banglanewspaper

বরগুনায় প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় বরিশালে সন্দেহভাজন হিসেবে চার জনকে আটকের পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তারা কেউ রিফাত শরীফকে হত্যার সঙ্গে জড়িত নন- এটা নিশ্চিত হয়ে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার রাতে এই চার জনকে মানানী লঞ্চ থেকে আটক করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন বরিশাল কোতয়ালি থানার সহকারী কমিশনার (এসি) মো. রাসেল ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুরুল ইসলাম। মধ্যে মধ্যরাতের দিকে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

চার জনের বিস্তারিত পরিচয় না জানালেও এই দুই পুলিশ কর্মকর্তা জানান, আটকদের গ্রামের বাড়ি বরগুনার বেতাগী উপজেলায়। তারা সবাই বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে পড়ে। তাদের এক বন্ধুকে ঢাকায় যাওয়ার পথে এগিয়ে দিতে লঞ্চঘাটে এসেছিল।

আটকের পর চার জনের গ্রামের বাড়িতে বরগুনা পুলিশের সহায়তায় খোঁজ নেয়া হয়। পরে নিশ্চিত হওয়া যায় এরা কেউ সেই মামলার আসামি নয়। পরে তাদের পরিবারকে থানায় ডাকা হয়।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার (সদর দপ্তর) হাবিবুর রহমান খান বলেন, এদের আটকের পর বিভিন্নভাবে জিজ্ঞাসাবাদ এবং ভিডিও ফুটেজের চেহারার সঙ্গে তাদের চেহারা বারবার মিলিয়ে দেখা হয়। এছাড়াও বরগুনা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আশরাফ উপস্থিত থেকে তাদের যাচাই-বাছাই করেন। এক পর্যায়ে তাদের সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় ছেড়ে দেওয়া হয়।

বুধবার বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয় রিফাত শরীফ নামে এক তরুণকে। তাকে বাঁচাতে স্ত্রী আশেয়া সিদ্দিকা মিন্নির আপ্রাণ চেষ্টার ভিডিও সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়েছে। হৃদয় বিদারক এই ঘটনাটি দেশবাসীকে ছুঁয়ে গেছে।

এরই মধ্যে রিফাতের বাবা ১২ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত চার-পাঁচ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। আসামিদের মধ্যে তিন জন গ্রেপ্তার হয়েছে। প্রধান আসামি নয়ন বন্ড এবং তার সহযোগী রিফাত ফরাজীসহ অন্যদেরকে খুঁজছে পুলিশ।

ট্যাগ: bdnewshour24 রিফাত হত্যা বরিশাল