banglanewspaper

দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আগামী বছর থেকে সমন্বিত পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার যে আলোচনা চলছিলো তাতে অংশ না নেয়ার কথা জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

আজ সোমবার (২৪শে ফেব্রুয়ারি) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত জানানো হয়।

অ্যাকাডেমিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ পর্ষদ অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অধ্যাপক, বিভাগের চেয়ারম্যান ও বিভিন্ন ইনস্টিটিউটের পরিচালকরা অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য। এর আগে অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভার বিষয়ে সদস্যদের চিঠি পাঠানো হয়েছে। চিঠিতে সভার আলোচ্য বিষয় হিসেবে দুটি বিষয় উল্লেখ করা হয়। 

অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোন সিদ্ধান্ত ব্যক্তি পর্যায় থেকে নেয় হয় না।  সব সিদ্ধান্তই সংশ্লিষ্ট পর্ষদ বা বডিতে আলোচনা করে মতামতের ভিত্তিতে নেয়া হয়।

তিনি বলেন, সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিষয়টি একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের বিষয়। এ বিষয়ে অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সদস্যদের আলোচনা করা হবে। পাশাপাশি সান্ধ্য কোর্স বিষয়ে বিভিন্ন আলোচনা হচ্ছে। এ জন্য আমরা একটি যৌক্তিকতা যাচাই কমিটি গঠন করেছিলাম। সে কমিটি একটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।

জানা যায়, সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ বিষয়ে উপাচার্যদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চূড়ান্ত সভা অনুষ্ঠিত হবে। ওই সভায় কেন্দ্রীয়ভাবে অনুষ্ঠিতব্য ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাতে হবে। এজন্য এর আগেই বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হয়।

এর আগে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়-বুয়েটও সমন্বিত পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ না নেয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানায়। গেল ২০শে ফেব্রুয়ারি বুয়েটের একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে সাধুবাদ জানালেও এতে যোগ না দেয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানান বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক মিজানুর রহমান।

তবে, এখন পর্যন্ত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া দেশের অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সমন্বিত পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার বিষয়ে একমত হয়েছে।

ট্যাগ: bdnewshour24 ঢাবি