banglanewspaper

গ্যাসের পাইপ লাইনের টাই-ইন কাজের জন্য রাজধানীর বাড্ডার কিছু এলাকায় আজ গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে গ্যাসের স্বল্প চাপ সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে এ কাজ করা হবে বলে জানিয়েছে তিতাস গ্যাসের জনসংযোগ বিভাগ। সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত এ পরিস্থিতি থাকতে পারে বলে জানা গেছে।

যেসব জায়গায় গ্যাস থাকবে না তার মধ্যে রয়েছে উত্তর বাড্ডা বাজার হতে মধ্যবাড্ডা কাঁচাবাজার পর্যন্ত মেইন রোডের পূর্ব পাশের এলাকা, আদর্শনগর, উত্তর বাড্ডা, রাজউক পুনর্বাসন এলাকা, হোসেন মার্কেট, লুৎফুন টাওয়ার, নিমতলী ও আশপাশ সংলগ্ন এলাকা। এসব এলাকার শিল্প, বাণিজ্যিক ও আবাসিক গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

গ্যাস সরবরাহে বিভ্রাটের কারণে গ্রাহদের সাময়িক অসুবিধার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ।

ট্যাগ: bdnewshour24 গ্যাস

রাজধানী
দিনে টিকটকার, রাতে ‘ভাইব্বা ল কিং’ গ্যাংয়ের সদস্য

banglanewspaper

তাদের কেউ অটোরিকশা চালক, কেউ দোকানের কর্মচারী, কেউ নির্মাণ শ্রমিক, কেউ অফিসের পিয়ন। তবে সবাই ‘ভাইব্বা ল কিং’ (Vaibba Lo King) নামে একটি কিশোর গ্যাং চক্রে জড়িত। তারা দিনে বিভিন্ন অশ্লীল ভঙ্গিতে বানাতো টিকটক ভিডিও। আর রাত হলেই বেরিয়ে পড়তো ছিনতাইয়ে। গত রাতে (সোমবার) এক দম্পতিকে ছিনতাইয়ের পর র‌্যাব এই চক্রটির নয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করে।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার মিডিয়া সেন্টারে র‌্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার মঈন বলেন, এই চক্রের সদস্য সংখ্যা ১৫/২০ জন। তারা দিনে বিভিন্ন পেশায় জড়িত থাকার পাশাপাশি টিকটক ভিডিও বানাতো। যেখানে অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে চিত্র ধারণ করা হতো। আর রাত হলেই ছিনতাইয়ে নেমে পড়তো। গত ২/৩ বছর ধরে রাজধানী মোহাম্মদপুরের চাঁদ উদ্যান, ঢাকা উদ্যান, বসিলা ও রায়েরবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সময় সশস্ত্র মহড়া, ভাড়ায় শোডাউন করে আসছিল। গতরাতে এক দম্পত্তির অভিযোগে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাব জানায়, গ্রেপ্তার কিশোররা হলো, মো. রুমান, গ্যাং লিডার শরীফ ওরফে মোহন, মো. উদয়, মো. শাকিল, মো. নয়ন ও মো. জাহিদ। বাকি তিনজনের বয়স ১৮ বছরের নিচে বলে তাদের নাম প্রকাশ করেনি র‌্যাব।

আটকের সময় তাদের কাছ থেকে চারটি লোহার ছুরি, একটি স্টিলের হাতলযুক্ত কুঠার, গাঁজা, দুটি স্টিলের তৈরি ছুরি, একটি স্টিলের হোল্ডিং চাকু, একটি প্লাস্টিকের পিস্তল সদৃশ্য, ইয়াবা ও ইয়াবা খাওয়ার সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, রাজধানীর ঢাকার বেশ কিছু এলাকাকে ছিনতাই ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমের জন্য হটস্পট হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এরমধ্যে মোহাম্মদপুরের ঢাকা উদ্যান, চাঁদ উদ্যান ও বসিলা ও রায়ের বাজার এলাকা অন্যতম। এসব এলাকায় বেশ কয়েকটি ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও অন্যান্য সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের তথ্য পায় র‌্যাব।

'ভাইব্বা ল কিং' এ কারা?

সংঘবদ্ধ গ্রুপটিতে সদস্য সংখ্যা ১৫-২০ জন। দলের লিডার মোহনের নেতৃত্বে ২/৩ বছর আগে গ্যাংটি গঠন করা হয়। এরা মোহন সিন্ডিকেট নামেও পরিচিত। এই গ্রুপের সদস্যরা আগে ‘লেবেল হাই গ্যাং’এ অন্তর্ভুক্ত ছিল। অন্তর্কোন্দলে এটি ৫/৬টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে যায়। গ্রুপটির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, টিকটকে সক্রিয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের গ্যাংসংক্রান্ত বিভিন্ন উদ্ধত্যপূর্ণ প্রচারণা পাওয়া যায়, যেমন- ‘মোহাম্মপুরের পোলাপান যা করি তা টোকেন ছাড়াই ওপেন’, ‘মোহাম্মদপুরের পোলা বাজান, আমি একাই একশ, গেঞ্জাম করার আগে Vaibba Loiyo’।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মঈন বলেন, ২/৩ বছর ধরে কিশোর গ্যাং চক্রটি মোহাম্মদপুর এলাকায় চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কার্যক্রম, চুরি-ডাকাতি আধিপত্য বিস্তার করে আসছে। তারা ভাড়ায় বিভিন্ন স্থানে হুমকি ও মারপিটে অংশগ্রহণ করে। এছাড়া ইভটিজিংসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত।

গ্রেপ্তার কিশোররা জানায়, ‘ভাইব্বা ল কিং (Vaibba Lo King)’ মানে তাদের সদস্যদের যেই অবস্থায় থাকুক না কেন তারা মোহাম্মদপুরের কিং। অপরাধ কার্যক্রমের মাধ্যমে তারা নিজেদের কিং হিসেবে উপস্থাপন করতে চায়।

গ্রেপ্তার কিশোররা লেগুনা, অটোচালানো, দোকানের কর্মচারী, নির্মাণকর্মী ও অফিসের বার্তাবাহক পেশার পাশাপাশি মোহাম্মদপুর এলাকায় ছিনতাই ও চাঁদাবাজির সঙ্গে জড়িত। তারা বিভিন্ন সময়ে ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে ব্যাংকের আশেপাশে অবস্থান নিয়ে গ্রাহকদের টার্গেট করতো।

পৃষ্ঠপোষকদের সন্ধান মিলেছে, শিগরিরি গ্রেপ্তার

র‌্যাব জানায়, ‘ভাইব্বা ল কিং’ চক্রটিকে আধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যে পেছন থেকে পৃষ্ঠপোষকতা করা হচ্ছে। পৃষ্ঠপোষকদের শনাক্ত করা হয়েছে। চক্রে জড়িত পলাতকসহ পৃষ্ঠপোষকদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মঈন বলেন, র‌্যাবই প্রথম গ্যাং কালচারের নামে গজে উঠা কিশোর গ্যাং-বিরোধী অভিযান শুরু করে। এলাকাভিত্তিক কিশোর গ্যাং-য়ের তালিকা করে ইতিপূর্বে র‌্যাব অভিযান পরিচালনা করেছে। অনেককে আইনের আওতায় নিয়ে এসেছে।

ট্যাগ:

রাজধানী
১৯ টাকা অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে জরিমানা দিল ৫ হাজার

banglanewspaper

বর্ধিত ভাড়ার চেয়েও ১৯ টাকা বেশি ভাড়া আদায় করায় পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা গুণতে হয়েছে গাবতলী থেকে মাওয়া রুটে চলাচলকারী বসুমতি পরিবহনকে।

বুধবার রাজধানীর শাহবাগে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ভ্রাম্যমাণ আদালত এই জরিমানা করেন।

ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধির পর বাসের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু বর্ধিত ভাড়ার চেয়েও অনেক বাসে বেশি ভাড়া আদায় করছেন পরিবহন সংশ্লিষ্টরা। এক্ষেত্রে তারা অজুহাত দেখাচ্ছেন 'ওয়েবিল' নামক এক মনগড়া পদ্ধতির।

জানা যায়, মাওয়া থেকে গাবতলী পর্যন্ত সরকার নির্ধারিত ভাড়া ৯৬ টাকা। কিন্তু বসুমতি পরিবহনের একটি বাসে সেই ভাড়া আদায় করা হয়েছে ১১৫ টাকা। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে এমন চিত্র দেখতে পান ডিএমপির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ডা. সঞ্জিব দাস।

অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার বিষয়ে বসুমতি পরিবহনের চালকের সহকারীর কাছে ব্যাখ্যা চান তিনি। চালকের সহকারী রুবেল মিয়া জানান, তিনি বাড়তি ভাড়া আদায় করছেন না। তিনি ভাড়া আদায় করছেন ওয়েবিল পদ্ধতিতে।

অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে রুবেল মিয়াকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সঞ্জিব দাস বলেন, ‘সম্প্রতি ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে ডিজেলচালিত গণপরিবহনে সরকার ভাড়া নির্ধারণ করে দিয়েছে। আমরা অভিযোগ পাচ্ছিলাম যে পরিবহনগুলো ডিজেল চালিত না, তারা বেশি ভাড়া আদায় করছে। পাশাপাশি ডিজেলচালিত গণপরিবহনে সরকার নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে ডিএমপির পক্ষ থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে।’

ভাড়া বেশি নেওয়া অভিযোগের প্রমাণ পেলেই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বিআরটিএ যে ভাড়া নির্ধারণ করে দিয়েছে এই ভাড়া বেশি নিলেই আমরা বিআরটিএর ৮০ ধারা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। অভিযানের প্রথম ঘন্টায় ৭ গাড়িকে মামলা দিয়ে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।’

এদিকে সকাল ৯টা থেকে দুই ঘণ্টা শাহবাগ মোড়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)।

সংস্থাটির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাকিলা বিনতে মতিনের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত সরকার নির্ধারিত ভাড়া চেয়ে বেশি ভাড়া আদায়ের দায়ে সাতটি বাসকে ২০ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে রুট পারমিট ও ফিটনেস না থাকায় দুইটি বাসকে ডাম্পিংয়ে পাঠানো হয়।

এছাড়া বাড়তি ভাড়ার পাশাপাশি গাড়ির ফিটনেস ও অন্যান্য কাগজপত্র পরীক্ষা করতে দেখা গেছে উভয় ভ্রাম্যমাণ আদালতকে।

এদিকে সকালে ভ্রাম্যমাণ আদালত চলার কারণে শাহবাগ ও আশপাশের সড়কে চলচলকারী গণপরিবহনের সংখ্যা কমে যায়। পুরান ঢাকা থেকে শাহবাগ হয়ে বিভিন্ন রুটে চলা ও মিরপুর মোহাম্মদপুর থেকে শাহবাগ হয়ে চলাচলকারী বাস চলাচল স্থবির হয়ে পরে।

ট্যাগ:

রাজধানী
ঢাকাপ্রকাশ-এর লোগো উন্মোচন করলেন পাঁচ সম্পাদক

banglanewspaper

‘সততাই শক্তি, সুসাংবাদিকতায় মুক্তি’- এ শ্লোগানকে হৃদয়ে ধারণ করে শিগগির প্রকাশিত হতে যাচ্ছে দ্বিভাষিক অনলাইন পত্রিকা ‘ঢাকাপ্রকাশ’। আনুষ্ঠানিক প্রকাশের আগে উন্মোচন করা হলো প্রতিষ্ঠানটির লোগো। অনাড়ম্বর আয়োজনের মধ্য দিয়ে সোমবার বিকালে হোটেল লা ভিঞ্চির মোনালিসা হলে যৌথভাবে লোগো উন্মোচন করেন পাঁচটি প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক ও অনলাইন পত্রিকার পাঁচজন সম্পাদক। অনুষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মধ্য দিয়ে উন্মোচন করা হয় ঢাকাপ্রকাশ-এর লোগো। পরে কেক কেটে তা উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ঢাকাপ্রকাশ-এর প্রধান সম্পাদক কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক মোস্তফা কামাল। তিনি বলেন, ‘প্রায় ৩০ বছর প্রিন্ট মিডিয়ায় সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতা হয়েছে। সাধারণ রিপোর্টার থেকে চিফ রিপোর্টার, উপ-সম্পাদক, নির্বাহী সম্পাদক, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা হয়েছে। এ অভিজ্ঞতার আলোকে দ্বিভাষিক অনলাইন সংবাদমাধ্যম ঢাকাপ্রকাশ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছি।’

মোস্তফা কামাল বলেন, ‘কয়েকজন সুহৃদের সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠা করতে যাচ্ছি ঢাকাপ্রকাশ। এ প্রতিষ্ঠানে কোনো অন্যায় চাপ কিংবা বাধা থাকবে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হৃদয়ে ধারণ করে আমরা সততা ও সুসাংবাদিকতার উদাহরণ সৃষ্টি করব।’

দ্য ডেইলি অবজারভার সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘এ সময় বড় চ্যালেঞ্জ অসততা ও দুর্নীতি। চ্যালেঞ্জ অপসাংবাদিকতা ও হলুদ সাংবাদিকতা। ঢাকাপ্রকাশ-এর শ্লোগানই হলো ‘সততাই শক্তি, সুসাংবাদিকতায় মুক্তি’। আমার বিশ্বাস তারা দুই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে অনন্য নজির স্থাপন করবে। বিভিন্ন কারণেই গণমাধ্যম মোকাবেলা করছে নানা ঝুঁকি। ঝুঁকি থাকবেই। একাত্তরে আমাদের ঝুঁকি ছিল। আমরা ঝুঁকি মোকাবেলা করেই সফল হয়েছি, স্বাধীনতা অর্জন করেছি। ঝুঁকি ছাড়া সফলতা অর্জন করা সম্ভব নয়। আমি বিশ্বাস করি ঢাকাপ্রকাশ সফলতা পাবে।’

বাংলাদেশ জার্নালের সম্পাদক শাহজাহান সরদার বলেন, ‘ঢাকাপ্রকাশ-এর সম্পাদক বিনয়ী ও সৎ মানুষ। আমার বিশ্বাস তিনি সেই সততা ও সুসাংবাদিকতার মাধ্যমে পত্রিকাকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাবেন।’

জিটিভির প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বলেন, ‘কঠিন সময় পার করছে আমাদের গণমাধ্যম জগৎ। কিন্তু এই কঠিন সময়েও আসছে নতুন নতুন পত্রিকা। এটা প্রশংসনীয় দিক। আমি বিশ্বাস করি সততা ও সুসাংবাদিকতার ক্ষেত্রে বড় প্লাটফর্ম হবে ঢাকাপ্রকাশ।’

পাক্ষিক অন্যদিন সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে মোস্তফা কামাল লড়াকু মানুষ। লড়াই করেই তিনি এতদূর এসেছেন। সাংবাদিকতার নানা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। ঢাকাপ্রকাশ তার স্বপ্নের গণমাধ্যম। অনেকদিন ধরে তিনি পরিকল্পনা করছেন। নীরবে কাজ করছেন। তাঁর স্বপ্ন ও অধ্যবসায় সফল হবেই তা প্রত্যাশা করি।’

অনুষ্ঠানে আয়োজকেরা জানান, বিজয়ের মাসে ডিসেম্বরের ১ তারিখে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশিত হবে দ্বিভাষিক অনলাইন পত্রিকা ঢাকাপ্রকাশ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

ট্যাগ:

রাজধানী
মগবাজার ক্রসিংয়ে মালবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত

banglanewspaper

রাজধানীর মগবাজার রেলক্রসিংয়ে একটি মালবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে। এর ফলে ক্রসিংয়ের দুই পাশে সড়কে যানবাহন দীর্ঘ জটলা তৈরি হয়েছে।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়।

জানা যায়, চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনটি কমলাপুর যাচ্ছিল। মগবাজার রেলক্রসিং এলাকা পার হওয়ার সময় বিশাল ট্রেনটির পেছনের বগির চাকা লাইনচ্যুত হয়। এর ফলে বাংলামোটর, এফডিসি ক্রসিং, হাতিরঝিল মোড়, মগবাজার এলাকায় ক্রসিংয়ের দুই পাশে দীর্ঘ যানজট দেখা দিয়েছে। যানজটে আটকা পড়া গাড়িগুলোতে বিকল্প পথে ঘুরিয়ে দিচ্ছে ট্রাফিক পুলিশ। ট্রেনটি সচলে জন্য কাজ করছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

ট্যাগ:

রাজধানী
হাজার টাকায় যৌনকর্মী ভাড়া, সারারাত না থাকায় খুন: ডিবি

banglanewspaper

এক হাজার টাকা চুক্তিতে যৌনকর্মীকে ভাড়া করার পর সারারাত না থাকায় ক্ষিপ্ত হয়ে খুনের পর মরদেহ কার্টনভর্তি করে রাস্তায় ফেলে যায় এক যুবক। হত্যার পর নিহতের মুখ ঝলসে দেওয়া হয়েছিল। হত্যার পরের দিন (১০ অক্টোবর) মরদেহ উদ্ধারের পর তার পরিচয় শনাক্ত করে র্যাব। এরপরই অভিযুক্তকে গ্রেফতারে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ ঘটনায় প্রধান অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গতকাল গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। অভিযুক্তের নাম আব্দুল জব্বার (২৫)।

বুধবার (২০ অক্টোবর) বিকেলে ডিবি গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, গত ১০ অক্টোবর বিকেলে ভাটারা থানার ছোলমাইদ ঢালীবাড়ি এলাকায় নারীর মরদেহ পাওয়া যায়। তাৎক্ষণিক মরদেহের পরিচয় শনাক্ত না হওয়ায় প্রযুক্তির সহায়তায় পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়।

এই ঘটনার পর ডিবি পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ও অপরাধ সংশ্লিষ্ট এলাকার সিসিটিভির ফুটেজ পর্যালোচনা শুরু করে। পরবর্তীতে অপরাধীদের পরিচয় শনাক্ত করা হয়। এরপরই গতকাল অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার জব্বারকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ডিবি জানতে পেরেছে, জব্বার গাড়ির গ্যারেজের কর্মী। আর ওই নারী একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতেন। মাঝে মধ্যে টাকার বিনিময়ে ওই নারী পরিচিতদের সঙ্গে একান্তে সময় কাটাতেন। ৮ অক্টোবর দুপুরে মোবাইলে কথা বলে জব্বারের সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য সে বের হয়। তাকে নিয়ে যমুনা ফিউচার পার্ক এবং ফুটপাতের ফুচকার দোকানে ঘোরাঘুরি করে জব্বার। সন্ধ্যার পরে সে তাকে তার ছোলমাইদ ঢালীবাড়ীর ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। এর আগেই নিজের স্ত্রী-সন্তানকে শ্বশুরবাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। পরবর্তীতে ওই নারীর সঙ্গে যৌনকর্ম শেষ করলে তিনি টাকা দাবি করেন এবং চলে যেতে চান। কিন্তু জব্বার ভিকটিমকে সারা রাতের জন্য রাখতে চায়। এটা শুনে ক্ষিপ্ত হন ওই নারী। হুমকি দেন তার (জব্বারের) সব কর্মকাণ্ড ফাঁস করে দেবেন এবং চিৎকার চেঁচামেচি করে। জব্বারের দাবি, সে নিজের আত্মসম্মান রক্ষার ভয়ে ওই নারীকে (শিপন আক্তার) ঘটনার দিন রাত ১০টার দিকে গলাটিপে হত্যা করে।

তিনি আরও বলেন, জব্বার ইয়াবা আসক্ত ছিল। খুনের পর ভিকটিমের মোবাইল একহাজার টাকায় বিক্রি করে সে তিনটি ইয়াবা কেনে। এসময় তার বন্ধু হীরাকে বাসায় আনে। তারা দুজন একসঙ্গে ইয়াবা সেবন করে এবং মরদেহ গুমের পরিকল্পনা করে। এসময় মরদেহটি প্রথমে একটি কার্টনের মধ্যে রেখে পরবর্তীতে ভাঙারির দোকান থেকে আনা বড় বস্তায় ভরে। পরে রাত তিনটার দিকে জব্বার ও হীরা মরদেহ মাথায় নিয়ে তিনতলা থেকে নামায়। পরবর্তীতে একশ টাকায় রিকশা ভাড়া করে মরদেহটি রাস্তায় ফেলে দেয়।

গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, অভিযুক্তের স্বীকারোক্তিতে চুরি হওয়া মোবাইল, ভিকটিমের ফেলে দেওয়া বোরকা এবং স্যান্ডেলসহ অন্যান্য আলামত উদ্ধার করা হয়েছে। জব্বার আদালতে ঘটনার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

ট্যাগ: