banglanewspaper

ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রায় এক কোটি ৫০ লাখ টাকা মূল্যের দুই কেজি ৯৫০ গ্রাম স্বর্ণসহ মালয়েশিয়া থেকে আগত এক যাত্রীকে আটক করেছে ঢাকা কাস্টম হাউস।

ঢাকা কাস্টম হাউস জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চোরাচালান প্রতিরোধে ঢাকা কাস্টম হাউসের প্রিভেন্টিভ কর্মকর্তারা বিমানবন্দরের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে নজরদারি করতে থাকেন।

এক পর্যায়ে রাত সাড়ে ১১টার দিকে মালয়েশিয়া থেকে আগত এমএইচ১৯৬ নম্বর ফ্লাইটের যাত্রী শেখ সাদিকে চ্যালেঞ্জ ও তল্লালি করা হলে তার কাছে দুই কেজি ৯৫০ গ্রাম স্বর্ণ পাওয়া যায়।[ads]

আটককৃত স্বর্ণের বিষয়ে কাস্টমস আইনে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে এবং আটককৃত যাত্রীকে পুলিশে সোপর্দ করার প্রক্রিয়া চলছে।

ট্যাগ: bdnewshour24 শাহজালাল

রাজধানী
কাপ্তানবাজারে ঘাতক সেই বাসচালক আটক

banglanewspaper

রাজধানীর গুলিস্তানের কাপ্তানবাজার মোড়ে ব্রেক ফেল করা একটি বাসের চাপায় দুই পথচারীর মৃত্যুর ঘটনায় ঘাতক বাসটির চালক ও তার সহকারীকে আটক করেছে র‌্যাব।

শনিবার রাতে রাজধানীতে পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। চালকের নাম রকিব। তাকে রাজধানীর ভাটারা থেকে আটক করা হয়। আর তার সহকারীর নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

এলিট ফোর্স র‌্যাবের একাধিক সূত্র এই তথ্য নিশ্চিত করে জানায়, দুর্ঘটনার পর বাসটির চালক ও তার সহকারী সেখান থেকে পালিয়ে আত্মগোপনে যান। পরে পৃথক অভিযানে তাদের আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

শনিবার সকালে মেঘলা পরিবহনের বাসের চাপায় দুজনের মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে মরদেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মর্গে পাঠায় পুলিশ। আহত হন অন্তত ১০ জন।

প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন জানান, অন্যান্য দিনের তুলনায় শনিবার কাপ্তানবাজার এলাকায় লোকসমাগম বেশি ছিল। ভোরে কাপ্তানবাজারের কসাইপট্টিতে আগুনে পুড়ে যাওয়া দোকানপাট দেখতে ভিড় করেছিলেন অনেকে। নয়টার দিকে কাপ্তানবাজার মোড়ে কয়েকজন দাঁড়িয়েছিলেন। এ সময় মেঘলা পরিবহনের একটি বাস দ্রুতগতিতে এসে তাদের ওপর উঠিয়ে দেন। এতে ঘটনাস্থলেই দুজন মারা যান। তারা হলেন মো. বাদশা ও মো. ফরিদ। আহত হন অন্তত ১০ জন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা আরও জানান, ব্রেক ফেল করায় বাসটি ফ্লাইওভারের সিঁড়ির পাশে ঘষা লাগতে লাগতে চলে আসে। বাসটির গতি দেখে দাঁড়িয়ে থাকা অনেকে দ্রুত সরে যেতে সক্ষম হলেও ১০ জন বাসটির সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। দুর্ঘটনার পর ওই সড়কটি দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।

এদিকে সন্ধ্যায় নিহত ফরিদের ভাই বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। এতে আসামি করা হয়েছে অজ্ঞাত পরিচয় কয়েকজনকে।

ট্যাগ:

রাজধানী
আইল্যান্ড ভেঙে মাইক্রোর ওপর এনা বাস, সেই চালক আটক

banglanewspaper

রাজধানীর খিলক্ষেতে হোটেল লা মেরিডিয়ানের সামনে ওভারটেক করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এনা পরিবহনের একটি বাস আইল্যান্ড ভেঙে পাশের লেনের মাইক্রোবাসের ওপরে উঠে যাওয়ার ঘটনায় বাসচালককে আটক করেছে র‌্যাব। মঙ্গলবার বাসচালককে মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে র‌্যাব আটক করে। রাতে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন।

র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, 'খিলক্ষেতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এনা পরিবহনের একটি বাস আইল্যান্ড ভেঙে পাশের লেনের মাইক্রোবাসের ওপরে উঠে যাওয়ার ঘটনায় বাসচালককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।'

এর আগে আহত মাইক্রোবাসচালক বাদী হয়ে এনা পরিবহনের অজ্ঞাত বাসচালককে আসামি করা খিলক্ষেত থানায় মামলা করেন। রাতে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেন খিলক্ষেত থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আমিনুল ইসলাম।

পুশিল কর্মকর্তা বলেন, সকাল সাড়ে ৯টায় মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যাওয়া এনা পরিবহনের বাসটি উত্তরার দিক থেকে আসা মাইক্রোবাসের ওপরে উঠে যায়। এ ঘটনায় মাইক্রোবাসচালক বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। মামলায় এনা পরিবহনের চালককে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

এর আগে সকালে ট্রাফিক বিমানবন্দর জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) সাইফুল মালিক বলেন, সকাল ৯টার দিকে এনা পরিবহনের একটি বাস মহাখালী বাস টার্মিনাল ছেড়ে সিলেটের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিল। আর মাইক্রোবাসটি উত্তরা থেকে আসছিল। হঠাৎ বাসটি একটি গাড়িকে ওভারটেক করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আইল্যান্ড ভেঙে মাইক্রোবাসের ওপর তুলে দেয়।

এতে কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি জানিয়ে ট্রাফিকের এ কর্মকর্তা বলেন, কিছু মানুষ হয়তো আহত হয়েছে, তবে ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে তারা হাসপাতালে চলে গেছেন। আমরা এসে তাদের পাইনি। ঘটনাস্থল থেকে এনা পরিবহনের বাস ও মাইক্রোবাস রেকার করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

ট্যাগ:

রাজধানী
দিনে টিকটকার, রাতে ‘ভাইব্বা ল কিং’ গ্যাংয়ের সদস্য

banglanewspaper

তাদের কেউ অটোরিকশা চালক, কেউ দোকানের কর্মচারী, কেউ নির্মাণ শ্রমিক, কেউ অফিসের পিয়ন। তবে সবাই ‘ভাইব্বা ল কিং’ (Vaibba Lo King) নামে একটি কিশোর গ্যাং চক্রে জড়িত। তারা দিনে বিভিন্ন অশ্লীল ভঙ্গিতে বানাতো টিকটক ভিডিও। আর রাত হলেই বেরিয়ে পড়তো ছিনতাইয়ে। গত রাতে (সোমবার) এক দম্পতিকে ছিনতাইয়ের পর র‌্যাব এই চক্রটির নয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করে।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার মিডিয়া সেন্টারে র‌্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার মঈন বলেন, এই চক্রের সদস্য সংখ্যা ১৫/২০ জন। তারা দিনে বিভিন্ন পেশায় জড়িত থাকার পাশাপাশি টিকটক ভিডিও বানাতো। যেখানে অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে চিত্র ধারণ করা হতো। আর রাত হলেই ছিনতাইয়ে নেমে পড়তো। গত ২/৩ বছর ধরে রাজধানী মোহাম্মদপুরের চাঁদ উদ্যান, ঢাকা উদ্যান, বসিলা ও রায়েরবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সময় সশস্ত্র মহড়া, ভাড়ায় শোডাউন করে আসছিল। গতরাতে এক দম্পত্তির অভিযোগে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাব জানায়, গ্রেপ্তার কিশোররা হলো, মো. রুমান, গ্যাং লিডার শরীফ ওরফে মোহন, মো. উদয়, মো. শাকিল, মো. নয়ন ও মো. জাহিদ। বাকি তিনজনের বয়স ১৮ বছরের নিচে বলে তাদের নাম প্রকাশ করেনি র‌্যাব।

আটকের সময় তাদের কাছ থেকে চারটি লোহার ছুরি, একটি স্টিলের হাতলযুক্ত কুঠার, গাঁজা, দুটি স্টিলের তৈরি ছুরি, একটি স্টিলের হোল্ডিং চাকু, একটি প্লাস্টিকের পিস্তল সদৃশ্য, ইয়াবা ও ইয়াবা খাওয়ার সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, রাজধানীর ঢাকার বেশ কিছু এলাকাকে ছিনতাই ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমের জন্য হটস্পট হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এরমধ্যে মোহাম্মদপুরের ঢাকা উদ্যান, চাঁদ উদ্যান ও বসিলা ও রায়ের বাজার এলাকা অন্যতম। এসব এলাকায় বেশ কয়েকটি ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও অন্যান্য সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের তথ্য পায় র‌্যাব।

'ভাইব্বা ল কিং' এ কারা?

সংঘবদ্ধ গ্রুপটিতে সদস্য সংখ্যা ১৫-২০ জন। দলের লিডার মোহনের নেতৃত্বে ২/৩ বছর আগে গ্যাংটি গঠন করা হয়। এরা মোহন সিন্ডিকেট নামেও পরিচিত। এই গ্রুপের সদস্যরা আগে ‘লেবেল হাই গ্যাং’এ অন্তর্ভুক্ত ছিল। অন্তর্কোন্দলে এটি ৫/৬টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে যায়। গ্রুপটির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, টিকটকে সক্রিয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের গ্যাংসংক্রান্ত বিভিন্ন উদ্ধত্যপূর্ণ প্রচারণা পাওয়া যায়, যেমন- ‘মোহাম্মপুরের পোলাপান যা করি তা টোকেন ছাড়াই ওপেন’, ‘মোহাম্মদপুরের পোলা বাজান, আমি একাই একশ, গেঞ্জাম করার আগে Vaibba Loiyo’।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মঈন বলেন, ২/৩ বছর ধরে কিশোর গ্যাং চক্রটি মোহাম্মদপুর এলাকায় চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কার্যক্রম, চুরি-ডাকাতি আধিপত্য বিস্তার করে আসছে। তারা ভাড়ায় বিভিন্ন স্থানে হুমকি ও মারপিটে অংশগ্রহণ করে। এছাড়া ইভটিজিংসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত।

গ্রেপ্তার কিশোররা জানায়, ‘ভাইব্বা ল কিং (Vaibba Lo King)’ মানে তাদের সদস্যদের যেই অবস্থায় থাকুক না কেন তারা মোহাম্মদপুরের কিং। অপরাধ কার্যক্রমের মাধ্যমে তারা নিজেদের কিং হিসেবে উপস্থাপন করতে চায়।

গ্রেপ্তার কিশোররা লেগুনা, অটোচালানো, দোকানের কর্মচারী, নির্মাণকর্মী ও অফিসের বার্তাবাহক পেশার পাশাপাশি মোহাম্মদপুর এলাকায় ছিনতাই ও চাঁদাবাজির সঙ্গে জড়িত। তারা বিভিন্ন সময়ে ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে ব্যাংকের আশেপাশে অবস্থান নিয়ে গ্রাহকদের টার্গেট করতো।

পৃষ্ঠপোষকদের সন্ধান মিলেছে, শিগরিরি গ্রেপ্তার

র‌্যাব জানায়, ‘ভাইব্বা ল কিং’ চক্রটিকে আধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যে পেছন থেকে পৃষ্ঠপোষকতা করা হচ্ছে। পৃষ্ঠপোষকদের শনাক্ত করা হয়েছে। চক্রে জড়িত পলাতকসহ পৃষ্ঠপোষকদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মঈন বলেন, র‌্যাবই প্রথম গ্যাং কালচারের নামে গজে উঠা কিশোর গ্যাং-বিরোধী অভিযান শুরু করে। এলাকাভিত্তিক কিশোর গ্যাং-য়ের তালিকা করে ইতিপূর্বে র‌্যাব অভিযান পরিচালনা করেছে। অনেককে আইনের আওতায় নিয়ে এসেছে।

ট্যাগ:

রাজধানী
১৯ টাকা অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে জরিমানা দিল ৫ হাজার

banglanewspaper

বর্ধিত ভাড়ার চেয়েও ১৯ টাকা বেশি ভাড়া আদায় করায় পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা গুণতে হয়েছে গাবতলী থেকে মাওয়া রুটে চলাচলকারী বসুমতি পরিবহনকে।

বুধবার রাজধানীর শাহবাগে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ভ্রাম্যমাণ আদালত এই জরিমানা করেন।

ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধির পর বাসের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু বর্ধিত ভাড়ার চেয়েও অনেক বাসে বেশি ভাড়া আদায় করছেন পরিবহন সংশ্লিষ্টরা। এক্ষেত্রে তারা অজুহাত দেখাচ্ছেন 'ওয়েবিল' নামক এক মনগড়া পদ্ধতির।

জানা যায়, মাওয়া থেকে গাবতলী পর্যন্ত সরকার নির্ধারিত ভাড়া ৯৬ টাকা। কিন্তু বসুমতি পরিবহনের একটি বাসে সেই ভাড়া আদায় করা হয়েছে ১১৫ টাকা। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে এমন চিত্র দেখতে পান ডিএমপির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ডা. সঞ্জিব দাস।

অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার বিষয়ে বসুমতি পরিবহনের চালকের সহকারীর কাছে ব্যাখ্যা চান তিনি। চালকের সহকারী রুবেল মিয়া জানান, তিনি বাড়তি ভাড়া আদায় করছেন না। তিনি ভাড়া আদায় করছেন ওয়েবিল পদ্ধতিতে।

অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে রুবেল মিয়াকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সঞ্জিব দাস বলেন, ‘সম্প্রতি ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে ডিজেলচালিত গণপরিবহনে সরকার ভাড়া নির্ধারণ করে দিয়েছে। আমরা অভিযোগ পাচ্ছিলাম যে পরিবহনগুলো ডিজেল চালিত না, তারা বেশি ভাড়া আদায় করছে। পাশাপাশি ডিজেলচালিত গণপরিবহনে সরকার নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে ডিএমপির পক্ষ থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে।’

ভাড়া বেশি নেওয়া অভিযোগের প্রমাণ পেলেই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বিআরটিএ যে ভাড়া নির্ধারণ করে দিয়েছে এই ভাড়া বেশি নিলেই আমরা বিআরটিএর ৮০ ধারা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। অভিযানের প্রথম ঘন্টায় ৭ গাড়িকে মামলা দিয়ে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।’

এদিকে সকাল ৯টা থেকে দুই ঘণ্টা শাহবাগ মোড়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)।

সংস্থাটির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাকিলা বিনতে মতিনের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত সরকার নির্ধারিত ভাড়া চেয়ে বেশি ভাড়া আদায়ের দায়ে সাতটি বাসকে ২০ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে রুট পারমিট ও ফিটনেস না থাকায় দুইটি বাসকে ডাম্পিংয়ে পাঠানো হয়।

এছাড়া বাড়তি ভাড়ার পাশাপাশি গাড়ির ফিটনেস ও অন্যান্য কাগজপত্র পরীক্ষা করতে দেখা গেছে উভয় ভ্রাম্যমাণ আদালতকে।

এদিকে সকালে ভ্রাম্যমাণ আদালত চলার কারণে শাহবাগ ও আশপাশের সড়কে চলচলকারী গণপরিবহনের সংখ্যা কমে যায়। পুরান ঢাকা থেকে শাহবাগ হয়ে বিভিন্ন রুটে চলা ও মিরপুর মোহাম্মদপুর থেকে শাহবাগ হয়ে চলাচলকারী বাস চলাচল স্থবির হয়ে পরে।

ট্যাগ:

রাজধানী
ঢাকাপ্রকাশ-এর লোগো উন্মোচন করলেন পাঁচ সম্পাদক

banglanewspaper

‘সততাই শক্তি, সুসাংবাদিকতায় মুক্তি’- এ শ্লোগানকে হৃদয়ে ধারণ করে শিগগির প্রকাশিত হতে যাচ্ছে দ্বিভাষিক অনলাইন পত্রিকা ‘ঢাকাপ্রকাশ’। আনুষ্ঠানিক প্রকাশের আগে উন্মোচন করা হলো প্রতিষ্ঠানটির লোগো। অনাড়ম্বর আয়োজনের মধ্য দিয়ে সোমবার বিকালে হোটেল লা ভিঞ্চির মোনালিসা হলে যৌথভাবে লোগো উন্মোচন করেন পাঁচটি প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক ও অনলাইন পত্রিকার পাঁচজন সম্পাদক। অনুষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মধ্য দিয়ে উন্মোচন করা হয় ঢাকাপ্রকাশ-এর লোগো। পরে কেক কেটে তা উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ঢাকাপ্রকাশ-এর প্রধান সম্পাদক কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক মোস্তফা কামাল। তিনি বলেন, ‘প্রায় ৩০ বছর প্রিন্ট মিডিয়ায় সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতা হয়েছে। সাধারণ রিপোর্টার থেকে চিফ রিপোর্টার, উপ-সম্পাদক, নির্বাহী সম্পাদক, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা হয়েছে। এ অভিজ্ঞতার আলোকে দ্বিভাষিক অনলাইন সংবাদমাধ্যম ঢাকাপ্রকাশ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছি।’

মোস্তফা কামাল বলেন, ‘কয়েকজন সুহৃদের সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠা করতে যাচ্ছি ঢাকাপ্রকাশ। এ প্রতিষ্ঠানে কোনো অন্যায় চাপ কিংবা বাধা থাকবে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হৃদয়ে ধারণ করে আমরা সততা ও সুসাংবাদিকতার উদাহরণ সৃষ্টি করব।’

দ্য ডেইলি অবজারভার সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘এ সময় বড় চ্যালেঞ্জ অসততা ও দুর্নীতি। চ্যালেঞ্জ অপসাংবাদিকতা ও হলুদ সাংবাদিকতা। ঢাকাপ্রকাশ-এর শ্লোগানই হলো ‘সততাই শক্তি, সুসাংবাদিকতায় মুক্তি’। আমার বিশ্বাস তারা দুই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে অনন্য নজির স্থাপন করবে। বিভিন্ন কারণেই গণমাধ্যম মোকাবেলা করছে নানা ঝুঁকি। ঝুঁকি থাকবেই। একাত্তরে আমাদের ঝুঁকি ছিল। আমরা ঝুঁকি মোকাবেলা করেই সফল হয়েছি, স্বাধীনতা অর্জন করেছি। ঝুঁকি ছাড়া সফলতা অর্জন করা সম্ভব নয়। আমি বিশ্বাস করি ঢাকাপ্রকাশ সফলতা পাবে।’

বাংলাদেশ জার্নালের সম্পাদক শাহজাহান সরদার বলেন, ‘ঢাকাপ্রকাশ-এর সম্পাদক বিনয়ী ও সৎ মানুষ। আমার বিশ্বাস তিনি সেই সততা ও সুসাংবাদিকতার মাধ্যমে পত্রিকাকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাবেন।’

জিটিভির প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বলেন, ‘কঠিন সময় পার করছে আমাদের গণমাধ্যম জগৎ। কিন্তু এই কঠিন সময়েও আসছে নতুন নতুন পত্রিকা। এটা প্রশংসনীয় দিক। আমি বিশ্বাস করি সততা ও সুসাংবাদিকতার ক্ষেত্রে বড় প্লাটফর্ম হবে ঢাকাপ্রকাশ।’

পাক্ষিক অন্যদিন সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে মোস্তফা কামাল লড়াকু মানুষ। লড়াই করেই তিনি এতদূর এসেছেন। সাংবাদিকতার নানা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। ঢাকাপ্রকাশ তার স্বপ্নের গণমাধ্যম। অনেকদিন ধরে তিনি পরিকল্পনা করছেন। নীরবে কাজ করছেন। তাঁর স্বপ্ন ও অধ্যবসায় সফল হবেই তা প্রত্যাশা করি।’

অনুষ্ঠানে আয়োজকেরা জানান, বিজয়ের মাসে ডিসেম্বরের ১ তারিখে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশিত হবে দ্বিভাষিক অনলাইন পত্রিকা ঢাকাপ্রকাশ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

ট্যাগ: