banglanewspaper

তার শেষ ৫ টেস্টে ১২ উইকেট নিয়েছেন।শুরুতেই দলকে ব্রেক থ্রু এনে দেওয়াটা গত এক বছরে অভ্যাসেই পরিণত করেছেন আবু জায়েদ ।  তবে এখনো নিজেকে দলের পেস বোলিংয়ের নেতা ভাবতে রাজি নন ২৬ বছর বয়সী এ পেসার। তাঁর লক্ষ্য শুধু ৫০-এর বেশি টেস্ট খেলা।

টেস্ট ক্রিকেটে দুই বছর কাটিয়ে দেওয়া আবু জায়েদ মনে করেন, এখনো তিনি এই সংস্করণে ‘নবিশ’। যেখানেই খেলার সুযোগ পান, শিখতে চান নতুন কিছু। কদিন আগে ভারত সফরে যেমন তিনি পরামর্শ নিয়েছেন মোহাম্মদ শামির কাছ থেকে। ভারতীয় ফাস্ট বোলার কী বলেছেন, সেটি আজ সাংবাদিকদের কাছে খুলে বললেন আবু জায়েদ, ‘গত বছর শামির সঙ্গে কথা হয়েছিল। সে বলেছে, খেত চেন? বলেছে, খেতে দৌড়াও। এতে শরীর ফিট হবে এবং জোরে বোলিংও করতে পারবে।’

ধারাবাহিক ভালো বোলিং করলেও বিদেশের মাঠে খেলা টেস্টের বেশির ভাগেই এক ইনিংসের বেশি বোলিংয়ের সুযোগ পাননি আবু জায়েদ। সতীর্থ ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় অবশ্য হতাশ হচ্ছেন না তিনি, ‘তখন আমাদের মনে হয় আরও কম রানে যদি প্রতিপক্ষকে অলআউট করতে পারতাম! তাহলে ভালো হতো। ইন্দোরে যদি ওই ক্যাচটা ধরা যেত (৩২ রানে জীবন পেয়ে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল), তাহলে হয়তো কম রানে ওদের অলআউট করতে পারতাম।’

বিদেশে তবুও পেসারদের কিছু করার সুযোগ থাকে। দেশের মাঠে খেলা হলে তাঁরা বেশির ভাগ সময়ে উপেক্ষিত। ঘূর্ণি উইকেট বানানো হয় বলে পেসারদের জন্য বিদেশের চেয়ে দেশের কন্ডিশন হয়ে যায় বেশি কঠিন। আবু জায়েদ এটিকে দেখেন ইতিবাচকভাবেই, ‘দলের জন্য কী করতে হবে, সেটা জানাটাই আসল। দুই পেসার খেলবে নাকি এক পেসার, তা এখনো জানি না। বিসিএল বা জাতীয় লিগে স্পিনাররা বেশি রান দিলে পেসারদের কাজ হয় রান কম দেওয়া। এতে স্পিনাররা পরে এসে উইকেট নিতে পারে। দলের জন্য যেটা কাজে লাগবে, সেটা করাই আসল মোটিভেশন।’

ট্যাগ: bdnewshour24 ধানখেত দৌড় জোরে বোলিং