banglanewspaper

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নাগরিকত্বের কোনো কাগজপত্র নেই। জন্মসূত্রেই তিনি ভারতীয়। এমন তথ্য জানিয়েছে খোদ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় (পিএমও)।

আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, তথ্য অধিকার আইনে (আরটিআই) মোদির নাগরিকত্ব নিয়ে এক ব্যক্তির প্রশ্নের জবাবে পিএমও এ তথ্য দিয়েছে। কাগজপত্রের অভাবে নাগরিকত্ব তালিকায় (এনআরসি) নাম তুলতে না পেরে অনিশ্চিত জীবন যাপন করছে আসামের হাজার হাজার মানুষ। আত্মহত্যাও করেছেন অনেকে। বন্দিশিবিরে আটক রয়েছেন বহু মানুষ।



কাগজপত্র জোগাড় করতে না পেরে এনআরসি আতঙ্কে পশ্চিমবঙ্গে বেশ কয়েকজন আত্মহত্যা করেছেন। এরই মধ্যে খোদ প্রধানমন্ত্রী মোদির নাগরিকত্বের কাগজপত্র না থাকার তথ্য দিয়েছে পিএমও। অথচ এনআরসি করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় আসে বিজেপি সরকার।

জানা গেছে, গত ১৭ জানুয়ারি শুভঙ্কর সরকার নামে এক ব্যক্তি আরটিআই-এর মাধ্যমে জানতে চান প্রধানমন্ত্রীর নাগরিকত্বের কাগজপত্র রয়েছে কিনা।



জবাবে পিএমও সচিব প্রবীণ কুমার জানান, ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইনের ৩ ধারা অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী জন্মসূত্রেই ভারতীয়।

এখন প্রশ্ন উঠেছে- এর পরে নাগরিকত্বের কাগজপত্র চাওয়া হলে সাধারণ জনগণও যদি জন্মসূত্রে নাগরিকত্বের দাবি তোলে, তা কি গ্রাহ্য হবে?

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এর আগে একাধিকবার জানিয়েছে, ২০১১ ও ২০১৫ সালের জাতীয় জনগণনা পঞ্জি প্রক্রিয়ার পরে দেওয়া পরিচয়পত্র যাদের কাছে নেই, তারা নাগরিক নন। দেশের মানুষের বড় অংশের কাছেই সেই পরিচয়পত্র নেই।



বিরোধী দলের নেতা প্রশ্ন তুলেছেন, তাহলে বিজেপি কাদের ভোটে জিতল? অবশ্য এ প্রশ্নের জবাব দেয়নি নরেন্দ্র মোদি সরকার।

ট্যাগ: bdnewshour24