banglanewspaper

ওমর ফারুক, বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি : স্রষ্টার সৃষ্টির সেরা নিদর্শন পাহাড়-নদী। নদীকে কেন্দ্র করেই যুগে যুগে গড়ে উঠেছে হাজারো সভ্যতা। তার সৃষ্টির আরেক সৃষ্টি বান্দরবানের নাফাকুম ও রেমাক্রী জলপ্রপাত। পাহাড়ের কিনারা বেয়ে বয়ে চলা নদীর সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে চাইলে চলে যেতে হবে থানছির রেমাক্রী।

দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা পর্যটকরা এখন ভিড় করছে বান্দরবানের থানছি উপজেলার পাশাপাশি দুই ইউনিয়ন তিন্দু ও রেমাক্রী। জেলা শহরে নেমে চাঁদের গাড়ি নিয়ে তিন ঘন্টা পাহাড়ি পথ পাড়ি দিয়ে ছুটে যাচ্ছে বান্দরবান থেকে ৮০ কিলোমিটার দূরে থানছি উপজেলায়। সেখান থেকে অকটেন চালিত ইঞ্জিন বোটে চড়ে ২০কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে রেমাক্রী। পাহাড়ি পল্লীতে রাত্রিযাপন শেষে পরদিন ৮কিলোমিটার পথ পায়ে হেটে পাড়ি দিয়ে চলে যাচ্ছে বাংলার নায়েগ্রা খ্যাত নাফাখুম ঝর্ণায়। রোমাঞ্চকর এ যাত্রায় দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে ক্লান্ত পর্যটকরা নাফাখুমের সৌন্দর্য্য দেখে বিমোহিত আর মুহূর্তেই দূর হয়ে যায় সব ক্লান্তি। ঝর্ণায় গোসল করে তারা আবার সতেজ প্রাণবন্ত হয়ে যায়। তবে বর্ষাকাল হওয়ায় নদীতে পানি থাকায় এখন পায়ে হাঁটার কষ্ট অনেকটাই কমে গেছে। বোটে চড়ে বেশিরভাগ অংশই পাড়ি দেয়া যায়। শীতকালে সাঙ্গু নদীতে পানি শুকিয়ে যায় তাই পায়ে হেটে যেতে হয় পুরোটা পথ। তাই নাফাখুম যাওয়ার জন্য বর্ষাকালকেই বেছে নিচ্ছে পর্যটকরা। হাটার কষ্ট কম হওয়ায় নারী-পুরুষ-শিশু বৃদ্ধরাও ছুটে যাচ্ছে নাফাখুমের সৌন্দর্য দেখতে।

থানছি সদরে পৌঁছে পুলিশের কাছে পরিচয়পত্র অথবা এনআইডি কার্ড জমা দিয়ে নাম এট্রি করে নিতে হবে। বিজিবি ক্যাম্পে গিয়ে সেই নির্ধারিত ফরম জমা দিয়ে বোট ভাড়া করে যাত্রা শুরু করতে হবে রেমাক্রীর উদ্দ্যেশে। তবে সবার আগে একজন গাইড নিতে হবে। যে এসব কাজে সবধরণের সহযোগিতা করবে। দূর্গম জায়গা হওয়ায় নিজের নিরাপত্তার জন্য গাইড অত্যাবশ্যক।

থানছি সদর থেকে যাত্রা শুরু করে নদীর দুই পাশের সৌন্দর্য্য দেখতে দেখতে দুই ঘন্টায় পৌঁছে যাবেন রেমাক্রীতে। সেখানে রেমাক্রী জলপ্রপাতের সৌন্দর্য্য মুগ্ধ হওয়ার মত। ১০০কিলোমিটার যাত্রার ক্লান্তি দূর করতে নিজেকে ভিজিয়ে নিতে পারেন জলপ্রপাতের পানিতে। গোসল শেষ করেই উঠে যেতে পারবেন ভাড়া করা কটেজে। হা বিড়ম্বনা এড়াতে কটেজ অবশ্যই থানছিতে থাকা অবস্থায় বুকিং দিতে হবে। সেখানে সব কটেজই পাহাড়িদের। হাজার টাকায় মিলবে থাকার জন্য রুম। খাবার হোটেলও আছে। মুরগির মাংস, ডাল, আলু ভর্তা এসব পাওয়া যায়। দেড়শ টাকায় মিলবে একজনের খাবার। দূর্গম জায়গায় এমন খাবার পাওয়ায় খুশি পর্যটকরাও।

ঢাকা থেকে স্বপরিবারে বেড়াতে আসা পর্যটক সোনিয়া আক্তার বলেন, খুবই সুন্দর একটি জায়গা। যাওয়ার পথে নদীর দুপাশের দৃশ্যগুলো অসাধারণ। আসতে একটু কষ্ট হলেও নাফাখুমের সৌন্দর্য্য দেখে সব কষ্ট দূর হয়ে গেছে। এটার গল্প অনেক শুনছি, কিন্তু বাস্তবে এটা তার চেয়েও সুন্দর। এখানে না আসলে সেটা কখনোই বুঝা সম্ভব নয়।

ঢাকা থেকে বেড়াতে আসা আরেক পর্যটক আবু জাফর বলেন, এখানে অল্প টাকায় থাকার খুব সুন্দর ব্যবস্থা আর খাবারগুলো খুব সুস্বাদু। এতো দূরে এসে এত ভালো খাবার পাব, চিন্তাও করিনি। খাবারের দামও অনেক কম। তবে থাকার জায়গা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম। সরকারীভাবে যদি আরো কিছু কটেজ করা হয় তাহলে আরো ভালো হত।

তিনি আরও বলেন, দিন দিন এখানে পর্যটকের সংখ্যা বাড়ছে। নাগরিক জীবনের ব্যস্ততা আর কর্মজীবনের ক্লান্তি ভুলতে ছুটির দিনে মানুষ ছুটে যাচ্ছে পাহাড় আর ঝর্ণার সৌন্দর্য্য দেখতে। মোবাইল নেট না থাকায় প্রাত্যহিক জীবনের কারো সাথে যোগাযোগও থাকবে না। নিশ্চিন্ত মনে উপভোগ করা যায় প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। পর্যটক পেয়ে খুশি সেখানকার ব্যবসায়ীরাও।

রেমাক্রী বাজারের ব্যবসায়ী ও ২নং তিন্দু ইউপি চেয়ারম্যান মং প্রু অং মার্মা  বলেন, পর্যটকের আনাগোনা আগের চেয়ে বেড়েছে। থাকার জায়গা দিয়ে সংকুলান করতে পারছি না। আগে তেমন আসতো না। তবে এখন বেশি পর্যটক আসায় আমাদের ব্যবসাও ভাল হচ্ছে। চেষ্টা করছি আরো কিছু কটেজ করার। যাতে পর্যটকরা আরামে থাকতে পারে।

তিনি বলেন, নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কার কোন কারন নেই। বিজিবির পক্ষ থেকে রয়েছে সতর্ক নজরদারী। রয়েছে মোবাইল টহলও। আর পুলিশের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার বলেন, পর্যটকদের জন্য বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। কোথাও কোন পর্যটক হয়রানির শিকার হলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য টুরিস্ট পুলিশের ভ্রাম্যমান টিম রয়েছে। এছাড়াও থানছির পর্যটকদের জন্য পুলিশের কাছে নাম এন্ট্রির ব্যবস্থা করা হয়েছে। যাতে কোথাও কোন পর্যটক মিসিং হলে সাথে সাথে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়।

ট্যাগ: banglanewspaper নাফাকুম বান্দরবান

ভ্রমণ
ঢাকার কাছাকাছি জনপ্রিয় কয়েকটি পর্যটন স্পট

banglanewspaper

ঈদের ছুটিতে ঢাকার বাইরে যাওয়ার সুযোগ হবে না সবার। যারা ঢাকা থাকবেন তারা চাইছেন আশপাশে কোথাও থেকে ঘুরে আসবেন। কম সময়ে পরিবার নিয়ে ঢাকার কাছাকাছি ঘোরা যায় এমন অনেক সুন্দর জায়গা আছে। যেখানে আপনি একদিনে ঘুরে আসতে পারবেন। ঢাকার অদূরে জনপ্রিয় কয়েকটি টুরিস্ট স্পট সম্পর্কে জানুন—

লালবাগ কেল্লা

পুরান ঢাকার লালবাগে অবস্থিত লালবাগ কেল্লা। মোঘল আমলে স্থাপিত এই দুর্গটি একটি ঐতিহাসিক নিদর্শন। দেশের অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটনস্থলও এটি। পুরান ঢাকার ভিড় ঠেলে কেল্লার সদর দরজা দিয়ে ঢুকলেই চোখে পড়ে পরী বিবির মাজার। এখানে আছে দরবার হল, নবাবের হাম্মামখানা। আছে শাহী মসজিদ। রয়েছে একটি জাদুঘরও। সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে এটি।

আহসান মঞ্জিল

নামে হয়তো আহসান মঞ্জিলকে অনেকেই জানেন। কিন্তু পুরান ঢাকার যানজটের কথা চিন্তা করে অনেকেই ওদিকে পা বাড়ান না। তবে এই ফাঁকা ঢাকায় একবার ঢু মারতে পারেন আহসান মঞ্জিলে। ইসলামপুরে বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে মোঘল আমলের ঐতিহ্য নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে আহসান মঞ্জিল। খোলা থাকে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত।

পানাম নগর

সোনারগাঁ একটি গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল পানাম নগর। উনিশ শতকের প্রথম দিকে এটি বিখ্যাত হয়ে ওঠে। ইংরেজরা এটিকে ব্যবসা-বাণিজ্যের কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলে মূলত ঢাকাই মসলিন কাপড়ের কেনাবেচার জন্য। এ ছাড়াও মুঘল আমলে এই এলাকায় বেশ কিছু ব্রিজ নির্মাণ এবং অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হয়। এসব ঐতিহাসিক স্থাপনার ধ্বংসাবশেষ এখনো আপনার জন্য অপেক্ষা করে আছে পানাম নগরে।

পদ্মা রিসোর্ট

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থানা সংলগ্ন পদ্মার বিস্তৃত চরজুড়ে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপরূপ নিদর্শন পদ্মা রিসোর্ট। এ রিসোর্টে দিনদিন পর্যটন বাড়ছে। পদ্মা রিসোর্ট দেখলে মনে হবে চরে যেন সেন্টমার্টিন দ্বীপ জেগে আছে। সাড়ে তিন শ শতাংশ জমির বিশাল বিস্তৃত চরে প্রকৃতির এক অপার সৌন্দর্য নিয়ে পদ্মা রিসোর্টের কটেজগুলো (কুড়েঘর) নির্মাণ করা হয়েছে। নদীরপাড় সংলগ্ন পদ্মা নদীঘেরা চরের মধ্যে কুড়েঘর ও প্রাকৃতিক পরিবেশ পদ্মা রিসোর্টকে মনোমুগ্ধকর করে রেখেছে।

ড্রিম হলিডে পার্ক

ড্রিম হলিডে পার্ক ঢাকার পাশেই নরসিংদী জেলায় অবস্থিত অন্যতম থিম পার্ক। পরিবার পরিজনদের সারাদিন হৈচৈ আর আনন্দে মাতামাতি করতে অথবা পিকনিকের আয়োজন করতে চাইলে ঘুরে আসতে পারেন এখান থেকে। রাতে থাকার জন্যও রিসোর্টে রয়েছে সুব্যবস্থা।

নিকলী হাওর

খোলামেলা পরিবেশে স্নিগ্ধ প্রকৃতির ছোঁয়া পেতে ঘুরে আসতে পারেন কিশোরগঞ্জের নিকলী হাওর থেকে। ঢাকা থেকে বাসে বা ট্রেনে যেতে পারেন কিশোরগঞ্জ শহরে, সেখান থেকে সিএনজিতে করে নিকলী ঘাট। ঘাট থেকে নৌকা ভাড়া করে ঘুরে দেখুন হাওর। মনে রাখবেন, বর্ষার শেষ দিকে হাওর ভ্রমণের উপযুক্ত সময়।

আড়িয়াল বিল

ঢাকার খুব কাছেই মুন্সিগঞ্জের এক ঐতিহ্যবাহী অঞ্চল আড়িয়াল বিল। এটি নিয়ে মানুষের মধ্যে বেশ আগ্রহ। বিলের পানিতে পা ডুবিয়ে চমৎকার একটা দিন পার করতে পারেন।

মুড়াপাড়া জমিদার বাড়ি

ঢাকা থেকে কাঁচপুর ব্রিজ পার হয়ে বামে রূপগঞ্জ উপজেলা। একটু সামনেই রূপসী বাসস্টেন থেকে সিএনজি করে মুড়াপাড়া জমিদার বাড়ি।

বাংলার তাজমহল

২০০৮ সালে সোনারগাঁয়ে আগ্রার তাজমহলের আদলে নির্মিত হয় ‘বাংলার তাজমহল’। বিভিন্ন স্থানে বসানো টাইলস, বিদেশি ডায়মন্ড পাথর, গম্বুজের ওপরে ব্রোঞ্জের তৈরি চাঁদ-তারায় দৃষ্টিনন্দন এ তাজমহল।

ট্যাগ:

ভ্রমণ
কক্সবাজারের আকাশে রোমাঞ্চকর প্যারাসেইলিং

banglanewspaper

আকাশে উড়ে পাহাড়, সমুদ্র দেখার সাধ কার না মনে জাগে! আজন্ম লালিত এই সাধ পূরণ করা সম্ভব প্যারাসেইলিংয়ের মাধ্যমে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পর্যটকদের কাছে প্যারাসেইলিংয়ের কদর অনেক। বাংলাদেশে প্যারাসেইলিং করে রোমাঞ্চর অভিজ্ঞতা নেয়ার সুযোগ রয়েছে। পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে প্যারাসেইলিং করা যায়। বেশ কয়েক বছর ধরে কক্সবাজার ভ্রমণ আসা পর্যকটরা প্যারাসেইলিংয়ের আনন্দ নিচ্ছেন।

কক্সবাজার শহর থেকে প্রায় ৬ কিলোমিটার দূরে সৈকতের হিমছড়ি দরিয়ানগর পয়েন্টে মেরিন ড্রাইভের দক্ষিণ পাশের সৈকতে প্যারাসেইলিং করা হয়। দুইটি প্রতিষ্ঠান সেখানে পর্যটকদের জন্য প্যারাসেইলিংয়ের আনন্দ উপভোগের সুযোগ দিচ্ছেন। সেখানে গেলেই চোখে পড়বে প্যারাসুটে চড়ে মানুষ আকাশে উড়ছে। নিচে উত্তাল সমুদ্র।

প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত প্যারাসেইলিংয়ের সৌন্দর্য উপভোগ করতে দরিয়ানগরে ভিড় করেন পর্যটকরা। এ আনন্দ পেতে ব্যয় করতে হবে দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা।

একটি প্যারাসুটে বেঁধে দেওয়া হবে আপনাকে, একটি স্পিড-বোট আপনাকে টেনে নিয়ে যাবে সমুদ্রে, আর সেই তীব্র গতিতে আপনি ঠিক একটা ঘুড়ির মতই উড়তে থাকবেন।

পাখির মতো সমুদ্রের উপর দিয়ে উড়ে বেড়ানোর একমাত্র উপায় প্যারাসেইলিং। রোমাঞ্চকর এ প্যারাসেইলিং এর স্বাদ নেওয়ার সবচেয়ে সুন্দর স্থান হলো সৈকত। বর্তমানে দরিয়ানগরে দুইটি প্রতিষ্ঠান থেকে প্যারাসেইলিং করার ব্যবস্থা আছে।

প্যারাসেইলিং করার কয়েকটি প্যাকেজ আছে। খরচ পড়বে ২০০০ থেকে ২৫০০ টাকা। ২০০০ টাকার রাইডে আপনি শুধু আকাশে উড়তে পারবেন। ২৫০০ টাকার রাইডে আপনি আকাশেও উড়তে পারবেন আবার নামার সময় সমুদ্রের পানিতে হালকা পা স্পর্শও করতে পারবেন।

৫ থেকে ১০ মিনিট পর্যন্ত আপনি প্যারাসেইলিংয়ের মাধ্যমে পাখির মতো আকাশে উড়তে পারবেন। ৩০০-৫০০ ফুট পর্যন্ত উপরে ভেসে বেড়াবেন।

১২ বছরের নিচে, দুর্বলচিত্তের মানুষ কিংবা হার্টের রোগী ছাড়া সবাই নিশ্চিন্তে প্যারাসেইলিং করতে পারেন। তবে আপনার যদি উচ্চতা ভীতি থাকে তবে প্যারাসেইলিং না করাই ভালো।

প্যারাসেইলিং করার আগে অবশ্যই উড্ডয়নকারীকে একটি বন্ডে সই করতে হয়। বন্ডে লেখা থাকে প্যারাসেইলিংয়ের সময় কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে তার দায় নেবে না সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান। তাই কিছুটা ঝুঁকি নিয়েই আপনাকে এই উপভোগ করতে হবে।

যদিও যান্ত্রিক ত্রুটি কিংবা দুর্ঘটনার জন্য সবসময় প্রস্তুত থাকে প্যারাসেইলিং রাইড সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান। এজন্য একটি স্পিডবোট, একটি জেট স্কি রেডি থাকে আপদকালীন সময়ের জন্য।

প্যারাসেইলিংয়ের সময় হাতে মোবাইল ফোন, চোখে চশমা না রাখাই ভালো। আকাশে ওড়ার রোমাঞ্চকর এই দৃশ্য ধারণ করতে চাইলে বডি মাউন্টেড অ্যাকশন ক্যামেরা ব্যবহার করতে পারেন। তবে সেলফি স্টিকের মাধ্যমে ফোনে ভিডিও ধারণ না করাই ভালো। হাত থেকে ফসকে সাগরে আপনার ফোনের সলিল সমাধি হতে পারে।

ট্যাগ:

ভ্রমণ
নিকলী হাওর ভ্রমণের খুঁটিনাটি

banglanewspaper

“বাংলার মুখ আমি দেখিয়াছি তাই পৃথিবীর রূপ খুঁজিতে চাই না আর” কবি জীবনানন্দ দাশের উক্তির সঙ্গে মিলে বলতে হয় যে প্রকৃতির অকৃত্রিম, অনাবিল ও অফুরন্ত সৌন্দর্যের লীলাভূমি বাংলাদেশ। এর প্রতি পরতে পরতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে পাহাড়, নদী ও হাওরের নির্মল উজ্জ্বলতা। এমনই এক অপরূপ সৌন্দর্যমন্ডিত স্থান কিশোরগঞ্জের নিকলী হাওর।

কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলায় অবস্থিত এই হাওর সদর থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। বর্ষাকালে হাওরের দখিনা বাতাসে নৌকার ভেসে চলা, দ্বীপের মত গড়ে ওঠা ঘরবাড়ির সৌন্দর্য এক অপরূপ দৃশ্যপট তৈরি করে। আবার শুষ্ক মৌসুমে রূপ পাল্টিয়ে ভিন্ন সাজে সেজে ওঠে পুরো হাওর এলাকা। জ্যোৎস্না রাতে নিকলী হাওরের সৌন্দর্য কয়েকগুণ বেড়ে যায়। হাওরের তরতাজা মাছের স্বাদ পেতে, স্বচ্ছ পানির খেলা দেখতে, দ্বীপের বুকে ভেসে থাকা ছোট ছোট গ্রামের অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করতে চাইলে ঘুরে আসতে পারেন নিকলী হাওর।

উপযুক্ত সময়

হাওরের পানির রূপ দেখতে হলে নিকলী ভ্রমণের উপযুক্ত সময় জুলাই থেকে আগস্ট মাস। বর্ষাকালে দিগন্ত বিস্তৃত জলরাশির বুকে নৌকায় ঘুরে বেড়ানো সবচেয়ে উপভোগ্য। হাওরের ভিন্ন রূপ দেখার জন্য যেকোনো সময় যেতে পারেন।

নিকলী যাওয়ার উপায়

ঢাকা থেকে বাস কিংবা ট্রেন দুই ধরনের যানবাহনই ব্যবহার করতে পারবেন নিকলী হাওরে যাওয়ার জন্য। তবে কিশোরগঞ্জ, ভৈরব কিংবা আশেপাশের এলাকা থেকে সিএনজি করে যাওয়া যায়।

ঢাকা থেকে ট্রেনে যাওয়ার উপায়: ঢাকা থেকে ট্রেনে গিয়ে একদিনে ঘুরে আসা সম্ভব নিকলী হাওর। এ জন্য আন্তঃনগর এগারো সিন্ধু ট্রেনে উঠতে হবে। এই ট্রেন বুধবার বন্ধ থাকে। সপ্তাহের ৬ দিনই কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে সকাল ৬টায় ছেড়ে বিমানবন্দর, টঙ্গী, নরসিংদী ও ভৈরব স্টেশন হয়ে কিশোরগঞ্জ পৌঁছায়। শ্রেণি অনুসারে ট্রেনের টিকেট ভাড়া ১২৫-২৫০ টাকা। ট্রেনে গেলে সকাল ১১ টার মধ্যে গচিহাটা স্টেশনে পৌঁছানো সম্ভব। স্টেশন থেকে ইজিবাইকে জনপ্রতি ভাড়া নেবে ৩৫ টাকা। রিজার্ভ সিএনজি নিলে ৩০০-৩৫০ টাকা ভাড়া নেবে। এতে সময় লাগবে ১ ঘণ্টা। একদিনে ভ্রমণ করে ফেরার সময় বাসে আসতে হবে।

ঢাকা থেকে বাসে নিকলী ভ্রমণের উপায়:

বাসে নিকলী হাওরে যেতে হলে আপনাকে অবশ্যই ঢাকার গোলাপবাগ, শনির আখড়া, সাইনবোর্ড থেকে যাতায়াত কিংবা অনন্যা সুপার সার্ভিস বাসে উঠতে হবে। প্রতিদিন ভোর ৫.৩০ মিনিট থেকে ১৫ মিনিট পরপর বাস ছেড়ে যায়। বাস ভাড়া জনপ্রতি ১৯০-২২০ টাকা। বাসে আসলে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি স্টেশনে আসতে সময় লাগবে সাড়ে তিন ঘণ্টা, সেখান থেকে সিএনজি রিজার্ভে ভাড়া খরচ হবে ৩৫০-৪০০ টাকা এবং নিকলী যেতে সময় লাগবে ১ ঘণ্টা ২০ মিনিট। কিশোরগঞ্জ বা ভৈরব থেকেও রিজার্ভ সিএনজি নিয়ে যাওয়া যায় নিকলী হাওরে। এতে সময় ও ভাড়া খরচ হবে কম।

খাবার ব্যবস্থা:

নিকলী হাওরে ভাল মানের খাবার হোটেল আছে। এর মধ্যে হোটেল সেতু, ক্যাফে ঢেউ সবচেয়ে ভাল। হাওরের তাজা মাছ ও লোভনীয় অনেক খাবার দিয়ে পেট ভরে খেতে পারবেন এসব হোটেলে।

কীভাবে ঘুরবেন:

হাওরের সৌন্দর্য দেখতে হলে অবশ্যই আপনাকে নৌকা ভ্রমণ করতে হবে। নৌকা ভ্রমণ করার জন্য ছোট বা বড় নৌকা ভাড়া করতে পারেন। ছোট নৌকায় ঘণ্টায় ভাড়া ৪০০-৫০০ আর বড় নৌকায় ঘণ্টায় ভাড়া নিবে ৭০০-৮০০। নৌকায় ভাসতে ভাসতে হাওরের চারপাশের মনোমুগ্ধকর রূপ দেখতে দেখতে প্রথমে যাবেন ছাতিরচর গ্রামে। বর্ষায় পানি বেশি থাকে বিধায় হাওরে গোসল করতে পারেন। তবে নিরাপত্তার জন্য লাইফ জ্যাকেট নিয়ে যাওয়া ভাল। জলাবনের সৌন্দর্য উপভোগ করতে চলে যান মনপুরায়। আধো ভাসমান চরে কিছুক্ষণ সময় কাটান। উন্মুক্ত হাওরে শেষ বিকেলের চমৎকার দৃশ্য দেখতে পুনরায় ফিরে আসেন নিকলী বেড়িবাঁধে। ফিরে আসার জন্য কটিয়াদি বাস স্টেশন থেকে সন্ধ্যার বাসে উঠে পড়ুন।

থাকতে হলে করনীয়

নিকলী তে খুব ভাল মানের আবাসিক হোটেল নেই। রাত থাকতে হলে আপনাকে কিশোরগঞ্জ সদরে চলে আসতে হবে। চাইলে নৌকায় বা ক্যাম্পিং করে রাত কাটাতে পারেন। এতে নিরাপত্তার কথা মাথায় রাখতে হবে।

নিকলীর আরও কিছু দর্শনীয় স্থান:

গুরই শাহে জামে মসজিদ, নিকলী বেড়িবাঁধ, পাহাড় খার মাজার, গুরই প্রাচীনতম আখড়া।

ট্যাগ:

ভ্রমণ
বিশ্ব পর্যটন দিবস আজ

banglanewspaper

আজ বিশ্ব পর্যটন দিবস। কভিড-১৯ মহামারির ধাক্কায় সবচেয়ে বিপর্যস্ত খাত হিসেবে অনিশ্চয়তার সামনে দাঁড়িয়ে এ বছর পালিত হচ্ছে দিবসটি। জাতিসংঘের বিশ্ব পর্যটন সংস্থা এ বছর দিবসটির মূল প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে ‘পর্যটন ও গ্রামীণ উন্নয়ন’।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর বিশ্বজুড়ে পর্যটন শিল্পের বিকাশ ঘটলে ১৯৭০ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন সংস্থা গঠনের প্রস্তাব অনুমোদন করে জাতিসংঘ। তবে সংস্থাটি পূর্ণাঙ্গ কার্যক্রম শুরু করে ১৯৭৪ সালে। সংস্থার বার্ষিক সম্মেলনে ১৯৮০ সালে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালনের প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে তারা এ বছর বিশ্ব পর্যটন দিবসের প্রতিপাদ্য ‘গ্রামীণ উন্নয়নে পর্যটন’কে অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে বলে মন্তব্য করেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের বিকাশে অফুরন্ত সম্ভাবনা রয়েছে। এই সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে দেশের পর্যটন শিল্পের উন্নয়নে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগের পাশাপাশি গ্রামীণ জনগোষ্ঠীকে অংশগ্রহণের সুযোগ করে দিতে হবে।’ একই সাথে বিশ্ব দরবারে দেশের পর্যটন শিল্পকে কার্যকরভাবে তুলে ধরার উপরও গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোক্তাদের স্বতস্ফুর্তভাবে এগিয়ে আসার উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘সরকারের উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় অদম্য বাংলাদেশের অন্যতম এজেন্ডা ‘গ্রাম হবে শহর’ যা এ বছর জাতিসংঘ বিশ্ব পর্যটন সংস্থা কর্তৃক ঘোষিত প্রতিপাদ্যের সাথে অত্যন্ত সংগতিপূর্ণ। পর্যটন বিশ্বে শ্রমঘন এবং সর্ববৃহৎ শিল্প হিসেবে স্বীকৃত।’ 

ট্যাগ:

ভ্রমণ
করোনাকালে বিনামূল্যে বিশ্বভ্রমণ!

banglanewspaper

করোনাভাইরাস প্রায় গোটা বিশ্বকে কবজা করার পর ভ্রমণের ইচ্ছা শুধু যেন স্বপ্নই হয়ে উঠেছিল। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে অনেক দেশ নিজস্ব সীমান্ত বন্ধ করেছে। দেশের মধ্যেও ভ্রমণের ওপর কড়াকড়ি দেখা গেছে। প্রায় ২০০ কোটি মানুষকে লকডাউনের ফলে কার্যত গৃহবন্দি থাকতে হয়েছে। শুধু মানুষ নয়, প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ যাত্রীবাহী বিমান আকাশে উড়তে পারেনি। এমন জরুরি পরিস্থিতিতে জনপ্রিয় অনেক শহর ও অঞ্চল বিনামূল্যে ভার্চুয়াল ভ্রমণের সুযোগ করে দিয়েছে।

যেমন চীনের প্রাচীর বরাবর হাঁটার সুযোগ পাওয়া যাচ্ছে। পেরুর বিখ্যাত মাচুপিচু পর্বত নিজের মতো করে আবিষ্কার করা যাচ্ছে। জর্দানের পেত্রা দেখে মুগ্ধ হওয়াও সম্ভব অথবা নেদারল্যান্ডসের টিউলিপবাগানের দৃশ্য উপভোগ করা যাচ্ছে। প্রকৃতিপ্রেমীরা অনেক জাতীয় পার্কের রূপ দেখতে পাচ্ছে। ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যের বিখ্যাত ইয়োসেমাইট ঘুরে দেখা যাচ্ছে।

বিশ্বের প্রায় দুই হাজার ৫০০ মিউজিয়াম নিজস্ব ভার্চুয়াল দরজা খুলে দিয়েছে। অ্যাডভেঞ্চারপ্রিয় মানুষ বসার ঘর থেকেই মঙ্গল গ্রহে টহল দিতে পারছে। গ্রিস নিজস্ব পর্যটন প্ল্যাটফর্ম চালু করেছে। অতিথিরা ভার্চুয়াল জগতে গ্রিসের মানুষের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ পাচ্ছে। ভবিষ্যতে পর্যটন আরও বেশি করে স্থানীয় পর্যায়ে এবং ডিজিটাল পদ্ধতিতে সম্পন্ন হবে বলে একটা প্রত্যাশা জেগে উঠছে। সূত্র : ডয়চে ভেলে

ট্যাগ: