banglanewspaper

নাগরপুর(টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার বেকড়া ইউনিয়নের সাতগাছা গ্রামে আজ দুপুরে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় চাপাতির কোপে আহত চাচা আওলাদ এখন হাসপাতালে।

আব্দুল করিম এর ছেলে আউলাদ (২২) সাতগাছা গ্রামে নিজেদের জমিতে ধানের চারা রোপন সময় রাস্তার পাশে বিশ্রাম নেয়ার সময় ৮-১০ জনের একদল সন্ত্রাসী যুবক আউলাদকে এলোপাতাড়ি ভাবে চাপাতি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে পালিয়ে যায়।

ঘটনায় আহত আউলাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, কিছুদিন আগে তার ৯ম শ্রেণির ভাতিজীকে স্কুলে যাতায়াতের সময় মনসুর ইভটিজিং করত। এই বিষয়ে তাকে নিষেধ করায় তাকে কোপায়। প্রথমে একই গ্রামের ইনুর ছেলে মনসুর(২২) চাপাতি দিয়ে আউলাদের হাতে কোপ দেয়। পরে শুরভ আলীর ছেলে হৃদয় (২০) পেছন থেকে পিঠে কোপ দিলে আউলাদ মাটিতে পড়ে গেলে ইনুর ছেলে রুপক (২০),  হালিমের ছেলে আসাদুল (১৮), ইব্রাহীমের ছেলে ইলিয়াস (৩০), দেলোয়ারের ছেলে রাসেল সবাই মিলে এলোপাতাড়ি ভাবে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে আউলাদকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনা দেখে পাশের জমিতে কাজরত শফিকুল, মহিদুল, জুয়েল ও শাকিল তাকে উদ্ধার করে নাগরপুর সদর হাসপাতালের নিলে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আহতের আঘাতের স্থানের অবস্থ আশঙ্খাজনক হওয়ায় ডা. আকিব হোসেন আউলাদকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন।

সংবাদটি লেখার সময় পর্যন্ত থানায় এ বিষয়ে কোন অভিযোগ দেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন আউলাদের বাবা আব্দুল করিম।

ট্যাগ: bdnewshour24