banglanewspaper

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রয়াত স্বামী ড. ওয়াজেদ মিয়ার ভাগ্নে (বড় বোনের ছেলে) ও সেনাবাহিনীর (অ.) মেজর পরিচয় দিয়ে প্রতারণা করে আসছিলো মো. সাজ্জাদ হোসেন (৬২) নামে এক প্রতারক। ডিজিএফআই’র পরিচয় দিয়ে সাজ্জাদ বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী কিছু ব্যক্তির কাছ থেকে মোটা অংকের টাকাও নিয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান (র‌্যাব)-৩। 

শুক্রবার (১ মার্চ) বিকালে রাজধানীর টিকাটুলিতে র‍্যাব-৩ এর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান র‍্যাব-৩ এর অধিনায়ক (সিও) লে. কর্ণেল এমরানুল হাসান।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, শুক্রবার (১ মার্চ) দুপুরে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানাধীন ১২ নম্বর সেক্টর পার্কের সামনে থেকে প্রতারক মো. সাজ্জাদ হোসেনকে (৬২) গ্রেফতার করে র‍্যাব-৩। এ সময় তার কাছ থেকে ১টি ওয়াকিটকি সেট, ও দুটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।
     
সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক বলেন, রংপুর বাড়ি হওয়ার সুবাদে নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর প্রয়াত স্বামী ওয়াজেদ মিয়ার বড় বোনের ছেলে বলে সবার কাছে পরিচয় দিতেন প্রতারক সাজ্জাদ। মানুষের মনে বিশ্বাস স্থাপনের জন্য দেশের শীর্ষ স্থানীয় রাজনীতিবিদদের সঙ্গে ছবি তুলতো এবং বিভিন্ন জায়গাতে তা দেখাতো। 

তিনি আরও বলেন, বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনয়ন প্রত্যাশী কিছু ব্যক্তিকে টার্গেট করে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। একপর্যায়ে প্রধানমন্ত্রীর আত্মীয় ও ডিজিএফআই’র উর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে গোপন প্রতিবেদন ইতিবাচক করে দেয়ার কথা বলে মোটা অংকের টাকাও হাতিয়ে নেয়। শুধু তাই নয়, সেনাবাহিনীর (অ.) মেজর পরিচয় দিয়ে ভাষানটেক এলাকার বিভিন্ন ঠিকাদারদের কাজ পাইয়ে দেয়ার প্রলোভনও দেখাতো।

র‍্যাব-৩ সিও বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামি সাজ্জাদ জানায়, বিগত ১৫ বছর যাবত সে এই প্রতারণা করে আসছে। সে ঢাকা ক্যান্টনম্যান্ট এলাকার ভাষানটেকে বসবাস করার কারণে বিভিন্ন প্রজেক্টে ইট, বালু সাপ্লাই দেয়ার ঠিকাদারি কাজ করতো। দীর্ঘদিন যাবৎ ভাষানটেক এলাকায় ব্যবসা করার সুবাদে সে নিজেকে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর পরিচয় দেয়া শুরু করে। এরপর বিভিন্ন অফিসে গিয়ে তদবির করতো অন্যান্য ঠিকাদারদের কাজ পাইয়ে দেয়ার প্রলোভন দেখাতো এবং মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিত।

র‍্যাব কর্মকর্তা বলেন, প্রাথমিক তদন্তে এখন পর্যন্ত উত্তরায় ৫ কাঠা জমিতে ৬ তলা একটি বিলাশবহুল বাড়ি ও নিশান জিপ গাড়ি থাকার তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতারণার মাধ্যমে সে আরও কি কি সম্পদ করেছে সেগুলো খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে। এছাড়াও তার সঙ্গে প্রতারক অন্য কোনো চক্রের যোগসূত্র আছে কি-না সেটিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 

এমরানুল হাসান জানান, আসামি প্রতারক সাজ্জাদের গ্রামের বাড়ি রংপুরের কোতওয়ালী থানার শালবন গ্রামে। তিনি মৃত আশরাফ হোসোনের ছেলে। বর্তমানে সে উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টরের ৬ নম্বর রোডের ৫১ নং বাসায় বসবাস করতেন।   

তার বিরুদ্ধে রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি।      

ট্যাগ: bdnewshour24 প্রধানমন্ত্রী র‌্যাব