banglanewspaper

চোখের সামনে কারও হার্ট অ্যাটাক হলে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকে। কিন্তু ঘুমের মধ্যে যদি হৃদযন্ত্র বিকল হয়ে যায়, তখন কী করবেন? হৃদরোগে যত মানুষ মারা যান, তাদের মধ্যে প্রায় ৫০ শতাংশের মৃত্যু হয় হঠাৎ, অনেক সময় ঘুমের মধ্যেই। যাকে 'সাডেন কার্ডিয়াক ডেথ' বা 'সাডেন কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট' বলে। ৬ মাসের কম বয়সী বাচ্চারা সাধারণত 'সাডেন ইনফ্যান্ট ডেথ সিনড্রোম'-এ মারা যায়। ৩০ বছরের পর থেকে এর ঝুঁকি বাড়তে থাকে এবং ৪০-৭৫ বছর বয়সে হাজারে ১-২ জন মানুষ এভাবে মারা যান।

অধিকাংশ ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট জায়গা ছাড়াই আচমকা হার্টের অন্যান্য দিক থেকে হৃদস্পন্দন একই সঙ্গে তৈরি হয়। ফলে হৃদস্পন্দন অনেক বেড়ে যায়। একে বলে 'ভেন্ট্রিকুলার ট্যাকিকার্ডিয়া'। তার অল্পক্ষণের মধ্যেই হার্ট এত কাঁপতে থাকে যে পাম্পিং প্রায় বন্ধ হয়ে যায়।  একে বলে 'ভেন্ট্রিকুলার ফিব্রিলেশন'। অক্সিজেনের অভাবে প্রথমে রোগি জ্ঞান হারায়। দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে ৫-৭ মিনিটের মধ্যেই রোগির মৃত্যু নিশ্চিত। আবার সামান্য কিছু ক্ষেত্রে হৃদস্পন্দন তৈরি হতে না পেরে হার্ট থেমে যায়। দুই ক্ষেত্রেই রোগির হার্টে আগে থেকেই কিছু না কিছু গোলমাল থাকে। তবে কিছু ব্যবস্থা নিলে এই হঠাৎ মৃত্যু কিছুটা ঠেকানো যায়।

যেভাবে ঠেকাবেন 'সাডেন ডেথ'

► 'ইস্কিমিয়া' নামের হৃদরোগ হলো সাডেন ডেথের অন্যতম কারণ। হার্ট অ্যাটাক হলে আশঙ্কা আরও বাড়ে। বিপদ ঠেকাতে প্রেশার-সুগার-ওজন ইত্যাদিকে সামলে রাখুন। শরীরচর্চা ও স্ট্রেস ম্যানেজ করুন, সঠিক খাবার খান। চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলুন।

► খুব ভালোভাবে চিকিৎসা না হলে ১০-১৫ শতাংশ হার্ট অ্যাটাক রোগীর সাডেন ডেথ হতে পারে। কাজেই ভালোো পরিষেবা আছে এমন জায়গায় চিকিৎসা করান।

► হার্ট অ্যাটাক হয়ে হার্টের পাম্প করার ক্ষমতা ৩৫ শতাংশের নীচে নেমে গেলে বিপদের আশঙ্কা বেশি। সঙ্গে অনিয়মিত হৃৎস্পন্দনের অসুখ থাকলে আরও বিপদ। এ সব ক্ষেত্রে হৃদবিশেষজ্ঞের কথা মতো চলুন।

► হার্ট ফেলিওর থাকলে ভালো করে চিকিৎসা করে তাকে আয়ত্তে রাখুন।

► অ্যায়োর্টিক ভাল্ভের অসুখকে হেলাফেলা করবেন না।

► জন্মগত হৃদরোগ ও কিছু জেনেটিক অসুখ থাকলে বিপদ আছে। সমস্যা সামলাতে ইমপ্ল্যান্টেবল কার্ডিওভার্টার ডিফিব্রিলেটর নামের পেসমেকার বসাতে হয়।

► প্রায়শই বুক ধড়ফড়, মাথা ঘোরা বা ব্ল্যাক আউট হলে কার্ডিওলজিস্ট দেখান।

► শরীরে ঘন ঘন সোডিয়াম-পটাশিয়াম লেভেলের হেরফের হলেও সমস্যা হতে পারে। সে দিকে নজর রাখুন।

► রক্তের সম্পর্কযুক্ত আত্মীয়দের মধ্যে কেউ কম বয়সে হৃদরোগে হঠাৎ মারা গেলে, কোনও কষ্ট না থাকলেও মাঝেমধ্যে চেক আপ করান।

চিকিৎসা

► হাসপাতালে শক দিয়ে হার্ট চালু করে ওষুধ দিয়ে রোগীকে স্থিতিশীল করা হয়। তার পর হয় পরীক্ষানিরীক্ষা। গোলমালের মূলে রক্তে ইলেকট্রোলাইটের কম-বেশি বা কোনও ওষুধের হাত থাকলে সহজেই সমস্যা মিটে যায়।

► হৃদরোগ সন্দেহ হলে করা হয় ইসিজি, ইকোকার্ডিওগ্রাফি, করোনারি অ্যাঞ্জিওগ্রাফি বা ইপি স্টাডি। কারণ পাওয়া গেলে ওষুধ বা অপারেশন করে তা সামলানো হয়।

► কারণ না পাওয়া গেলে দ্রুত আইসিডি নামের পেসমেকার বসাতে হয়। আইসিডি হার্টের ওপর নজর রাখে। হার্ট রেট মারাত্মক বেড়ে গেলে শক দিয়ে তা স্বাভাবিক করে। আবার হার্ট রেট কমে বিপজ্জনক পরিস্থিতি হলে এর ব্যাক আপ পেসমেকার সার্ভিস সেটা সামলে দেয়।

ট্যাগ: bdnewshour24 হার্ট অ্যাটাক

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
কলেরা টিকার দ্বিতীয় ডোজ বুধবার থেকে

banglanewspaper

আগামী বুধবার (৩ আগস্ট) থেকে রাজধানীতে কলেরার দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়া শুরু করতে যাচ্ছে আইসিডিডিআরবি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে রাজধানীর ৫টি এলাকায় সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত দেওয়া হবে কলেরা টিকা।কর্মসূচি চলবে ১০ আগস্ট পর্যন্ত। তবে শুক্রবার (৫ আগস্ট) ও মঙ্গলবার (৯ আগস্ট, আশুরার দিন) টিকা কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

আইসিডিডিআরবির সিনিয়র সায়েন্টিস্ট ও ইনফেকশাস ডিজিজেস ডিভিশনের ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র ডিরেক্টর ড. ফেরদৌসী কাদরী বলেন,
‘কলেরা টিকা গ্রহণ করার পাশাপাশি নিরাপদ পানির ব্যবহার, নিরাপদ পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা এবং ব্যক্তিগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করতে হবে এবং প্রিয়জনদেরও উৎসাহিত করতে হবে।’

তিনি বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অনুমোদিত ইউভিকল প্লাস নামের কলেরার টিকা দক্ষিণ কোরিয়ার ইউবায়োলোজিক্স কো. লিমিটেডের তৈরি।যা এক বছর থেকে তদূর্ধ্ব বয়সীদের প্রদান করা হবে। অন্তঃসত্ত্বা নারী এবং যারা বিগত ১৪ দিনের মধ্যে অন্য কোনো টিকা গ্রহণ করেছেন; তারা ছাড়া সবাই এই টিকা গ্রহণ করতে পারবেন। এই টিকা নেওয়ার ১৪ দিনের মধ্যে অন্য কোনো টিকা নেওয়া যাবে না।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, দক্ষিণখান, মিরপুর, মোহাম্মদপুর, যাত্রাবাড়ী ও সবুজবাগ এলাকায় প্রথম ডোজ কলেরা টিকা গ্রহণকারী ২৩ লাখ ৬৫ হাজার ৫৮৫ জনকে দ্বিতীয় ডোজ টিকা প্রদান করা হবে। যারা ২৬ জুন থেকে ২ জুলাইয়ের মধ্যে প্রথম ডোজ কলেরা টিকা নিয়েছেন, তারা নিজ নিজ কেন্দ্রে টিকা কার্ড দেখিয়ে দ্বিতীয় ডোজ নিতে পারবেন।

ট্যাগ:

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
দেশে মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত কোনো রোগী নেই : বিএসএমএমইউ

banglanewspaper

বাংলাদেশে মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত কোনো রোগী নেই বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য শরফুদ্দিন আহমেদ।

শনিবার (৩০ জুলাই) দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

শরফুদ্দিন আহমেদ বলেন, বিশ্বে মাঙ্কিপক্সে মৃত্যুর হার বাড়ছে। এ অবস্থায় দেশের সীমান্ত ও বিমানবন্দরে সতর্কতা জারি করা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, করোনা যেভাবে মোকাবিলা করেছি, ব্ল্যাক ফাঙ্গাসকেও যেমনভাবে বাংলাদেশে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে দিইনি, সেভাবে মাঙ্কিপক্স ভাইরাসের জন্যও প্রস্তুত আছি।

তিনি আরও বলেন, যে কোনো ধরনের গুজব দূরে রেখে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ মতো দেশের মানুষকে এই রোগ থেকেও আমরা নিরাপদ রাখতে পারব।

এদিকে, আফ্রিকা থেকে বিশ্বজুড়ে মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ৭৮টি দেশে মাঙ্কিপক্স ছড়িয়েছে। আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২০ হাজারের বেশি। মৃত্যুর সংখ্যাও দিন দিন বাড়ছে।

১৯৭০ সালে মানবদেহে প্রথম মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়। কঙ্গোর ৯ বছর বয়সী এক বালকের দেহে ভাইরাসটি ধরা পড়েছিল। এরপর আফ্রিকা থেকে বিশ্বের কয়েকটি মহাদেশে মাঙ্কিপক্সের বিস্তার ঘটে। তবে চলতি বছরের মে মাসে আফ্রিকার বাইরে অসংখ্য মাঙ্কিপক্স রোগীর সন্ধান পাওয়া যায়। বিশ্বজুড়ে মাঙ্কিপক্স দ্রুত বাড়তে থাকায় সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জরুরি অবস্থা জারি করে।

মাঙ্কিপক্স রোগটির নামের উৎপত্তি হয়েছে মাঙ্কি (বাঁনর) থেকে। কারণ রোগটি প্রথমে একটি বাঁনরের মধ্যেই পাওয়া গিয়েছিল।

ট্যাগ:

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
ডেঙ্গুতে আরও একজনের মৃত্যু, হাসপাতালে ৯৯

banglanewspaper

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে দেশে আরও ৯৯ জন আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এর আগে, সোমবার (২৫ জুলাই) একজনের মৃত্যু হয়েছে এবং ৬০ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এরমধ্যে ৪০ জন ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতাল এবং ২০ জন ঢাকার বাহিরে চিকিৎসাধীন।

এতে বলা হয়েছে, সোমবার সকাল থেকে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত সারাদেশে নতুন করে আরও ৯৯ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। নতুন ভর্তি হওয়া রোগীদের মধ্যে ৭৪ জন ঢাকার বাসিন্দা এবং বাকি ২৫ জন ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এতে আরও বলা হয়েছে, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে মোট ৩০১ জন ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার হাসপাতালে ২২৭ জন এবং ঢাকার বাইরে ৭৪ জন চিকিৎসাধীন।

চলতি বছর এখন পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে দুই হাজার ৩০৫ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৯৯৬ জন। এ বছর এখন পর্যন্ত ডেঙ্গুতে ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালে সারাদেশে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন ২৮ হাজার ৪২৯ জন। এরমধ্যে মৃত্যু হয় ১০৫ জনের।

ট্যাগ:

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত বেড়েছে

banglanewspaper

করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত উভয়ই বেড়েছে। গত কয়েক দিন ধরে করোনার কারণে মৃত্যু ওঠানামা করছে।

সোমবার (২৫ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দেখা যায় গত ২৪ ঘণ্টায় এ ভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে আরও পাঁচজনের। আর শনাক্ত হয়েছে ৫৪৮ জনের।

এর আগে শনিবার ও রোববার মৃত্যু হয়েছে ৪ জন করে। আর শুক্রবার মৃত্যু হয়েছে দুইজনের। বৃহস্পতিবার মৃত্যু হয়েছে ছয়জনের।

অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়, এখন পর্যন্ত দেশে ২৯ হাজার ২৭১ জনের প্রাণ কেড়ে নিলো করোনাভাইরাস। রোববার মৃতদের মধ্যে দুইজন পুরুষ ও তিনজন নারী রয়েছেন।

এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৪৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনিবার যা ছিল ৪৩০ জনে। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০ লাখ ২ হাজার ৩২৩ জনে। করোনায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ২৭৭ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৩৭ হাজার ২৪০ জন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ছয় হাজার ৯৮৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ৮৪ শতাংশ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম তিনজনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর দেশে প্রথম করোনায় একজনের মৃত্যু হয়।

ট্যাগ:

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
ডেঙ্গু আক্রান্ত আরও ৬৫ জন হাসপাতালে

banglanewspaper

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে এ রোগে আক্রান্ত হয়ে আরও ৬৫ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ নিয়ে মশাবাহিত এ রোগে আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে ২৯৯ জন হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

শনিবার (২৪ জুলাই) সারা দেশের পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গু বিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নতুন আক্রান্তদের একজন বাদে ছয়জনই ঢাকার বাসিন্দা।

আরও বলা হয়েছে, নতুন ৬৫ জনসহ বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ভর্তি থাকা ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯৯ জনে। তাদের মধ্যে ২৩৫ জনই ঢাকার বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। আর ঢাকার বাইরে রয়েছেন সর্বমোট ৬৪ জন রোগী।

এদিকে চলতি বছরে ডেঙ্গুতে মারা গেছেন ১ হাজার ৮৩৭ জন। এর মধ্যে ঢাকার বাইরে ভর্তি রয়েছেন ৩০৯ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৮৪১ জন। সুস্থদের মধ্যে ঢাকায় ১ হাজার ৫৯৯ জন ও ঢাকার বাইরে ২৪২ জন। চলতি বছরে ডেঙ্গুতে এ পর্যন্ত ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে।

ট্যাগ: