banglanewspaper

জাহান্নাম শব্দটি খুবিই পরিচিত একটি শব্দ। বিশেষ করে মুসলমানদের কাছে। কোরআনুল কারিমে যেখানেই জাহান্নামের কথা বলেছেন তার শুরুতে অথবা শেষে বান্দাদের আশ্বস্ত করতে জান্নাতের কথা বর্ণনা করেছেন। ইসলামের পরিভাষায় জাহান্নাম হলো পরকালের আবাসস্থল যা এমন পাপীদের জন্য নিদ্দিষ্ট যারা আল্লাহ’র ক্ষমা লাভ করবে না।



মহাগ্রন্থ আল কোরআনুল কারিম ও  রাসুল মুহাম্মাদ-এর হাদিসে এবং পরবর্তী সময়ের ইসলামী পণ্ডিতদের লেখাতেও জাহান্নামের বর্ণনা উল্লেখ করা হয়েছে। কোরাআন-এর বর্ণনা অনুযায়ী জাহান্নামের স্তর সাতটি এবং দরজাও সাতটি। পরকালে জাহান্নামিরা খুবিই আফসোস ও আকাঙ্ক্ষা করবে। নিম্নে জাহান্নামিদের চারটি আকাঙ্ক্ষা বর্ণনা করা হলো।


প্রথম আকাঙ্ক্ষা

তারা জাহান্নাম থেকে বের হতে চাইবে। তাই তারা আল্লাহ তা'আলাকে বলবেঃ
"হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদেরকে জাহান্নাম থেকে বের করে নাও। আমরা যদি আবারও কুফরী করি তাহলে আমরা জালেম বলে গণ্য হবো।
তখন তিনি তাদেরকে বলবেনঃ َ"তোমরা এখানে লাঞ্ছিত অবস্থায় পড়ে থাকো এবং আমার সাথে কোন কথা বলিও না"। এই প্রত্যাশা থেকে নিরাশ হওয়ার পর তারা নিশ্চিতভাবে বুঝতে পারবে যে তাদের বের হওয়ার আর কোন পন্থা নেই। তখন তারা দ্বিতীয় আশাটি করবে।



দ্বিতীয় আকাঙ্ক্ষাঃ

তারা জাহান্নামের দাড়োয়ান মালিকের কাছে আবেদন জানাবে তিনি যেন তাদের জন্য আল্লাহর কাছে সুপারিশ করেন।
আল্লাহ তা'আলা বলেনঃ وَنَادَوْا يَا مَالِكُ لِيَقْضِ عَلَيْنَا رَبُّكَ তারা (জাহান্নামীরা) ডাকবে, হে মালেক (জাহান্নামে দাড়োয়ান) তোমার পালনকর্তা যেন আমাদের জন্য একটা ফয়সালা করেন। অর্থাৎ আজাব থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য তারা মরতে চাইবে। তখন তিনি বলবেনঃ তোমরা এখানেই অবস্থান করবে।

তৃতীয় আকাঙ্ক্ষাঃ

আশ্চর্য এক আকাঙ্ক্ষা! শুনলেই শরীরের লোম খাড়া হয়ে যায়! আর তা হচ্ছে অন্তত একদিনের শাস্তি থেকে বাঁচতে চাওয়া।
"যারা আগুনের মধ্যে থাকবে তারা জাহান্নামের প্রহরীদেরকে ডেকে বলবে, তোমাদের প্রতিপালকের নিকট একটু দোয়া করো, তিনি যেন আমাদের থেকে (অন্তত) একদিনের শাস্তি কমিয়ে দেন"!!!



তখন জাহান্নামের প্রহরীরা তাদেরকে বলবেঃ
"তোমাদের রাসূলগণ কি তোমাদের নিকট সুস্পষ্ট প্রমাণ নিয়ে আগমন করেননি? তারা বলবেঃ হ্যাঁ, তখন ফেরেশতারা আবারও বলবেনঃ তাহলে তোমরা ডাকতে থাকো আর কাফেরদের দোয়া ব্যর্থই হবে। তারপর তারা চতুর্থ আকাঙ্ক্ষাটি করবে জান্নাতীদের থেকে।

চতুর্থ আকাঙ্ক্ষাঃ
আর জাহান্নামের অধিবাসীরা জান্নাতের অধিবাসীদের ডেকে বলবে, “আমাদের ওপর কিছু পানি ঢেলে দাও অথবা আল্লাহ তোমাদেরকে যে জীবিকা (খাদ্য) দান করেছেন তার কিছু অংশ আমাদের দিকে দাও।” তারা বলবে, “আল্লাহ তো (আজ) এ দুটোই কাফেরদের জন্য হারাম করেছেন।
কেন হারাম করা হলো? তারা কি করতো??



তারা তো সেইসব লোক যারা তাদের দ্বীনকে বিনোদন ও খেলার বস্তু হিসেবে গ্রহণ করেছিল। এবং দুনিয়ার জীবন তাদেরকে ধোঁকা দিয়েছিল।

ট্যাগ: bdnewshour24 জাহান্নাম