banglanewspaper

এবিএম আতিকুর রহমান বাশার: দেবীদ্বারে ২ প্রবাসীকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। রোববার সকালে দেবীদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আহম্মেদ কবির ওই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সূত্র- সিএসসি/শা- ২০২০/১৫৬০/১(১৭) তারিখ- ১৪/০৩/২০২০ইং, স্মারকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোর আওতায় করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগির বর্ণনা, নতুন- পুরাতন রোগি থেকে থাকলে তাদের সংখ্যা ইত্যাদি বিষয়ে সংশ্লিষ্ট জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে দৈনিক তথ্য প্রদানের নির্দেশ প্রাপ্তির এক দিনের মাথায় ২ প্রবাসীকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে তথ্য পাওয়া গেছে। যার তথ্য আমরা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে প্রেরন করেছি। 

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ওই ২ প্রবাসী সম্পর্কে ডাঃ আহমেদ কবির জানান, দেবীদ্বার উপজেলার এলাহাবাদ ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের মোঃ আবুল হোসেন’র পুত্র বাহরাইন প্রবাসী মোঃ সোহেল গত ৪মার্চ এবং গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়নের ধলাহাস গ্রামের মোঃ মনু মিয়ার পুত্র সৌদী প্রবাসী মোঃ মজিবুর রহমান গত ৫মার্চ দেশে আসেন। তাদের সর্দি, কাসি, জ্বরে আক্রান্ত থাকায় বিভিন্ন মাধ্যম এবং আমাদের ইউনিয়ন স্বাস্থ্য সহকারীদের তথ্যের ভিত্তিতে ওই বিষয়টি নিশ্চিত হই। 

রোববার বেলা ৩টায় এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত দেবীদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আহম্মেদ কবির’র সাথে যোগাযোগ করে জানা যায়, মোঃ মজিবুর রহমান সুস্থ্য আছেন এবং মোঃ সোহেল’র জ¦র এখনো সারেনি। তাই দু’জনকেই তাদের নিজ বাড়িতে কোয়ারেন্টাইনে রেখে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। সেল ফোনে তাদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত আছে এবং স্বাস্থ্যের উন্নতি ও অবনতির খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।

এ সময় পরিবার ও আত্মীয় স্বজনের সাথে সম্পূর্ণ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রাখা হয়েছে। আমাদের সর্বশেষ পরিস্থিতি পর্যবেক্ষনের পর সুস্থ্য হওয়ার নির্দেশ দেয়ার আগ পর্যন্ত তারা হোম কোয়ারেন্টাইনেই অবস্থান নিতে হবে। তবে যদি কোন রোগির অবস্থা জটিল আকার ধারন করে, তাহলে তাদের ঢাকা মহাখালী ‘আই-ই-ডিসিআর’-এ স্থানান্তরিত করা হবে। কারন,- করোনা ভাইরাস আক্রান্তদের চিহ্নীত এবং সেবাদানে ওটাই আমাদের দেশের একমাত্র সেবা কেন্দ্র।

সর্বশেষ অবস্থান জানতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে হোম কোয়ারেন্টাইনে চিকিৎসারত ধলাহাস গ্রামের মোঃ মনু মিয়ার পুত্র সৌদী প্রবাসী মোঃ মজিবুর রহমান’র সাথে সেল ফোনে যোগাযোগ করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি তবে এলাহাবাদ ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের বারাইন প্রবাসী মোঃ আবুল হোসেন জানান, আমি এখন অনেকটাই সুস্থ্য চিকিৎসকের নির্দেশ মেনেই ঔষধ সেবন করে আসছি। এখন জ¦র একটু কমে আসছে। স্বজনদের সাথে সেল ফোনেই কথা বলছি।

এ ব্যপারে সাবেক কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ও বর্তমানে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ মজিবুর রহমান’র সাথে সেল ফোনে যােগাযোগ করলে তিনি জানান, এ বিষয়টি নিয়ে আতঙ্কতি হওয়ার কোন কারন নেই। করোনা আক্রান্ত প্রবণ দেশগুলো থেকে আমাদের দেশে আসা লোকজনকে বিমানবন্দরে থাকা অবস্থাই প্রাথমিক পরীক্ষা করে ছাড়া হয়। এসময় বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার একটি নির্দেশিকাও তাদের দেয়া হয়, যাতে দেশে আসার পর স্বর্দি, কাশি, গলাব্যাথা, জ্বর দেখা দিলে ঢাকা মহাখালী ‘আই-ই-ডিসিআর’র হট লাইনে ফোনে যোগাযোগ করতে বলা হয়। তাদের নির্দেশ অনুযায়ী হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকেই চিকিৎসা সেবা নিতে হবে।

১৪দিন এলক্ষণগুলো পরিবর্তন না হলে বা লক্ষণগুলো প্রকাশ পেলে মহাখালী ‘আই-ই-ডিসিআর’র মেডিকেল টিম রোগির কফ, রক্ত সহ প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থা করবেন। করোনার ভাইরাস পাওয়া গেলে বা পজেটিভ হলে তাদের মহাখালী ‘আই-ই-ডিসিআর’র নিবিড় পর্যবেক্ষনে রেখে চিকিৎসা সেবা দেয়া হবে।

ট্যাগ: bdnewshour24 করোনা