banglanewspaper

মনির হোসেন জীবন, নিজস্ব প্রতিনিধি: গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার তুমলিয়া এলাকায় নিজ বাবাকে (আব্দুল হাই) ছুরিকাঘাতে খুন করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে ছেলে নকিব হাসান হৃদয়। অতঃপর স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাকে আটক করে পুলিশ। এ ঘটনায় বাঁধা দিতে গিয়ে মা রাজিয়া বেগম ও বড় ভাই হাসিবুর রহমান নিলয় আহত হন।

আজ রবিবার সকালে কালিগঞ্জ উপজেলার তুমলিয়া ইউনিয়নের সোমবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত হতভাগা পিতা আব্দুল হাই (৬০) কালিগঞ্জ উপজেলার তুমলিয়া ইউপির উত্তরসোম বাজার এলাকার বাসিন্দা এবং সে রড-সিমেন্ট এর ব্যবসা করতেন। 

আটককৃত নকিব হাসান হৃদয় (১৮) কালীগঞ্জ আরআরএন পাইলট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়। গত ৪/৫ বছর ধরে নকিব হাসান হৃদয় মানসিকভাবে বিকারগ্রস্থ ছিল বলে পরিবার সূত্রে জানা গেছে। 

পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানান, প্রতিদিনের মত শনিবার রাতে খাওয়া-দাওয়া করে এক রুমে বাবা-মা ও অন্য রুমে দুই ভাই নকিব হাসান হৃদয় ও নিলয় ঘুমিয়ে পড়ে। 

রবিবার সকাল পৌনে ৬ টার দিকে নকিব হাসান হৃদয় ছুরি নিয়ে ঘুমন্ত বাবাকে উপর্যুপরি আঘাত করে এবং মাথায় রড দিয়ে আঘাত করে। 

এ সময় হৃদয়ের মা টের পেয়ে বাঁধা দিলে মাকেও রড দিয়ে আঘাত করে হৃদয় । মায়ের চিৎকারে বড় ভাই নিলয় এগিয়ে এলে তাকেও আঘাত করে হৃদয়। পরে স্থানীয়দের সহযোগীতায় আহত অবস্থায় আব্দুল হাইকে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পরবর্তীতে ঘটনার পর হৃদয় ঘরের ভেতরে আত্নহত্যার চেষ্টা করে। এসময় স্থানীয়দের সহয়তায় পুলিশ ঘরের দরজা ভেঙ্গে তাকে উদ্ধার করে।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর জানান, খবর পেয়ে সকালে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় ছেলে হৃদয়কে আটক করা হয়েছে। তবে কি কারণে বাবাকে খুন করলো ছেলে তা স্পষ্ট নয়।

ট্যাগ: bdnewshour24 গাজীপুর