banglanewspaper

বাংলাদেশে আগামীকাল রবিবার (২১ এপ্রিল) দিবাগত রাতে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে। যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যে মধ্য দিয়ে দেশের মুসলিম সম্প্রদায় দিনটি পালন করবে। এ উপলক্ষে সারাদেশে মসজিদ ও মাদ্রাসাগুলোয় বিভিন্ন আয়োজন রয়েছে। এছাড়া, ইসলামিক ফাউন্ডেশন রবিবার মাগরিবের নামাজের পর থেকে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে রাতব্যাপী নানা আয়োজন করবে।

শবে বরাত লাইলাতুল বারাত নামেও পরিচিত। আরবি শব্দ লাইলা অর্থ রাত। আবার ফার্সি শব্দ শব অর্থও রাত। আর বরাত অর্থ ভাগ্য। এজন্য এ রাতকে ভাগ্য রজনী বলা হয়। শাবান মাসের ১৪ তারিখের এ রাতকে নাজাতের রাত হিসেবে অবহিত করা হয়। এ রাতে সৃষ্টিকর্তার কাছে পাপ থেকে মুক্তি কামনা করে প্রার্থনা করা হয়। এ রাতে অনেকই নফল নামাজ, কোরআন তেলওয়াত,দোয়া করে থাকেন। এছাড়াও বাবা-মাসহ আত্মীয়দের কবর জিয়ারত ও দোয়া করেন অনেকেই।

হিজরি বছর হিসেবে ১৪ই শাবান দিবাগত রাতে পবিত্র শবে বরাত পালন করা হয়। গত ৬ এপ্রিল বাংলাদেশে ১৪৪০ হিজরি সনের পবিত্র শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। ৭ এপ্রিল রজব মাস ৩০ দিন পূর্ণ হয়। ৮ এপ্রিল থেকে  শাবান মাস গণনা শুরু হয়। সে হিসাব অনুযায়ী, ২১ এপ্রিল রাতে সারাদেশে পবিত্র লাইলাতুল বরাত উদ্যাপিত হবে। ৬ এপ্রিল জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। যদিও মজলিসু রুইয়াতিল হিলাল নামের একটি সংগঠন দাবি তুলেছিলো ৬ এপ্রিল বাংলাদেশে শাবন শাবান মাসের চাঁদ দেখা গিয়েছিলো। পরবর্তীতে ধর্ম মন্ত্রণালয় দেশের প্রখ্যাত আলেমদের সমন্বয়ে সাব কমিটি করে। সেই সাব কমিটিও সিদ্ধান্ত দেয় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি ঘোষণা নিয়ে বিভ্রান্তি  নেই।

পবিত্র শবে বরাতের পবিত্রতা রক্ষা ও শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপন নিশ্চিত করতে, আতশবাজি, পটকাবাজি, অন্যান্য ক্ষতিকারক ও দূষণীয় দ্রব্য বহন এবং ফোটানো নিষিদ্ধ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ।  রবিববার সন্ধ্যা ৬টা থেকে সোমবার ভোর ৬টা পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা কার্যযকর থাকবে বলে জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন জানিয়েছে, রবিবার মাগরিবের নামাজের পর  থেকে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে রাতব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানমালার মধ্যে রয়েছে কুরআন তিলাওয়াত, হামদ-নাত, ওয়াজ মাহফিল, মিলাদ, কিয়াম, জিকির, দোয়া ও বিশেষ মুনাজাত।

ট্যাগ: bdnewshour24 শবে বরাত

ধর্ম
দেশে ফিরলেন ২৮ হাজার ৫১৭ হাজি

banglanewspaper

পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা শেষে সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরেছেন ২৮ হাজার ৫১৭ জন।

মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইটি হেল্প ডেস্কের বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এবার হজে গিয়ে এ নিয়ে ২৩ জন বাংলাদেশি মারা গেছেন। তাদের মধ্যে ১৬ জন পুরুষ ও সাতজন নারী।

ধর্ম মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত ১৪ জুলাই থেকে এ পর্যন্ত মোট ৭৭টি ফ্লাইট হাজিদের নিয়ে ঢাকায় পৌঁছেছে। এর মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ৩৭টি, সৌদিয়া এয়ারলাইন্সের ৩৫টি ও ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস পরিচালনা করে পাঁচটি। আগামী ৪ আগস্ট ফেরত হজযাত্রীদের শেষ ফ্লাইট ঢাকা পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৮ জুলাই সৌদি আরবে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হয়। এবার গত ৫ জুন থেকে ৫ জুলাই পর্যন্ত ১৬৫টি ফ্লাইটে বাংলাদেশ থেকে ৬০ হাজার ১৪৬ জন হজযাত্রী (ব্যবস্থাপনা সদস্যসহ) সৌদি আরবে যান। এরমধ্যে বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ফ্লাইটে ৩০ হাজার ৩৬৩ জন, সৌদি এয়ারলাইনসের ২৩ হাজার ৯১৯ জন এবং ফ্লাইনাস এয়ারলাইনসের মাধ্যমে পাঁচ হাজার ৮৬৪ জন হজযাত্রী সৌদি গিয়েছিলেন।

ট্যাগ:

ধর্ম
দেশে ফিরলেন ১৪৮৬২ হাজি

banglanewspaper

পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা শেষে ৪০টি ফিরতি ফ্লাইটে দেশে ফিরেছেন ১৪ হাজার ৮৬২ হাজি। এর মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস পরিচালিত ১৬টি, সৌদি এয়ারলাইনস পরিচালিত ১৯টি ও ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস পরিচালিত ৫টি।

মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) দিনগত রাত ২টায় হজ সম্পর্কিত প্রতিদিনের বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, সৌদি আরবের চিকিৎসা কেন্দ্র থেকে মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) পর্যন্ত স্বয়ংক্রিয় চিকিৎসা ব্যবস্থাপত্র দেওয়া হয়েছে ২৭ হাজার ৯৬৬টি। এর মধ্যে মক্কায় ৮১ শতাংশ এবং মদিনায় ১৯ শতাংশ। পুরুষ ৭৪ শতাংশ এবং মহিলা ২৬ শতাংশ।

এদিকে হজে গিয়ে এ বছর বাংলাদেশি ২৩ জন হজযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে পুরুষ ১৬ জন, নারী সাতজন।

উল্লেখ্য, ৮ জুলাই সৌদি আরবে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হয়। এ বছর বাংলাদেশ থেকে ৬০ হাজার ১৪৬ জন হজ পালন করেছেন। হজ ব্যবস্থাপনা ও হজ প্রতিনিধি দলসহ এবার ১৬৫টি ফ্লাইটে হজে যান তারা। এরমধ্যে বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ফ্লাইটে ৩০ হাজার ৩৬৩ জন, সৌদি এয়ারলাইনসের ২৩ হাজার ৯১৯ জন এবং ফ্লাইনাস এয়ারলাইনসের মাধ্যমে পাঁচ হাজার ৮৬৪ জন হজযাত্রী সৌদি গিয়েছিলেন।

ট্যাগ:

ধর্ম
ইবরাহিম (আ.)-এর জীবন থেকে ১০ শিক্ষা

banglanewspaper

আল্লাহর নবী ইবরাহিম (আ.)-কে আল্লাহ বিশেষ মর্যাদা দান করেছিলেন। হজ ও কোরবানির বিধান দানের মাধ্যমে পৃথিবীতে তাঁকে চিরস্মরণীয় করে রেখেছেন। পবিত্র কোরআনে ইবরাহিম (আ.)-কে মুসলিম জাতির পিতা আখ্যা দেওয়া হয়েছে। বর্ণনা করা হয়েছে তাঁর বিশেষ মর্যাদা।

তাঁর জীবনের নানা দিক তুলে ধরা হয়েছে, যাতে আছে পরবর্তী মানুষের জন্য শিক্ষা।
ইবরাহিম (আ.)-এর বিশেষ মর্যাদা : আল্লাহ ইবরাহিম (আ.)-কে বিশেষ কিছু মর্যাদা দান করেছেন, যা অনেক নবী ও রাসুলকে দান করা হয়নি। যেমন—

১. বংশধরদের নবুয়তের জন্য নির্বাচন : আল্লাহ ইবরাহিম (আ.)-এর বংশধরদের নবুয়তের জন্য মনোনীত করেন। এ জন্য তাঁকে বলা হয় ‘আবুল আম্বিয়া’ বা নবীদের পিতা। ইরশাদ হয়েছে, ‘আমি ইবরাহিমকে দান করলাম ইসহাক ও ইয়াকুব এবং তার বংশধরদের জন্য স্থির করলাম নবুয়ত ও কিতাব। আমি দুনিয়ায় তাকে পুরস্কৃত করেছিলাম; আখিরাতেও সে নিশ্চয়ই সৎকর্মপরায়ণদের অন্যতম হবে। ’ (সুরা : আনকাবুত, আয়াত : ২৭)

২. বন্ধুত্বের মর্যাদা : আল্লাহ ইবরাহিম (আ.)-কে বন্ধুত্বের মর্যাদা দান করেছিলেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘আল্লাহ ইবরাহিমকে বন্ধুরূপে গ্রহণ করেছেন। ’ (সুরা : নিসা, আয়াত : ১২৫)

৩. চির অনুসরণীয় : মহান আল্লাহ ইবরাহিম (আ.)-কে চির অনুসরণীয় করেছেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘তোমাদের জন্য ইবরাহিম ও তার অনুসারীদের মধ্যে আছে উত্তম আদর্শ। ’ (সুরা : মুমতাহিনা, আয়াত : ৪)

জীবন থেকে শিক্ষা : আল্লাহর নবী ইবরাহিম (আ.)-এর জীবনে আছে মুমিনের জন্য বহু শিক্ষণীয় বিষয়। এমন ১০টি শিক্ষা নিম্নে তুলে ধরা হলো—

১. সত্যের অন্বেষণ : ইবরাহিম (আ.) কৈশোর থেকেই সত্যান্বেষী ছিলেন। আল্লাহর নিদর্শন দেখে তিনি আল্লাহর পরিচয় লাভ করেন। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘অতঃপর যখন সে সূর্যকে দীপ্তিমানরূপে উদিত হতে দেখল, তখন বলল, এটা আমার প্রতিপালক, এটা সর্ববৃহৎ। যখন এটাও অস্তমিত হলো, তখন সে বলল, হে আমার সম্প্রদায়! তোমরা যাকে আল্লাহর শরিক করো তার সঙ্গে আমার কোনো সংস্রব নেই। ’ (সুরা : আনআম, আয়াত : ৭৮)

২. আনুগত্যে একনিষ্ঠ : আল্লাহর আনুগত্যে ইবরাহিম (আ.) ছিলেন একনিষ্ঠ। ইরশাদ হয়েছে, ‘আমি একনিষ্ঠভাবে তাঁর দিকে মুখ ফেরাচ্ছি, যিনি আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন এবং আমি মুশরিকদের অন্তর্ভুক্ত নই। ’ (সুরা : আনআম, আয়াত : ৭৯)

৩. দ্বিনকে অগ্রাধিকার : ইবরাহিম (আ.) সব কিছুর ওপর দ্বিনকে অগ্রাধিকার দিয়েছিলেন। দ্বিনের স্বার্থে তিনি ঘোষণা করেন, ‘হে আমার সম্প্রদায়! তোমরা যাকে আল্লাহর শরিক করো তার সঙ্গে আমার কোনো সংস্রব নেই। ’ (সুরা : আনআম, আয়াত : ৭৮)

৪. দ্বিনের দাওয়াত : ইবরাহিম (আ.) সত্যের দিশা লাভের সঙ্গে সঙ্গে পরিবার-পরিজনকে দ্বিনের পথে আহ্বান জানান। আল্লাহ বলেন, ‘স্মরণ করো, ইবরাহিম তার পিতা আজরকে বলেছিল, আপনি কি মূর্তিকে ইলাহরূপে গ্রহণ করেন? আমি তো আপনাকে ও আপনার সম্প্রদায়কে স্পষ্ট ভ্রান্তিতে দেখছি। ’ (সুরা : আনআম, আয়াত : ৭৪)

৫. ঈমান রক্ষায় দেশত্যাগ : ইবরাহিম (আ.) তাঁর ঈমান রক্ষায় দেশত্যাগ করেন। পঞ্চম হিজরিতে সাহাবায়ে কিরাম যখন হাবশায় হিজরত করছিলেন, তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছিলেন, ‘ইবরাহিম ও লুত (আ.)-এর পর আল্লাহর পথে এরাই প্রথম হিজরতকারী দল। ’ (খাতামুন-নাবিয়্যিন, পৃষ্ঠা ৩৬০)

৬. মসজিদ আবাদ করা : আল্লাহ ইবরাহিম (আ.)-এর মাধ্যমে বায়তুল্লাহ শরিফ আবাদ করেন। আল্লাহ বলেন, ‘সেই সময়কে স্মরণ করো, যখন কাবা ঘরকে মানবজাতির মিলনকেন্দ্র ও নিরাপত্তাস্থল করেছিলাম এবং বলেছিলাম, তোমরা মাকামে ইবরাহিমকে নামাজের স্থানরূপে গ্রহণ করো। এবং ইবরাহিম ও ইসমাঈলকে তাওয়াফকারী, ইতিকাফকারী, রুকু ও সিজদাকারীদের জন্য আমার ঘরকে পবিত্র রাখার আদেশ করেছিলাম। ’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১২৫)

৭. দ্বিনের জন্য আত্মত্যাগ : ইবরাহিম (আ.) বার্ধক্যে উপনীত হওয়ার পর আল্লাহ তাঁকে পুত্র ইসমাঈলকে দান করেন। কিন্তু আল্লাহর ঘর আবাদ রাখার জন্য এক অনুর্বর প্রান্তে তিনি তাঁদের ছেড়ে যান; এমনকি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য প্রিয় পুত্রের গলায় ছুরি চালান। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘হে আমার প্রতিপালক! আমি আমার বংশধরদের কতককে বসবাস করালাম অনুর্বর উপত্যকায় তোমার পবিত্র ঘরের কাছে। ’ (সুরা : ইবরাহিম, আয়াত : ৩৭)

অন্য আয়াতে ইরশাদ হয়েছে, ‘যখন তারা উভয়ে আনুগত্য প্রকাশ করল এবং ইবরাহিম তার পুত্রকে কাত করে শোয়াল, তখন আমি তাকে ডেকে বললাম, হে ইবরাহিম! তুমি তো স্বপ্নাদেশ সত্যই পালন করলে—এভাবেই আমি সৎকর্মপরায়ণদের পুরস্কৃত করে থাকি। ’ (সুরা : সাফফাত, আয়াত : ১০৩-১০৫)

৮. সন্তানদের জন্য দোয়া করা : পরিবার-পরিজন ও সন্তানদের জন্য দোয়া করা ইবরাহিম (আ.)-এর শিক্ষা। তিনি দোয়া করেছিলেন, ‘হে আমার প্রতিপালক! আপনি এ স্থানকে নিরাপদ নগর করুন। এর অধিবাসীদের মধ্যে যারা আল্লাহ ও পরকালে বিশ্বাস স্থাপন করে তাদের ফলমূল দ্বারা জীবিকা প্রদান করুন। ’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১২৬)

৯. আল্লাহর কৃতজ্ঞতা আদায় করা : ইবরাহিম (আ.) মহান আল্লাহর প্রতি চিরকৃতজ্ঞ ছিলেন। তিনি বলেন, ‘সব প্রশংসা আল্লাহরই, যিনি আমাকে আমার বার্ধক্যে ইসমাঈল ও ইসহাককে দান করেছেন। আমার প্রতিপালক অবশ্যই প্রার্থনা শুনে থাকেন। ’ (সুরা : ইবরাহিম, আয়াত : ৩৯)

১০. আল্লাহর নির্দেশ পালন : ইবরাহিম (আ.) আল্লাহর নির্দেশ পালনে ছিলেন দ্বিধাহীন। ইরশাদ হয়েছে, ‘যখন তার প্রতিপালক তাকে বললেন, আত্মসমর্পণ করো, সে বলল, আমি জগত্গুলোর প্রতিপালকের কাছে আত্মসমর্পণ করলাম। ’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১৩১)

আল্লাহ সবাইকে সত্যের অনুসারী করুন। আমিন।

ট্যাগ:

ধর্ম
স্ত্রীর হাতখরচ ও ভরণপোষণ সম্পর্কে স্বামীর যা কর্তব্য

banglanewspaper

বিবাহিত জীবনের একটা বড় কথা হলো স্বামীর সবকিছু স্ত্রীর আর স্ত্রীর সবকিছু স্বামীর।

এখন স্বামীর টাকা-পয়সার মালিক কি তিনি একা, নাকি এতে কেউ শরিক আছেন? অবশ্যই তার স্ত্রী শরিক আছেন। কারণ, বিবাহের পর স্বামীর জন্য স্ত্রীর পরিপূর্ণ খরচ বহন করা তার ওপর আবশ্যক। মাসিক যা খরচ লাগে তা অবশ্যই স্ত্রীকে নিজের সম্পদ থেকে দিতে হবে। এখনকার সময়ে অনেকেই স্ত্রীকে মাসিক খরচের টাকা দেন না বা অবহেলা করেন, এটা একেবারেই ঠিক না, বরং গুনাহের কাজ। যারা স্ত্রীকে ভরণপোষণ ঠিকঠাকমদো দেন, তারা অনেক সাওয়াবের কাজ করছেন। যারা দেন না, ইচ্ছা করে বা অবহেলায় তাদের স্ত্রীদের জন্য অনেক মূল্যবান হাদিস-

حَدَّثَنَا أَبُو نُعَيْمٍ، حَدَّثَنَا سُفْيَانُ، عَنْ هِشَامٍ، عَنْ عُرْوَةَ، عَنْ عَائِشَةَ ـ رضى الله عنها ـ قَالَتْ هِنْدٌ أُمُّ مُعَاوِيَةَ لِرَسُولِ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم إِنَّ أَبَا سُفْيَانَ رَجُلٌ شَحِيحٌ، فَهَلْ عَلَىَّ جُنَاحٌ أَنْ آخُذَ مِنْ مَالِهِ سِرًّا قَالَ ‏ "‏ خُذِي أَنْتِ وَبَنُوكِ مَا يَكْفِيكِ بِالْمَعْرُوفِ ‏"‏‏.‏

আয়েশা রাযিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা থেকে বর্ণিত—

মু’আবিয়াহ রাযিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু-এর মা হিন্দা আল্লাহ্‌র রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলেন, আবু সুফিয়ান (রাযিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) একজন কৃপণ ব্যক্তি। এ অবস্থায় আমি যদি তার মাল হতে গোপনে কিছু গ্রহণ করি, তাতে কি গুনাহ হবে? তিনি বললেন, তুমি তোমার ও সন্তানদের প্রয়োজন অনুযায়ী ন্যায়ভাবে গ্রহণ করতে পার। সহিহ বুখারি, হাদিস নং ২২১১। হাদিসের মান: সহিহ হাদিস।

উল্লিখিত হাদিসের দ্বারা যা কিছু জানা যায়, তার মেধ্যে—

১. স্ত্রীকে ভরণপোষণ ঠিকঠাকমতো না দিলে সে স্বামী থেকে না বলে প্রয়োজন মুওয়াফেক জিনিসপত্র নিতে পারবে।

২. এমনকি যদি পকেট থেকে স্ত্রী টাকা নিয়ে নেয় তাও চুরি হিসেবে গন্য হবে না।

তবে যদি স্ত্রীকে পরিপূর্ণ ভরণপোষণ দেন তারপরও স্বামী থেকে না বলে জিনিসপত্র টাকা পয়সা নেয় তাহলে এটা চুরি হিসেবে গন্য হবে।


লেখক : খতিব, আল মদিনা জামে মসজিদ, খোলামোড়া, কেরানীগঞ্জ, ঢাকা

ট্যাগ:

ধর্ম
সৌদি আরবে আরও ২ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

banglanewspaper

হজ করতে গিয়ে আরও ২ বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে সৌদি আরবে। এ নিয়ে এবারের হজ মৌসুমে সৌদি আরবে মোট ছয়জন বাংলাদেশি মারা গেছেন বলে জানা গেছে।

বুধবার রাতে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ ব্যবস্থাপনা-সংক্রান্ত আইটি হেল্পডেস্কের হজের প্রতিদিনের বুলেটিনে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

মারা যাওয়া ২ জন হলেন, মো. আবদুল জলিল খান (৬২) ও বিউটি বেগম (৪৭)। তাদের মধ্যে আবদুল জলিলের বাড়ি জয়পুরহাট সদরে এবং বিউটি বেগমের বাড়ি কুমিল্লা আদর্শ সদরের ধনপুরে। এর আগে ১৭ জুন দুইজন ও ১১ জুন ১ জন এবং ১৬ জুন একজনের মৃত্যু হয়।

আবদুল জলিল খান মঙ্গলবার রাতে মদিনার মসজিদে নববির ৩৮ নং গেটের কাছাকাছি রিয়াজুল জান্নাহ’য় প্রবেশের সময় এবং বিউটি বেগম স্থানীয় সময় মঙ্গলবার ভোরে মদিনার কিং ফাহাদ হাসপাতালে মারা যান।

বুলেটিনে বলা হয়, মঙ্গলবার পর্যন্ত ৭৮টি ফ্লাইটে সৌদি আরবে গেছেন ২৮ হাজার ৩০৯ জন। সৌদি আরবে চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৮ জুলাই হজ অনুষ্ঠিত হবে। হজযাত্রীদের সৌদি আরবে যাওয়ার ফ্লাইট গত ৫ জুন শুরু হয়েছিল। সৌদি আরবে যাত্রার শেষ ফ্লাইট ৩ জুলাই।

ট্যাগ: