে সঙ্গে স্বামীর সঙ্গে তোলা তিনটি ছবিও পোস্ট করেন নায়িকা। ক্যাপশনে লেখেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ।’

কিন্তু ছবির ক্যাপশনে তিনবার ‘আলহামদুলিল্লাহ’ লেখার কারণ কী? এ প্রসঙ্গে মাহি বলেন, তিনি নিজের নামের সঙ্গে স্বামী রাকিব সরকারের ‘সরকার’ পদবীটি যোগ করেছেন। সেই খুশিতেই তিনবার আলহামদুলিল্লাহ লিখেছেন। এটা ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ বলেও জানান অভিনেত্রী।

গত বছরের ১৩ সেপ্টেম্বর রাকিব সরকারকে বিয়ে করেন মাহি। এর আগে ২০১৬ সালে মাহমুদ পারভেজ অপু নামে সিলেটের এক ব্যবসায়ীকে বিয়ে করেন নায়িকা। গত বছরের জুন মাসে তাদের ডিভোর্স হয়। তারও আগে ২০১৫ সালের ১৫ মে কাজী মো. সালাউদ্দিন ম্যারেজ রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে শাওন নামে একজনকে বিয়ে করেন মাহি।

২০১৬ সালে অপুকে বিয়ের পর শাওনের সঙ্গে নায়িকার বিয়ের বিষয়টি আলোচনায় আসে। শাওন-মাহির একাধিক ছবিও ফাঁস হয়। সে সময় মাহি সাইবার ক্রাইমে মামলা করেন। যদিও মামলার প্রতিবেদনে শাওনের সঙ্গে তার বিয়ের প্রমাণ পাওয়া যায়। ফলে আদালতের মাধ্যমে পরে সেই মামলা ঢিশমিশ হয়ে যায়।

ট্যাগ:

বিনোদন
এবার নির্বাচন ছাড়লেন পরীমনি, কারণ জানলে বাহবা দেবেন আপনিও

banglanewspaper

মনোনয়নপত্র কিনেও ইতোমধ্যে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন অসংখ্য ছবির সহ-অভিনেত্রী নাসরিন। আসন্ন নির্বাচনে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কার্যনির্বাহী সদস্য পদে লড়তে চেয়েছিলেন। কিন্তু মনোনয়ন জমা দেওয়ার আগেই তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান। এবার নাসরিনের পথে হাটলেন আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনিও।

আগামী ২৮ জানুয়ারি শিল্পী সমিতির ১৭তম নির্বাচনে এই অভিনেত্রীও কার্যনির্বাহী পদে লড়তে চেয়েছিলেন। এক ধাপ এগিয়ে পরীমনি গত বুধবার মনোনয়নপত্র জমা দেন এবং চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকায় তার নামও আসে। ইলিয়াস কাঞ্চন ও নিপুণদের প্যানেল থেকে তিনি প্রার্থী হয়েছিলেন। কিন্তু শনিবার পরীমনি জানিয়ে দিলেন, তিনি নির্বাচন করছেন না।

কিন্তু কেন সরে দাঁড়ালেন অভিনেত্রী? এ প্রসঙ্গে পরীমনি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি মা হতে চলেছি। ডাক্তার আমাকে সম্পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে চলেছেন। আমার অনাগত সন্তানের জন্মের আগে আমি কোনো ধরনের ঝুঁকি নিতে চাই না। নির্বাচন করতে গেলে মিনিমাম সময় দেওয়া লাগে। কিন্তু সেই সময়টা আমি এই মুহূর্তে দিতে পারছি না। তাই সরে দাঁড়িয়েছি।’

‘আমি মা হচ্ছি। আমার শারীরিক অবস্থা ভালো না। গতকাল রাত পর্যন্ত আমি শুটিং করেছি। ডাক্তার আমাকে পুরোপুরি বিশ্রামের পরামর্শ দিয়েছেন। অনাগত সন্তানের কথা ভেবে তাই আমি কোনো ঝুঁকি নিতে চাচ্ছি না। নির্বাচনে আমি একদমই সময় দিতে পারছি না। তাই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

পরীমনি আরও বলেন, ‘নির্বাচনের আগেই আমার চিকিৎসার জন্য ভারতে যেতে হবে। আমাদের প্যানেলের প্রার্থীদের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। আমি তাদেরকে আমার শারীরিক অবস্থার কথা জানিয়েছি। এরপর নিজের ইচ্ছায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

এছাড়া নায়িকার স্বামী অভিনেতা শরিফুল রাজও জানিয়েছেন যে, শারীরিক পরিস্থিতি বিবেচনায় পরীমনি নির্বাচন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

বিষয়টি নিয়ে ইলিয়াস-নিপুণ প্যানেলের সহ-সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী নায়ক সায়মন সাদিক গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘পরীমনি তার শারীরিক অবস্থা ও সিদ্ধান্তের কথা আমাদের জানিয়েছেন। আমরা বিষয়টি নিয়ে নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে কথা বলব। তিনিই বাকি সিদ্ধান্ত নেবেন। যদিও মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় শেষ।’

এদিকে, এবার শিল্পী সমিতির নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্বে থাকা অভিনেতা পীরজাদা হারুনও বলেছেন একই কথা। তিনি বলেন, ‘এখন আর প্রার্থীতা প্রত্যাহার করার কোনো সুযোগ নেই। তবে পরীমনি চাইলে নির্বাচনে অংশগ্রহণ নাও করতে পারেন।’

গত ১০ জানুয়ারি আচমকাই পরীমনি ফেসবুকের মাধ্যমে জানান, তিনি মা হতে চলেছেন। জানান সন্তানের বাবার পরিচয়ও। তিনি পরীমনির ‘গুনিন’ ছবির নায়ক শরিফুল রাজ। পরে নায়িকা জানান, তারা গত ১৭ অক্টোবর বিয়ে করেছেন। হতে যাচ্ছেন মা। অনাগত সেই সন্তানের জন্যই ছাড়লেন শিল্পী সমিতির নির্বাচন।

ট্যাগ:

বিনোদন
ফের কি সন্তান দত্তক নিলেন সুস্মিতা?

banglanewspaper

২০০০ সালে মাত্র ২৫ বছর বয়সে কন্যাসন্তান রেনেকে দত্তক নিয়ে গোটা বিশ্বকে চমকে দিয়েছিলেন বলিউড অভিনেত্রী ও সাবেক ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ সুস্মিতা সেন। সমাজের চোখ রাঙানির তোয়াক্কা করেননি। যার কারণে ২০১০ সালে আরও একটি কন্যাসন্তান দত্তক নেন নায়িকা। নাম আলিশা।

তারও ১১ বছর বাদে নতুন করে গুঞ্জন, আরও একটি সন্তান দত্তক নিয়েছেন সুস্মিতা সেন। এবারের সন্তানটি ছেলে। বুধবার রাতে মুম্বাইয়ে দুই মেয়ে রেনে ও আলিশাকে নিয়ে এক ছেলে বাচ্চার সঙ্গে লেন্সবন্দি হন অভিনেত্রী। সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই জল্পনার সূত্রপাত।

ওই ছবিতে দেখা যায়, সুস্মিতা ও তার দুই কন্যা এবং হলুদ টি-শার্ট এবং ব্লু ডেনিম পরা এক শিশু পুত্র। যাকে সুস্মিতা ‘গডসন’ বলে উল্লেখ করেছেন। ছবি শিকারিদের দাবি, নায়িকা ওই শিশুপুত্রকে দত্তক নিয়েছেন। যদিও এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছুই জানাননি সুস্মিতা।

এদিকে বলিউড লাইফের রিপোর্ট বলছে, ওই মিষ্টি বাচ্চাটি আসলে অভিনেত্রীর এক ঘনিষ্ঠ বান্ধবীর সন্তান। তাকে দত্তক নেননি সুস্মিতা। কিন্তু তাতে গুঞ্জন থামেনি। তৃতীয় সন্তান দত্তক নেওয়ায় অভিনেত্রীকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছেন নেটিজেনরা।

ট্যাগ:

বিনোদন
খুনের আসামিকে নিয়ে গানের ভিডিও, ব্যাখ্যা দিলেন পলাশ

banglanewspaper

বগুড়ার একাধিক হত্যা মামলার আসামি হেলাল হোসেন। তার মধ্যে একটি মামলায় তিনি যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত। অথচ গত ২০ বছর ধরে কিনা সেলিম ফকির ওরফে বাউল সেলিম নাম নিয়ে দেশের ভেতরেই ছদ্মবেশে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন এই সিরিয়াল কিলার। অবশেষে সেই খুনি ধরা পড়েছে র‌্যাবের জালে।

আরও একটি চমকপ্রদ খবর হলো, এই সিরিয়াল কিলারই ছয় বছর আগে গায়ক কিশোর পলাশের একটি মিউজিক ভিডিওতে অভিনয় করেছিলেন। নাম ‘ভাঙা তরী ছেঁড়া পাল’। যেটি ইউটিউব চ্যানেল জি-সিরিজ মিউজিকে প্রকাশ পেয়েছিল। সেখানে কয়েক সেকেন্ডের জন্য দেখা গিয়েছিল বাউল বেশধারী এক ব্যক্তিকে।

সেই মিউজিক ভিডিওর সূত্র ধরেই র‌্যাবের হাতে ধরা পড়ে হেলাল ওরফে সেলিম। র‌্যাবের দাবি, বাউল বেশধারী ওই ব্যক্তি আসলে দুর্ধর্ষ এক খুনি। যিনি অন্তত তিনটি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত এবং যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি।

এ ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন ‘ভাঙা তরী ছেঁড়া পাল’ মিউজিক ভিডিওর গায়ক কিশোর পলাশ। তিনি বলেন, ‘আমাদের এই গানের কোনো মডেল ছিল না। শুটিং লোকেশনে যাকে পেয়েছি তাকেই মডেল হওয়ার প্রস্তাব দিই, যদি সে আমাদের গল্পের সঙ্গে মেলে। সে কারণে আমাদের গানে একজন মুচি, রাস্তার মানুষ এবং ওই বাউলশিল্পী আছেন। আসলে ওই বাউল বেশধারী যে একজন সিরিয়াল কিলার তা আমরা বুঝতেই পারিনি।’

বাউলকে খুঁজে পাওয়ার ঘটনা জানিয়ে পলাশ বলেন, ‘আমরা নারায়ণগঞ্জ রেল স্টেশনের আশেপাশে শুটিং করছিলাম। হঠাৎ বাউল সেলিমকে দেখতে পাই রেললাইন দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন। যেহেতু আমাদের গানটি ফোক ও আধ্যাত্নিক ধরনের, তাই মনে হল, লোকটাকে ভিডিওতে অল্প সময়ের জন্য ধরতে পারলে ভালো হবে। তাকে বললাম, সে এককথায় রাজি। শুটিংও করলাম।’

গায়ক আরও বলেন, ‘ছয় বছর আগে আমরা এই শুটিং করি। এখন জানতে পারলাম লোকটি সিরিয়াল কিলার। ভাবতেই কষ্ট হচ্ছে যে আমার একটা জনপ্রিয় গানের মডেল একজন খুনি।’ পাশাপাশি পলাশ এও বলেন, কাজটি নাকি একদিক থেকে ভালোই হয়েছে। কারণ, তাদের গানের সূত্রে একজন সাজাপ্রাপ্ত খুনের আসামি ধরা পড়েছে।

ট্যাগ: